দার্জিলিংয়ের এক রূপসী ঘুম কেড়েছিলেন জিন্না সাহেবের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
শৈলশহর দার্জিলিং সাক্ষী এক ঐতিহাসিক প্রেমের৷ যে প্রেম ভবিষ্যৎ পাকিস্তানের জাতির পিতাকে পরিপূর্ণ করেছিল৷ নিঝুম, নিস্তব্ধ হিমেল বাতাসে ঘেরা শহরের রাস্তায় এক অসাধারণ রূপসীর দীঘল চোখ পাগল করে দিয়েছিল রাশভারি ব্যারিস্টারকে৷ এ এমনই এক রূপকথা৷ যে কাব্য ছড়িয়ে আছে দার্জিলিং শহরের আনাচে কানাচে৷৷ ১৯১৭ সালের সেই ভালবাসার শতবর্ষ পূর্ণ হল৷

মহম্মদ আলি জিন্না ও রতনবাই পেটিটের ভালবাসার সাক্ষী দার্জিলিং৷ দূরে হিম শীতল কাঞ্চনজঙ্ঘা আর পাইনের সারি৷ জনহীন জলাপাহাড়, ঠাণ্ডায় থমকে থাকা পাহাড়ি বাঁক সর্বত্রই তাঁদের দুজনের কথা৷ বলাই বাহুল্য, দার্জিলিং যেন মিশে গিয়েছে আধুনিক পাকিস্তানের জনকের জীবনে৷

প্রথম স্ত্রী এমিবাইয়ের প্রয়াণের পর নিঃসঙ্গ হয়ে গিয়েছিলেন মহম্মদ আলি জিন্না৷ এমনই অবস্থায় দার্জিলিং সফর তাঁর জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল৷ ১৯১৭ সালে শৈলশহরে এসেছিলেন জাঁদরেল ব্যারিস্টার৷ আইনের জটিল প্যাঁচে অভ্যস্ত জিন্না সাহেব এখানে পড়লেন প্রেমের গভীর সাগরে৷

ঘটনা এরকম৷ বম্বের বিখ্যাত পার্সি ব্যবসায়ী স্যার দিনশো পেটিটের সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিল জিন্না সাহেবের৷ আর দিনশো পেটিটের প্রিয় স্থান দার্জিলিং শহর৷ স্ত্রী বিয়োগের পর হতাশ জিন্নাকে এই দার্জিলিং শহরেই আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন স্যার দিনশো৷ বম্বের গরম থেকে শীতল দার্জিলিংয়ে এসে মোহিত হয়ে গিয়েছিলেন জিন্না সাহেব৷ তাঁকে আরও মোহিত করে দিয়েছিল স্যার দিনশোর কন্যা রতনবাই পেটিট৷

স্যার দিনশো অতিথির আতিথেয়তার কোথাও কোন কার্পণ্য করেননি৷ চল্লিশ বছরের জিন্নাকে স্বাগত জানিয়েছিলেন আধুনিকা রতনবাই পেটিট৷ মোহিত জিন্না পরে স্যার দিনশোকে বলেন, আপনার কন্যার কি বিধর্মে আপত্তি আছে? আপনার এ বিষয়ে মতামত কী?

সুচতুর ব্যারিস্টার জিন্নার প্রশ্নে ক্ষুরধার ব্যবসায়ী পর্যন্ত চমকে যান পরে স্যার দিনশো বলেন, বিয়ে একটি সামাজিক বিধান তাই একটি সমাজের সাথে অপর সমাজের গ্রহণযোগ্যতাও বিবেচনা করতে হবে৷

ততদিনে রতনবাই পেটিটও জিন্নার প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছেন৷ অগত্যা তাঁরা দুজনেই পরিবারের অমতে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন৷ ধর্ম পরিবর্তন করে পার্সি থেকে ইসলাম গ্রহণ করেন রতনবাই৷

বিয়েটা হয়েছিল ১৯১৮ সালে৷ জিন্না সহধর্মিনী হয়েছিলেন রতনবাই৷ বাকিটা ইতিহাস৷ যে ইতিহাসে মিশে আছে দার্জিলিং শহর আর তার স্নিগ্ধ জীবন৷ ১৯২৯ সালে মাত্র ২৯ বছর বয়সে প্রয়াত হন রতনবাই৷ দার্জিলিং শহর থেকে প্রেমের ধারা মিশে গিয়েছিল আরব সাগর তীরের বম্বে শহরে৷

 

 

 

 

০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০৬:৪২:৪৮