ফেসবুকে নগ্ন ছবি পোস্ট করলেন ধর্ষিতা
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
প্রতীকী ছবি
কৈশোরে তিন তিনবার ধর্ষিতা হয়েছিলেন তিনি। ধর্ষণের সেই আতঙ্ক ২৫ বছর বয়সে এসেও কাটিয়ে উঠতে পারেননি সুজি লারসন। ধর্ষণের বিরুদ্ধে সচেতনতা গড়ে তুলতে প্রায়ই খোলাখুলি কথা বলেন এই মার্কিন তরুণী। কিন্তু এজন্য তাকে নানা সমালোচনা শুনতে হয়। কেউ কেউ বলেন, নিজের দোষেই নাকি ধর্ষিতা হয়েছিলেন সুজি। এ ধরনের সমালোচনা শুনলে মানসিকভাবে আরও বেশি ভেঙে পড়েন এই মার্কিন তরুণী। এবার সমালোচকদের প্রতিবাদ জানাতে বেছে নিয়েছেন অভিনব পন্থা। সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট করছেন নিজের নগ্ন ছবি!‌ 

ছোটবেলায় সুজিকে যে তিনজন তাকে ধর্ষণ করেছিল, তাদের মধ্যে দু’জন তারই পরিবারের সদস্য। তখন কেউ তাকে সাহায্য করেনি। উল্টো তাকেই দুষেছে সবাই। খোলামেলা পোশাক পরার কারণেই নাকি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন সুজি। তার এসব পোশাক নাকি ধর্ষকদের প্ররোচিত করেছিলো। তারপর থেকে সবসময়ই শরীর ঢেকে পোশাক পরেতেন সুজি। মানসিক অবসাদে খাওয়া–দাওয়াও প্রায় ছেড়ে দিয়েছিলেন। ফলে শারীরিক অবস্থারও ক্রমশ অবনতি হতে থাকে। এমন সময় সুজির জীবনে আসেন প্রেমিক স্যামুয়েল। তিনি সুজিকে বোঝান, ধর্ষণের সঙ্গে পোশাকের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই। আস্তে আস্তে সুস্থ হতে থাকেন সুজি। মানসিক জোরও বাড়তে থাকে।

শেষে অভিনব পরিকল্পনা করেন সুজি। ফেসবুকে পোস্ট করেন নিজের বিবস্ত্র ছবি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‌সবাই বলত, আমি নাকি ছোট পোশাক পরে শরীর দেখিয়ে ধর্ষকদের প্রলুব্ধ করি। তাই আমি নিজের দেহ খোলাখুলি সবার সামনে তুলে ধরলাম। এবার সবাই দেখুক এবং বিচার করুক। আমার দেহে এমন কী আছে, যা অন্য কোনও নারীর শরীরে নেই। আমার দেহে এমন কী আছে যা ধর্ষকদের লোভাতুর করে তোলে?’‌

২০১৪ সালে স্যামুয়েল এবং সুজির বিয়ে হয়েছে। এ নিয়ে দারুণ খুশি সুজি। ‘‌স্যামুয়েল আমার গোটা জীবন পাল্টে দিয়েছে। ও আসার পরে আমি নতুন করে জীবনের মানে খুঁজে পেয়েছি।’ বলছিলেন সুজি।‌ সূত্র: ইন্টারনেট

 

 

২৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ১১:১৫:২৬