সর্বদলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচনই প্রত্যাশা প্রবাসী বাংলাদেশিদের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সর্বদলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু জাতীয় সংসদ নির্বাচন হতে হবে৷ দেশকে হতে হবে বিনিয়োগবান্ধব৷ একইসঙ্গে স্বাধীনতার চেতনা অক্ষুণ্ণ রেখে গড়ে তুলতে হবে একটি ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ৷ ডয়চে ভেলে আয়োজিত টক শোয়ে এমনই সব প্রত্যাশার কথা উঠে আসে৷

আগামী ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন৷ বাংলাদেশের এই নির্বাচনকে ঘিরে দেশের জনগণের পাশাপাশি প্রবাসী বাংলাদেশিদের উন্মাদনাও কম নয়৷ তারই জের ধরে ডয়চে ভেলের বাংলা বিভাগ আয়োজন করেছিল বিশেষ টক শোয়ের৷ কেমনবাংলাদেশ শীর্ষক এই আলোচনাটি জার্মানির বন শহরে অবস্থিত ডয়চে ভেলের প্রধান কার্যালয় থেকে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়েছে বাংলা বিভাগের ফেসবুক পেজ থেকে৷ একইসঙ্গে বাংলা ট্রিবিউন ও আরটিভির ফেসবুক পেজ থেকেও সম্প্রচারিত হয়েছে অনুষ্ঠানটি৷

অনুপম দেব কানুনজ্ঞের সঞ্চালনায় এতে অংশ নিয়েছেন প্রবাসী রাজনীতিক ও জার্মান আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট বশিরুল আলম চৌধুরী, বিএনপির রাজনীতিক মোস্তাক খান, জার্মান রাজনৈতিক দল গ্রিন পার্টির সক্রিয় সদস্য শাহাবুদ্দিন মিয়া, প্রবাসী সাংবাদিক ও অ্যাক্টিভিস্ট শরাফ আহমেদ এবং গবেষক তন্বী নওশিন৷ অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে এই আলোচনায় যোগ দেন জার্মান প্রবাসী ক্যানসার গবেষক ড. গোলাম আবু জাকারিয়া এবং প্রকৌশলী মোনাজ হক৷ টক শো চলাকালে ডয়চে ভেলের স্টুডিওতে উপস্থিত ছিলেন জার্মানির বিভিন্ন জায়গায় অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা৷ এছাড়াও বাংলাদেশ ও বিশ্বের বিভিন্নস্থান থেকে দর্শকরা যোগ দেন ফেসবুক কমেন্টের মাধ্যমে৷

টক শো শুরুর আগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডয়চে ভেলের মুখপাত্র ক্রিস্টফ ইউম্পেল্ট৷ তিনি জার্মানপ্রবাসী বাংলাদেশিদের এই আয়োজনে স্বাগত জানান এবং বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে তাঁর প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন৷ ক্রিস্টফ বলেন, এই নির্বাচনটি বাংলাদেশের জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ৷ কারণ এর আগের জাতীয় নির্বাচনে  সার্বিকভাবে কোনো বিরোধী দলের অংশগ্রহণ চোখে পড়েনি৷ কিন্তু এবার বিরোধী দলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখা যাচ্ছে৷ অন্যান্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের মতো ডয়চে ভেলেও এই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে৷ তাঁর প্রত্যাশা, এই নির্বাচনের আগেই বাংলাদেশে গুম-খুন বন্ধ হবে এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হবে৷ 

তাঁর কথায়, ডয়চে ভেলে সবসময় বাকস্বাধীনতার পক্ষে দাঁড়িয়েছে৷ বাংলাদেশের মানুষ গণতান্ত্রিক ও বাকস্বাধীনতার পূর্ণাঙ্গ অধিকার পাক এমনটাই প্রত্যাশা তাঁর৷ তিনি আরও বলেন, ‘‘বিশ্বখ্যাত বাংলাদেশি আলোকচিত্রী শহীদুল আলম যেন অচিরেই তাঁর বিরুদ্ধে চলমান মামলা থেকে অব্যাহতি পান৷ জামিনে মুক্ত রয়েছেন তিনি, কিন্তু মামলা চলমান৷ তাই এটি একেবারেই প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান তিনি৷ এছাড়া আয়োজনে উপস্থিত বাংলাদেশিদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য সকলকে শুভকামনা জানান তিনি৷ 

সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনই প্রত্যাশা...

