‘পেইন কিলার আমাকে সমকামী করে তুলেছে’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সম্প্রতি এক যুবক দাবি করেন, লিরিকা ব্র্যান্ডের ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়ার পর থেকে তিনি সমকামী হয়ে গেছেন! ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইংল্যান্ডের ২৩ বছর বয়সী এই যুবকের নাম স্কট পার্ডি। স্কটের অভিযোগ, প্রিগাবালিন নামের সেই ওষুধ খাওয়ার পর থেকে তার চিন্তাশক্তি ধীরে ধীরে বদলে যেতে শুরু করে। ক্রমশ তার বিভিন্ন আচরণগত সমস্যাও দেখা দেয়। তার মধ্যে অস্বাভাবিক কিছু পরিবর্তনের ফলে একটা সময়ের পর স্কটের বান্ধবীও তাকে ছেড়ে চলে যান। স্কটের আরও দাবি, ইদানীং মহিলাদের চেয়ে পুরুষদেরই তার বেশি ভাল লাগে।

দ্য সান-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই ওষুধটির বিষয়ে ইংল্যান্ডের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সংস্থা জানায়, লিরিকা ব্র্যান্ডের প্রিগাবালিন ট্যাবলেটটি মৃগীরোগ, উদ্বেগ বা ব্যথা নিবারণে সেবন করা হয়। অন্যান্য ওষুধের মতো এটিরও কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও আছে। প্রতি ১০০ জনের মধ্যে একজনের ওষুধটির পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এই ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসাবে সিদ্ধান্তহীনতা, অস্বাভাবিক কল্পনায় বিচরণ, ব্যক্তিত্বহীনতা, হীনমন্যতা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। তবে স্কট পার্ডির এই দাবির সত্যতা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুললেও কথায় কথায় ব্যথানাশক ওষুধ (পেইন কিলার) খাবার অভ্যাস কিন্তু মারাত্মক বিপদ ডেকে আনতে পারে। যেমন...

১. প্যারাসিটামল বা ব্যথানাশক ওষুধের দীর্ঘকালীন ব্যবহারে যকৃতের কার্যক্ষমতা নষ্ট হতে পারে।

২. কিডনির উপর পেইন কিলারের মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে। মাত্রাতিরিক্ত পেইন কিলার সেবনের ফলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কিডনী কার্যক্ষমতা হারাতে পারে।

৩. মাত্রাতিরিক্ত পেইন কিলার সেবনের ফলে পাকস্থলীর রক্ত ক্ষরণসহ বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিতে পারে।

৪. ২০০৮ সালে শিশুদের উপর এক সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গেছে, দীর্ঘকালীন প্যারাসিটামল বা পেইন কিলার ব্যবহারে শিশুদের মধ্যে হাঁপানির উপসর্গ প্রকাশের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

৫. মাত্রাতিরিক্ত পেইন কিলার সেবনের ফলে রক্ত তঞ্চনের ক্ষমতা কমে যাতে পারে। যথাসময়ে চিকিৎসা না করলে রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। সূত্র: জিনিউজ

 

 

৩০ জুন, ২০১৮ ১২:৪৯:১৬