কুয়েতে ওয়েল আল নসীব ও ফজর আল খালিজ এর শ্রমিকদের কর্মবিরতি
কুয়েতে থেকে শেখ এহছানুল হক খোকন
অ+ অ-প্রিন্ট
কুয়েতে বিভিন্ন ভাবে পরিছন্ন কর্মী হিসাবে অসংখ্য শ্রমিক কর্মরত রয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানির মাধ্যমে তারা ভিসা নিয়ে কুয়েতে আসেন। কোম্পানির সকল নিয়ম কানুন মেনেই এ সকল  শ্রমিকরা তাদের দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন । কিন্তু বর্তমান বাজারে সে সকল কোম্পানি গুলোর মধ্যে চলছে কম্পিটিশন আর এখন তাদের কন্ট্রাক নিয়ে চলে দরদাম  কার আগে কে নিতে পারবে কন্ট্রাক । নতুন কন্ট্রাক পেয়ে গেলে শ্রমিকদের সাথে ভালোই আচরণ লক্ষ্য করা যায়,  কিন্তু কয়েক মাস গেলেই শুরু হয় কোম্পানি গুলোর অত্যাচার, নিপীড়ন, তখন তারা ভুলেই যান  যে এই শ্রমিকদের জন্যই তাদের কোম্পানি । ভিভিন্ন সময় অনেক কোম্পানি শ্রমিকদের উপর বসিয়ে দেন  ভ্যাট আর তারই ফলশ্রুতিতে  বিভিন্ন সময় শ্রমিকারা অসহায় হয়ে পড়েন । তাদের পিট ঠেকে যায় দেয়ালে তখন তারা তাদের দাবী আদায়ের জন্য আন্দোলন বা কর্ম বিরতির পথ খুজে নেন ।

 তারই ধারাবাহিকতায় আজ ১৬/০৪/২০১৭ ইং ভোর থেকেই ওয়েল আল নসীব ও  ফজর আল খালিজ এর প্রায় ১৫ হাজার শ্রমিক কাজে যোগ দেইনি । তারা তাদের ব্যারাকের সামনে অবস্থান  নেয় । কোম্পানির বস বা কর্মকর্তারা  এলে তাদের দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্ম বিরতি চলবে বলে জানান শ্রমিকা । বিগত প্রায় ১০ বছর পূর্বে এই ওয়েল আল নসীব কোম্পানিই বেতন বৃদ্ধির আন্দোলন করে তারই ফলশ্রুতিতে আজ  ক্লিনিং কোম্পানির বেতন ২০ দিনার ঠেকে ৬০  দিনারে। 

শ্রমিকদের অভিযোগ তাদের আকামা রেনু করতে, দেশে ছুটিতে গেলে , ডিউটি পরিবর্তন করতে, এমন কি সুপারভাইজার ও ম্যানেজারদের মন রক্ষা করতে তাদের বেধে দেওয়া নির্দেষ   পালন করতে হয় । অথচ এগুলো সম্পূর্ণই অবৈধ পন্থা আর এসকল পদ্ধতি গুলোর জন্য তাদের কাছে থেকে ২০০-৪০০ দিনার  হাতিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন । কুয়েত সরকার  শ্রমিকদের বন্ধু কিন্তু বিভিন্ন কোম্পানির প্রশাসনকে ব্যবহার করে শ্রমিকদের উপর হুমকি দামকি চালায় । তারা বর্তমান  সরকার প্রধানমন্ত্রী সহ উপর মহলের সহযোগিতা কামনা করেন ।

০২ মে, ২০১৭ ০০:০০:২৭