সঞ্চালক অনুপম দেব কানুনজ্ঞ আলোচনা শুরু করেন নির্বাচন নিয়ে৷ নির্বাচনে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড' কী অবস্থায় আছে – এমন প্রশ্নের প্রশ্নের উত্তরে প্রবাসী রাজনীতিক ও জার্মান আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট বশিরুল আলম চৌধুরী বলেন, ‘‘আমার মতে সবার সমান অধিকার নিশ্চত করাটাই ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড' এবং আওয়ামী লীগ সরকার ইতোমধ্যে সেটা করতে সক্ষম হয়েছে৷ নির্বাচনে সর্বদলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে এই সরকার৷'' তাই তিনি মনে করেন রাজনৈতিক সমতা বিরাজ করছে নির্বাচনি আবহে৷

তবে এ প্রসঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন বিএনপির রাজনীতিক মোস্তাক খান৷ তিনি বলেন, মনোনয়ন দাখিলের পর ১৯৭২ জন গ্রেফতাসহ নানা জটিলতার মুখোমুখী৷ এদিকে পল্টনে বিএনপির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করতে আওয়ামী লীগ নির্বাচনপূর্ব সহিংসতার সৃষ্টি করেছে ষড়যন্ত্র করে৷ নির্বাচন কমিশনে মনোনয়ন নিতে এসে লাশ হয়েও ফিরতে হয়েছে বিএনপি নেতার৷ তাই এই নির্বাচনি পরিবেশকে তিনি ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড' বলতে অস্বীকৃতি জানান৷এ সময় দর্শকের আসন থেকে আলোচনায় যুক্ত হন বিএনপির একজন সমর্থক৷ তিনি বলেন, ‘‘বিএনপির শক্তি তার ভোটার এবং নির্বাচন স্বচ্ছ হলে এটি প্রমাণিত হবে৷''

জার্মান রাজনৈতিক দল গ্রিন পার্টি বা সবুজ দলের সক্রিয় সদস্য শাহাবুদ্দিন মিয়া বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবর্তন কীভাবে আসতে পারে তা নিয়ে প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে আর গণতন্ত্র হচ্ছে সেটাই যখন জনগণ নির্বাচনে স্বচ্ছভাবে ভোট দিতে পারে৷'' তিনি জার্মান গণতন্ত্রের কথা উল্লেখ করে বলেন, এখানে জনসমর্থনের ভিত্তিতে সরকার গঠিত হয়৷ তাই বাংলাদেশের নির্বাচনেও তিনি এমনটা প্রত্যাশা করেন৷

এ সময় সঞ্চালকের প্রশ্নের মুখে তিনি জার্মানির শরণার্থীদের প্রতি বিদ্বেষ নিয়ে কথা বলেন৷ বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ৭৩ বছর পর এই দেশের সার্বিক সংস্কৃতি ও আচারে অনেক পরিবর্তন হয়েছে৷ প্রবাসী সাংবাদিক ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট সরাফ আহমেদ বলেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে দেশের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ হচ্ছে৷ সবার অংশগ্রহণটাকেই বড় করে দেখছেন তিনি৷ তিনি এই নির্বাচনকে ভীষণ ইতিবাচক বলে আখ্যা দেন৷ তিনি বলেন, এই যে সবাই অংশ নিচ্ছে এটিই গণতন্ত্র৷ তিনি আশা প্রকাশ করেন যে বাংলাদেশে এটি অব্যাহত থাকবে৷ 

