শেখ হাসিনার সবচেয়ে বড় শত্রু কি ছাত্রলীগ?
আশীষ চক্রবর্ত্তী
অ+ অ-প্রিন্ট
শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে আরেকটি স্বীকৃতি পেয়েছেন শেখ হাসিনা৷ একই সময়ে এক ছাত্রলীগ নেতার অপকর্মের ভিডিও শত্রুর মুখে হাসিও ফুটিয়েছে৷ ভিডিওটি প্রশ্ন তুলছে – প্রভাবশালী প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না কেন? আগে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রধানমন্ত্রীর প্রসংশিত হওয়ার খবরটিই বলি৷ হ্যাঁ, টাইম ম্যাগাজিনের করা বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ম্যাগাজিনটি এমন স্বীকৃতি দেয়ার কারণ স্পষ্ট করেই বলেছে৷ অসম সাহস এবং উদারতা নিয়ে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাঁদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়েছেন৷ এমন মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্যই প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানিত করেছে টাইম ম্যাগাজিন৷

শেখ হাসিনার জন্য এমন স্বীকৃতি নতুন নয়৷ ২০১৫ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারী নেত্রীদের তালিকায় রেখেছিল তাঁকে৷ তারপর ২০১৬ সালে তাঁকে বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতাদের তালিকায় দশম স্থানে স্থান দেয় ফরচুনা ম্যাগাজিন৷ সমমনা, সমর্থক এবং ‘অরাজনৈতিক' নাগরিকদের অনেকেই তখন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে গর্ব করেছেন ৷ কিন্তু এবার কাউকে তেমন সুযোগ দেননি চট্টগ্রামের ছাত্রলীগ নেতা রনি৷ তিনি এক কোচিং সেন্টারের পরিচালককে পিটিয়েছেন৷ সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে৷ সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, চাদা না দেয়ায় কোচিং সেন্টারের পরিচালককে পেটানো হয়৷ প্রত্যাশিতভাবেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রনি৷ তবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিন্দা শুরু হওয়ায়, সংবাদমাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উঠে আসায় ছাত্রলীগ থেকে তিনি পদত্যাগ করেছেন৷

রোম যখন পুড়ছিল, নিরো তখন ঠিকই বাঁশি বাজাচ্ছিলেন কিনা এ নিয়ে বিতর্ক আছে, থাকবে৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রীকে টাইম ম্যাগাজিন সম্মানিত করার দিনেও দেশের  মানুষ যে কোচিং সেন্টারে রনির বর্বরোচিত কাণ্ড দেখে ধিক্কার জানিয়েছে তাতে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই৷ ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ডে দেশে কারো শান্তি, মর্যাদা এবং নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার সময়ে দেশের বাইরে প্রধানমন্ত্রীর সম্মানিত হওয়া নিয়ে আলোচনায় খুব বেশি উৎসাহ দেখানো কি সম্ভব?

ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জল অতীত আছে৷ কিন্তু সেই অতীত ভুলিয়ে দিচ্ছে বর্তমান প্রজন্মের ছাত্রলীগের কিছু কর্মকাণ্ড৷ মাঝে মাঝে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ছাত্রলীগের অপকর্মের এত খবর আসে যে, তখন বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করতে হয়৷ গত বছরের নভেম্বরে তাই ডয়চে ভেলেও একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল, যার শিরোনাম ছিল ‘ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্য': কলুষিত রাজনীতির ফল৷

তবে সবাই জানেন, দৌরাত্ম্য না কমার প্রধান কারণ রাজনৈতিক প্রশ্রয়৷ রনি যে এখনো গ্রেপ্তার হয়নি তার আসল কারণও তাই৷ প্রশ্রয় পেয়ে পেয়েই রনি, বদরুলরা উদ্ধত, বেপরোয়া হয়ে ওঠে৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখে সবসময়ই বিএনপি, জামায়াতের সমালোচনা শুনি৷ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সমালোচনা হবেই৷ তাছাড়া যাদের  মুক্তিযুদ্ধ, ১৫ই আগস্ট, জেলহত্যা, ২১শে আগস্টের মতো কালো অতীতের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ যোগাযোগ আছে, তাদের সমালোচনা অযৌক্তিকও নয়৷ কিন্তু ছাত্রলীগ তো চেনা প্রতিপক্ষদেরও ম্লান করে দিচ্ছে!  এমন ‘শত্রু' থাকলে আওয়ামী লীগের অন্য শত্রুর কী দরকার? -ডয়েচেভেলে

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

 

২০ এপ্রিল, ২০১৮ ২২:২৪:০০