ব্রাসিলিয়া ও মিলানে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট


ব্রাজিলের ব্রাসিলিয়ার এবং ইতালির মিলানে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে ১৭ মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৮ উদযাপিত হয়েছে।

গতানুগতিক উদযাপনের বাইরে গিয়ে ব্রাজিলে বাংলাদেশ দূতাবাস এ বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন করেছে ব্রাসিলিয়ার সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের একটি স্কুলে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী উদযাপন করতে ‘কাজা আজুল’ নামের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের স্কুলের প্রায় দেড়শ’ শিশু এক সপ্তাহ ধরে বাংলাদেশের ইতিহাস আর সংস্কৃতি নিয়ে পড়াশোনা করেছে দিবসটিকে সুন্দর আর স্মরণীয় করে রাখতে। শিশুরা গবেষণা করেছে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে।

বাংলাদেশের পতাকার লাল ও সবুজ রং ছাড়াও নীল সমুদ্র আর হলুদ শর্ষেক্ষেতের রংয়ে সেজেছিল স্কুল এবং স্কুলের শিশুরা। চার রঙে চার দলে ভাগ হয়ে আয়োজন করা হয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতাও। প্রত্যেকটি দলই একাধিক পরিবেশনা করে। বাংলাদেশের মানুষের আতিথেয়তা আর খাওয়া-দাওয়া নিয়েও স্কুলের শিশুরা ছোট একটি নাটিকা পরিবেশন করে।

অনুষ্ঠানের শেষে রাষ্ট্রদূত মো. জুলফিকার রহমান জয়ী তিনটি দলের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন এবং সকল প্রতিযোগীকে সনদ প্রদান করেন।

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বাংলাদেশের নাচ, গান-এর ওপর শিশুদের পরিবেশনা দুই দেশের শিশুদের আত্মিক বন্ধনে আবদ্ধ করেছে- যা ভবিষ্যতে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করবে’।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শিশুদের ভালোবাসতেন, তবে সমাজের প্রান্তিকে থাকা শিশুদের জন্য তাঁর বিশেষ ভালোবাসা সর্বজনবিদিত। সেই দৃষ্টান্ত আর অনুপ্রেরণা থেকেই এবারের এ আয়োজন। এ আয়োজনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে শিশুরা জেনেছে, ভালোবেসেছে’।

অন্যদিকে, ইতালির মিলানে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই পবিত্র কোরান থেকে তেলাওয়াত করা হয় এবং বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের নিহত সকল সদস্যের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত ও দেশের অব্যাহত শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। আলোচনা অংশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশিরা বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে মিলানে নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল রেজিনা আহমেদ শিশুদের জন্য বঙ্গবন্ধুর গভীর মমত্ব ও ভালবাসার কথা তুলে ধরে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সারাজীবন বাঙালির মুক্তির জন্য কাজ করে গেছেন’। তিনি শিশুদের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃতে বর্তমান সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

জাতির পিতার জন্মদিবসের আনন্দ শিশুদের মধ্যে ছড়িয়ে দেবার জন্য কনসাল জেনারেল উপস্থিত শিশুকিশোরদের নিয়ে কেক কাটেন।





 


১৮ মার্চ, ২০১৮ ১৯:৪০:৪৮