অন্যদিকে প্রবাসী গবেষক তন্বী নওশিনের কথায় উঠে আসে সারা বিশ্বের গণতান্ত্রিক সংকটের প্রসঙ্গ৷ তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশে গত কয়েক বছরে সুন্দরবন, কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলন হয়েছে৷ তবে এখানে এইসব আন্দোলন নীতিনির্ধারক পর্যায়ে পরিবর্তন আনতে পারেনি৷ রাজপথেই শেষ হয়েছে বা চলছে৷'' তবে আশার কথা, এই যে গণজাগরণ মঞ্চের যে আন্দোলন ছিল সেটিকে সফল বলে অভিহিত করে তন্বী আওয়ামী লীগ সরকারকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রসঙ্গে ধন্যবাদ জানান৷ তবে পরবর্তীকালে ধর্মীয় আবেগ ব্যবহার করে যে রাজনৈতিক কৌশল করছে এই সরকার, তা নিয়ে আক্ষেপও প্রকাশ করেন তিনি৷

নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় যাওয়া প্রসঙ্গে বশিরুল আলম বলেন, ‘‘আওয়ামী লীগ তার আদর্শ থেকে বিচ্যুত হবে না৷ বরং তারা এই আদর্শের জের ধরেই ধর্মনিরপেক্ষ ও বিদ্বেষহীণ বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখে৷ আদর্শ বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যেই তারা কাজ করে আসছে৷''

তিনি আরও উল্লেখ করেন, আওয়ামী লীগ কোনো সামরিক বাহিনী নয়, তাদের শক্তি জনগণ৷ এই শক্তির বলেই তিনি আবার ক্ষমতায় আসার প্রত্যাশা রাখেন৷ তিনি আরও বলেন, বিশ্বের সব দেশেই সরকার ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করে, যা বাংলাদেশেও হতে যাচ্ছে৷ এটি গণতান্ত্রিক বাংলাদেশেরই একটি মাইলফলক৷

এ সময় দর্শকদের মধ্য থেকে প্রবাসী রাজনীতিক ইউনুস খান আওয়ামী লীগ সরকারকে ধন্যবাদ জানান৷ তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যেভাবে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও অন্যান্য সংকট মোকাবেলা করছে, তা নিঃসন্দেহে সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য৷

এই আলাপের জের ধরে বিএনপির রাজনৈতিক শক্তির প্রসঙ্গ তুলে ধরেন মোস্তাক খান৷ তিনি বলেন, ‘‘আজকে বিএনপির ঐক্যফন্ট্রের সঙ্গে যৌথভাবে নির্বাচনটি দলটির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার পরিকল্পনা৷ অন্যায়ভাবে কারাবন্দী হওয়ার আগেই তিনি দলকে নির্দেশ দিয়েছিলেন ঐক্য করার এবং দল সেই পথেই এগিয়ে যাচ্ছে৷'' স্বচ্ছ নির্বাচন হলে জনগণই জবাব দেবে বলে প্রত্যাশা করেন তিনি৷

ওদিকে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ প্রসঙ্গে কিছুটা হতাশা প্রকাশ করেন সরাফ আহমেদ৷ তিনি বলেন, আজকের বাংলাদেশে যা কিছু বাংলাদেশে ঘটছে এটি স্বাধীনতার অভ্যুদয় থেকেই এসেছে৷ তার পরে স্বাধীণতার যে মূল দাবি ধর্ম নিরপেক্ষ বাংলাদেশ সেটা ব্যহত হচ্ছে৷ বাংলাদেশে বিএনপি-যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াতের সঙ্গে জোট করে নির্বাচনে জয়ের চেষ্টা করে আসছে৷ একইভাবে আওয়ামী লীগ হেফাজতের সঙ্গে জোট করেছে ৮৩ শতাংশ মুসলনমানকে পাশে পাওয়ার উদ্দেশ্যে৷ রাজনীতিতে ধর্ম টেনে আনার কৌশল ভোট জেতার জন্যই বলে দাবি করেন তিনি৷ অথচ জার্মানিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে, যুদ্ধাপরাধীদের রাজনৈতিক অধিকার খর্ব করা হয়েছে, বলেন তিনি৷

