অস্ট্রেলিয়া জাতীয় সংসদে ২১ ফেব্রুয়ারি’ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত
কাজী সুলতানা শিমি
অ+ অ-প্রিন্ট
অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংসদ ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের স্বীকৃতি প্রদানের বিল পাশ করেছে। গত ১২ই  ফেব্রুয়ারি সোমবার এ বিল পাশ হয়। ফেডারেল এম পি ও মাল্টিকালচারাল শ্যেডো মিনিস্টার  ম্যাট থিস্টলথওয়েট অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংসদের অধিবেশনে মোশনটি উত্থাপন করেন। এরআগে মাতৃভাষা সংরক্ষণ আন্দোলন বা MLC Movement International তার কাছে মহান একুশে ফেব্রুয়ারির চেতনার বিশ্বায়নে International Mother Language Day স্বীকৃতি ও রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে উজ্জাপনের জন্য অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল পার্লামেন্টে এই মোশন আনার বিষয়টি আলোচনা করে। জাতীয় অধিবেশনে সরকারী ও বিরোধী দলের সব সাংসদরা সর্ব সম্মতিক্রমে বিলটি পাশ করে।  

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় সংসদে এ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের বিল উত্থাপন করার পর বাংলাদেশ,ঢাকা,শহীদ মিনার, ৫২ মাতৃভাষা আন্দোলন নিয়ে আবেগপুর্ন প্রসঙ্গের অবতারণা হয় যা দর্শক গ্যালারীতে বসে থাকা বাংলাদেশীদের জন্য এক আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি করে। সিডনির আসফিল্ড পার্কে বহির্বিশ্বে প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ, UNESCO র সাথে যৌথ কর্মসূচী , অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশের লাইব্রেরি সমূহে একুশে কর্নার প্রতিষ্ঠা, ক্যানবেরা লেজিসলেটিভ এসেমব্লিতে মোশন পাশ সহ বহু প্রাপ্তির নেপথ্যে রয়েছে MLC Movement International.

জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে বিতর্কে অংশ নেন ফেডারেল এম পি জুলি ওয়ান্স, টনি বার্ক, মিশেল রোলান্ড সহ আরও অন্যান্য সংসদ সদস্যগণ। এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে MLC চেয়ারপারসন নির্মল পাল বলেন, বাঙালি জাতি হিসেবে আমরা গর্বিত, এ অর্জন বাংলা ভাষাভাষী সকলের। এ লক্ষ্য অর্জনের প্রয়াসে বিশ্বের সকল মাতৃভাষা রক্ষায় বিশ্বব্যাপী আন্দোলন গড়ে তুলতে গত ১০ বছর ধরে অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এমএলসি মুভমেন্ট ইন্টারন্যাশনাল নিরলসভাবে কাজ করে আসছে। সহযোগী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও মিচুয়াল হোমসের সত্ত্বাধিকারী এনাম হক বলেন, ২১শে ফেব্রুয়ারির মর্মার্থ বিশ্বের কাছে পরিচিত করতেই আমাদের এই সম্মিলিত প্রয়াস।  

এর আগে অস্ট্রেলিয়ান ফেডারেল এমপি এবং হাউজ অব রিপ্রেজেনটেটিভস-এ স্ট্যান্ডিং কমিটির উপপ্রধান ম্যাট থিস্টলথওয়েট এর সিডনির কার্যালয়ে এ বিষয়ে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।বৈঠকে বিশ্বের সব গ্রন্থাগারে একুশে কর্নার প্রতিষ্ঠা, মাতৃভাষা সংরক্ষণ, কনজার্ভ ইউর মাদার ল্যাংগুয়েজ আন্দোলনকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেওয়া, বিশ্বের প্রধান প্রধান শহরে মাতৃভাষা দিবস স্মৃতিসৌধ স্থাপনসহ অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা করা হয়। তিনি অস্ট্রেলিয়ায় জাতীয়ভাবে একুশে ফেব্রুয়ারি’কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ উদযাপন করার ব্যাপারে দেশটির ফেডারেল পার্লামেন্টের সহযোগিতা পাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।  

উল্লেখ্য,গত ১৩ সেপ্টেম্বর এমএলসি মুভমেন্টের প্রস্তাবে অস্ট্রেলিয়ার ক্যাপিটাল টেরিটরি বা এসিটি রাজ্য সরকারের উদ্যোগে সর্বসম্মতিক্রমে একুশে ফেব্রুয়ারি 'আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস' উদযাপন এবং ক্যানবেরায় স্মৃতিসৌধ নির্মাণের প্রস্তাব পাস করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ২১ ফেব্রুয়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের স্বীকৃতি প্রদানের এই অর্জন। 

 

 

 

 

 

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৪০:১৪