জয়ের আশায় নির্বাচনেই থাকলো ঐক্যফ্রন্ট
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নির্বাচনে থাকছে বিএনপির প্রাধান্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট৷ ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘‘১৬ ডিসেম্বরের মতো ৩০ ডিসেম্বরও আমাদের বিজয় হবে৷''

বৃহস্পতিবার বিকেলে ঐক্যফ্রন্টের  সংবাদ সম্মেলনটি ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি করেছিল নানা কারণে৷  বিএনপি, তথা ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন বর্জন করতে পারে, এমন কথা শোনাযাচ্ছিল কয়েকদিন ধরে৷ বিশেষ করে মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে ড. কামাল হোসেনের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের পর এই আলোচনা আরো জেরালো হয়৷ বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের কেউ কেউ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন৷ কিন্তু বৃহস্পতিবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনের আগে জরুরি বৈঠকে নির্বাচনে থাকার পক্ষেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়৷ এরপর সংবাদ সম্মেলনে আসেন ফ্রন্ট নেতারা৷

সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘‘জনগণই দেশের মালিক৷ তাঁরা প্রজা নয়৷ জনগণের মালিকানা প্রতিষ্ঠা করা হবে৷ বঙ্গবন্ধু, তাজউদ্দীন জীবন দিয়েছেন৷ তাঁদেরকে আমরা স্মরণ করি শ্রদ্ধার সঙ্গে৷ ১৪ ডিসেম্বর, ১৬ ডিসেম্বর তাঁদের আমরা শ্রদ্ধা জানাই৷ আজকের এই নির্বাচন হলো তাঁদের স্বপ্নকে বাস্তবয়ানের নির্বাচন৷ আজকে আমাদের ঐক্যের ভিত হলো, স্বাধীনতার শহীদদের স্বপ্ন৷ সংবিধানে শহিদদের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য এই নির্বাচন৷ ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আমরা যেমন বিজয় অর্জন করেছি, তেমনি ৩০ ডিসেম্বরও আমাদের বিজয় হবে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠিত না হলে উন্নয়ন অর্থবহ হয় না৷ আমরা সবাই মিলে ভোটের বিপ্লব ঘটাবো৷ যারা অহংকারের সুরে কথা বলেন এবং যদি মনে করেন তারা দেশের মালিক, এটা ভুল হবে৷ দেশের মালিক কেউ না, দেশের মালিক দেশের ১৬ কোটি মানুষ৷ দেশে গণতন্ত্র না থাকলে উন্নয়ন অর্থবহ হয় না৷ ১০ পার্সেন্ট প্রবৃদ্ধি দিয়ে উন্নয়ন হয় না৷ এই ধরনের উন্নয়নের কথা আইউব খান বলতেন৷ উন্নয়ন হলো সবার জন্য৷ কাদের উন্নয়ন হয়েছে তা আপনারা জানেন৷'' তিনি যে-কোনো পরিস্থিতিতে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটারদের ভোট দেয়ার আহ্বান জানান৷

সংবাদ সম্মেলনে ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র এবং বিএনপি'র মহসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘‘সরকারের ইতোমধ্যে নৈতিক পরাজয় হয়েছে৷  আওয়ামী লীগকে প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে হচ্ছে৷ পাপের কাছে নতি শিকার না করে, ৩০ ডিসেম্বর জনগণকে তাঁদের মুক্তির জন্য, নিজেদের মালিকানা প্রতিষ্ঠা জন্য এবং গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য ধানের শীষে ভোট দিন৷'' তিনি গণমাধ্যমকে কারো কাছে নতি শিকার না করে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালনেরও  আহ্বান জানান৷ সংবাদ সম্মেলনে আরো ছিলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরীসহ আরো অনেকে৷

 বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অব্যাহত নিপীড়ন এবং হামলার কারণে বিএনপির নেতা-কর্মী এবং প্রার্থীরা ভোটের মাঠে দাঁড়াতে পারছিলেন না৷ প্রার্থীদের জীবন হুমকির মুখে পড়ে৷ কেউ তো আর জীবন শেষ করে নির্বাচন করতে চান না৷ তাই নির্বাচন থেকে সরে আসার মত আসছিল বিভিন্ন প্রার্থী ও নেতাদের কাছ থেকে৷ কিন্তু আমরা দেখলাম, জনগণ যে-কোনো পরিস্থিতিতে ভোট দিতে চায়৷ তাঁরা ভোট দেবেন৷ তাই আমরা নির্বাচনেই থেকে গেলাম৷''

তিনি বলেন, ‘‘এই সরকারের সঙ্গে জনগণ নেই৷ তাই তারা সরকারি বাহিনীকে মাঠে নামিয়ে অত্যাচার, নির্যাতন ও গ্রেপ্তার চালাচ্ছে৷ আর এতে প্রমাণিত হয় সরকার ভয় পেয়েছে৷ ৩০ ডিসেম্বর আমরা জয়ী হবো৷ সাধারণ মানুষ যেভাবে হোক আমাদের ভোট দেবে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে এই নির্বাচনে আমাদের অংশগ্রহণ৷ তবে আমরা ৩০ তারিখে জয় নিয়েই ঘরে ফিরবো৷''

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন,  ‘‘এখনো নির্যাতন এবং ধরপাকড় অব্যাহত আছে৷ আমাদের ৫ হাজার পোলিং এজেন্টকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ কেন্দ্রে আমাদের পোলিং এজেন্ট থাকবে না৷ কিন্তু আশার জায়গা হলো, জনগণ এবার ভোট দিতে যাবে৷ তাঁদের ঠোকানো যাবে না৷ আর তাঁরা ভোটকেন্দ্রে গেলেই আমরা জয়ী হবো৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘তারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করছে৷ একের পর এক প্রার্থীর ওপর হামলা করছে, যা পরিবেশকে ভীতিকর করে তোলে৷ নির্বাচনের পরিবেশ নেই৷ কিন্তু আমাদের আশা, এই পরিস্থিতিতেও জনগণ ভোট কেন্দ্রে যাবে৷'' -ডয়েচেভেলে

 

 

 

২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৪:২৪