সরাফ আহমেদের বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের বশিরুল আলম বলেন, ‘‘বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে, জামায়াত সরাসরি অংশ নিতে পারছে না নির্বাচনে৷ জামায়াতের বিচারও করবে আওয়ামী লীগ সরকার৷ তবে আমাদের এটি মাথায় রাখতে হবে আওয়ামী লীগ একটি রাজনৈতিক দল, বিচারিক আদালত নয়৷ বিচারের দায়িত্ব  আদালতের৷ আর সেটা নিশ্চয় হবে৷ 

সংখ্যালঘুদের ওপর সহিংসতা ভারতভাগের পরপরই

ভারত ভাগ হয় ১৯৪৭ সালে৷ এর পরপর পূর্ব বাংলার অনেক জায়গায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর নিপীড়নের বিভিন্ন ঘটনা ঘটতে থাকে৷ অনেকে বলে থাকেন যে, রাষ্ট্রীয় মদদে স্থানীয় মুসলিম জনগোষ্ঠী হিন্দুদের ওপর আক্রমণ করে৷ ১৯৪৯ সালে কালশিরা ও নাচোলে চলে বর্বরতা৷ এরপর ১৯৫০ সালে বরিশাল, ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন জেলায় মুসলিম জনগোষ্ঠীর একাংশ, পাকিস্তানি পুলিশ, আনসার বাহিনী হত্যা, লুণ্ঠন, অপহরণ, ধর্ষণ চালায়৷ এ সময় দর্শকদের পক্ষ থেকে প্রবাসী বাংলাদেশি বন্যা ফেরদৌস দেশ এগিয়ে নিয়ে যেতে রাজনৈতিক স্বার্থে ছাড়ের দাবি জানান৷ জার্মানিতে আশ্রয় নেওয়া ব্লগার পৃথু সান্যাল বলেন, বাংলাদেশে মৌলবাদ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে৷ তাই তিনি ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের দাবি করেন, যেখানে অভিজিতরা খুন হবে না৷

চাই উন্নয়ণশীল বিনিয়োগ ও প্রাকৃতিক পরিবেশ বান্ধব বাংলাদেশ...

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে কেমন বাংলাদেশ চাই এই প্রসঙ্গে ক্যানসার গবেষক গোলাম আবু জাকারিয়া প্রবাসীদের সহায়তায় বাংলাদেশের উন্নয়নের কথা তুলে ধরেন৷ তবে প্রবাসীদের এই অবদান তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছাচ্ছে কিনা, তা নিয়ে শঙ্কাও প্রকাশ করেন৷ এর সঙ্গে বাংলাদেশে পরিবেশ বিষয়ক জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি৷ বলেন, পরিবেশকে সর্বতভাবে গুরুত্ব দিতে হবে৷

প্রকৌশলী মোনাজ আহমেদ কেমনবাংলাদেশ দেখতে চান প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে বাংলাদেশের সংকট হচ্ছে যে আমরা মূল ধারা থেকে সবসময় অনেক দূরে থাকি৷ নির্বাচনি ইশতেহারের পরিবর্তে আমরা নির্বাচন কমিশন নিয়ে বেশি ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছি৷ অথচ এটি হওয়ার কথা ছিল না৷'' একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তিনি ধর্মনিরপেক্ষ উন্নয়নশীল বাংলাদেশ দেখতে চান৷ তবে একইসঙ্গে হতাশা প্রকাশ করেন এই বলে যে, ‘‘গত চারবার ক্ষমতায় থেকে স্বাধীনতার পক্ষের দল আওয়ামী লীগও আমাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে৷''

সরাফ আহমেদ বলেন, দেশের বিভাজন দূর করতে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে৷ তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, দশট্রাক অস্ত্র এবং গুম, খুন, ক্রসফায়ারের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘‘এগুলো বন্ধ করতে প্রধান রাজনৈতিক দলদের একসঙ্গে বসতে হবে৷'' তিনি আরও জানান, এটা হতাশার যে বাংলাদেশের কোনো রাজনৈতিক দলের ইশতেহারে পরিবেশ বিষয়ে আলোচনা নেই৷

