কেন মধ্যরাতের ছবি শেয়ার করছেন ভারতীয় নারীরা?
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট


সম্প্রতি ভারতের নারীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মধ্যরাতে ঘোরাঘুরির ছবি শেয়ার করছেন। প্রথম দিকে বুঝতে না পাররেও পরে বিষয়টি অনেকের নজরে আসে। প্রশ্ন হচ্ছে কেন তারা এই কাজ করছেন? কেন শুধু মধ্যরাতে ছবি শেয়ার? অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, তারা মূলত এমনটি করছেন একজন রাজনৈতিক নেতার বক্তব্যের প্রতিবাদে। ওই বক্তব্যে ভারতে ক্ষমতাসীন দলের এক নেতা মধ্যরাতে হামলার শিকার এক নারীকেই দায়ী করে বক্তব্য রাখেন।

 মন্তব্যে তিনি বলেন, 'নারীদের বেশি রাতে বাইরে বের হওয়া উচিৎ নয়'। মূলত তার ওই বক্তব্যের প্রতিবাদে সরব এখন দেশটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। অসংখ্য নারী মধ্যরাতে তাদের বাইরে ঘোরাফেরার ছবি ফেসবুকে পোস্ট করছেন।

 কয়েকদিন আগে উত্তর চেন্নাই শহরে বর্ণিকা কুণ্ডু নামে এক তরুণী তার পেশাগত কাজ শেষ করে ঘরে ফিরছিলেন। পথে কিছু লোক তাকে ধাওয়া দেয় এবং অপহরণ করার চেষ্টা করে। তাদের মধ্যে একজন হলেন ক্ষমতাসীন দল বিজেপির এক নেতার ছেলে।

কেন মধ্যরাতের ছবি শেয়ার করছেন ভারতীয় নারীরা?

ডিজে বর্ণিকার অভিযোগ, তাকে হত্যা ও ধর্ষণের চেষ্টাও করা হয়। তবে পুলিশ পৌছে যাওয়ায় তিনি প্রাণে বেঁচে যান। এরপর ঘটনাটি তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করলে তা ভাইরাল হয়ে যায়। পাশাপাশি সমালোচনার ঝড় ওঠে। এদিকে বিজেপির হরিয়ানা রাজ্যের প্রবীণ নেতা রামবির ভট্টি সেই রাতের ঘটনার জন্য বর্ণিকেই দায়ি করেন।

রামবির বলেন, 'ওই তরুণীর রাত ১২টার পর গাড়ি চালানো উচিৎ হয়নি। কেন তিনি এতো রাতে গাড়ি চালাচ্ছিলেন? এটা ঠিক নয়, আমাদের উচিত নিজেদের নিরাপদে রাখা।' সন্তানদের প্রতি আরো কঠোর হওয়ার পরামর্শ দেন বিজেপির এ নেতা।

 কিন্তু ভুক্তভোগিকে দোষারোপ করার এই রীতির প্রতিবাদ করতে থাকেন সচেতন নারী-পুরুষ। আর প্রতিবাদের ভাষা হিসাবে নারীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে বেছে নেন। পোস্ট করতে শুরু করেন রাতে তাদের ঘোরাঘুরি এবং রাস্তায় অবস্থানের ছবি।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই প্রতিবাদের সূত্রপাত করেন কংগ্রেস দলের 'সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সেলের' প্রধান দিব্যা স্পন্দনা। তিনি কর্ণাটকের জনপ্রিয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রীও। হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের কয়েকজন নারীকে একটি বার্তা পাঠিয়ে এর প্রতিবাদের শুরু করতে বলেন তিনি, পরে তা বেশ সাড়া ফেলে।

 স্পন্দনা বলেন, 'কেন নারীরা মধ্যরাতে বাইরে যেতে পারবে না? আমি ভাট্টির মত মানুষকে জিজ্ঞেস করছি- তারা আমাদের জন্য সময় নির্ধারণ করে দেয়ার কে? এটা আসলে এক ধরণের প্রতিক্রিয়াশীল মানসিকতা।'

এই মানসিকতার পরিবর্তন দরকার বলে মন্তব্য করেন স্পন্দনা। তিনি প্রথমে নিজের একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করেন এবং অন্যদেরও আমন্ত্রণ জানান প্রতিবাদের জন্য। এরপর তার পথ অনুসরণ করে এখন অনেক নারী মধ্যরাতে তাদের ঘরের বাইরের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করছেন। সূত্র: বিবিসি বাংলা

 


০৯ আগস্ট, ২০১৭ ২১:২৬:৫০