বিএনপির মোস্তাক খান বলেন, ‘‘বাঁচতে হলে সবুজ দরকার৷ বিএনপি সেই সবুজ নিয়ে কাজ করবে এমন প্রতিশ্রুতি রয়েছে৷ তবে তার আগে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড, গুম, খুন – এগুলো বন্ধ করতে হবে অবিলম্বে৷ নতুবা এটা সম্ভব হবে না৷''

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী রাজনীতিক বশিরুল আলম বলেন, ‘‘পরিবেশ নিয়ে আওয়ামী লীগেরও নিজস্ব ইশতেহার রয়েছে৷ এই সরকারের আমলেই পরিবেশ মন্ত্রণালয় শক্তিশালী হয়েছে৷'' 

পরিবেশ বিষয়ে মোনাজ হক বলেন, ‘‘জার্মানির মতো দেশে গ্রিন মুভমেন্ট আছে৷ কয়লা খনি বন্ধ করে দিয়েছে, একটি পার্টিও গড়ে উঠেছে৷ কিন্তু বাংলাদেশের কোনো রাজনৈতিক দলের কর্মকাণ্ড পরিবেশ নিয়ে আন্দোলন নেই৷'' 

গ্রিন পার্টির শাহবুদ্দিন মিয়া আশা প্রকাশ করেন, ‘‘জার্মানিতে ইতোমধ্যে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, কয়লাও বন্ধের পথে৷ বাংলাদেশেও এমন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হবে অচিরেই৷''

বিদেশি বিনিয়োগ প্রসঙ্গে মোনাজ হক প্রবাসী বাংলাদেশিদের উদাত্ত বিনিয়োগের আহ্বান জানান এবং বাংলাদেশ সরকারকের পৃষ্ঠপোষকতা দাবি করেন৷ এ বিষয়ে ক্যানসার গবেষক গোলাম জাকারিয়া বাংলাদেশের থেকে সরকারি প্রতিষ্ঠানে ব্যক্তিগত বিনিয়োগের যে সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে, একজন চাইলেই স্বাস্থ্যখাতে বিনিয়োগ করতে পারবে সেটির ভূয়সী প্রশংসা করেন৷ তবে মার্কেটিং স্পেশালিস্ট আসিফ ইকবাল হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘‘উন্নত এবং আধুনিক বাংলাদেশ আমরা সবাই চাই৷ তবে এখানে প্রশ্ন ফাঁসের মতো ঘটনা ঘটছে, যা শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে আমাদের সন্দিহান করে তুলছে৷'' বাংলাদেশের সবক্ষেত্রে প্রবাসী গবেষক, বিজ্ঞানীদের সংযুক্ত করার আহ্বান জানান তিনি৷ এর পরিপ্রেক্ষিতে বশিরুল আলম বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় চায় জনগণের অংশগ্রহণ৷ তিনি প্রবাসীদের দেশে গিয়ে আরও উন্নত স্যাটেলাইট তৈরিসহ নানা উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান৷ সবশেষে সরাফ আহমেদ বাংলাদেশে বিনিয়োগে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা ও রাজনৈতিক সংকট দূরিকরণের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন৷

এর পরপরই দর্শক সারি থেকে সাংবাদিক আবদুল হাই বলেন যে, পারস্পিক শ্রদ্ধাশীল রাজনৈতিক দল ও সহিংসতামুক্ত বাংলাদেশ চান তিনি৷ তরুণ প্রবাসী নিয়াজ হাবিব টেকসই উন্নয়ন ও আইনের সুশাসন, উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সম্বলিত বাংলাদেশ হবে এমন আশা প্রকাশ করেন৷ এছাড়া দর্শকের সারি থেকে সব প্রবাসীরাই বিনিয়োগবান্ধব বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানান৷ একইসঙ্গে গুম, খুন ও ধর্ষণমুক্ত সংকটহীন বাংলাদেশের প্রত্যাশা করেন তারা৷ -ডয়েচেভেলে

 

০৮ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১২:৪৪:১৯