বাংলাদেশে বার বার শিশু হত্যা কেন?
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
বাংলাদেশে আবারো এক কিশোরকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে৷ আগের মতোই তাকে ‘চোর’ অপবাদ দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে পিটিয়ে হত্যা করা হয়৷ অনেকে দাঁড়িয়ে তা দেখলেও কেউ শিশুটিকে রক্ষায় এগিয়ে আসেনি৷ সিলেটে শিশু রাজন হত্যার ঘটনা এখনো দেশের মানুষ ভুলে যায়নি৷ তাকেও চোর অপবাদ দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছিল৷ ওই ঘটনায় আসামিদের আটক এবং শাস্তির আওতায় আনা হলেও পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হচ্ছে না৷ অপরাধজ্ঞানীরা বলছেন, বাংলাদেশে প্রতি বছর বাংলাদেশে দুই থেকে আড়াইশ' মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়৷ তার মধ্যে একটি অংশ শিশু-কিশোর৷ আর অধিকাংশ ক্ষেত্রেই চোর অপবাদ দিয়ে এই পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটানো হয়৷ এর সঙ্গে জড়িত থাকে প্রাভাবশালীরা৷  ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে চুরির অপবাদ দিয়ে  রিয়াদ নামে ১৪ বছর বয়সি এক স্কুলছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করা হয় বৃহস্পতিবার সকালে৷ উপজেলার উথুরী ঘাগড়া টাওয়ার মোড় বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে৷

উথুরা ঘাগড়া টাওয়ার মোড় বাজারের আশরাফুলের মনোহারী দোকানের তালা ভেঙে চুরির চেষ্টার অপবাদ দিয়ে প্রথমে রিয়াদকে আটক করা হয়৷ তারপর বাজারের ব্যবসায়ী আশরাফুল, কামরুল,  রশিদ ও তার সহযোগীরা তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেদম মারধর করে৷ ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়৷ এ সময় অনেকে সেখানে থাকলেও কেউ তাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেননি৷ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তার মৃত্যু নিশ্চিত করেই দুর্বৃত্তরা সেখান থেকে চলে যায়৷

শিশুটির বাবার নাম সাইদুর রহমান৷ তিনি সৌদি প্রবাসী৷ তাঁর দু'টি বোন আছে৷ মা বাকপ্রতিবন্ধী৷ এলাকায় তাঁদের আর কোনো আত্মীয়-স্বজন নেই বলে ডয়চে ভেলেকে জানান গফরগাঁও সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল আলম খোকন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি সকাল আটটার দিকে খবর পাই৷ খবর পেয়েই গ্রাম পুলিশ পাঠাই৷ কিন্তু সে গিয়ে দেখে রিয়াদ মারা গেছে৷'' 

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘সেখানে অনেকে থাকলেও কেউ রক্ষায় এগিয়ে যায়নি৷ আর আমাকেও যদি আরো আগে খবর দেয়া হতো তাহলে আমি গিয়ে হয়তো রক্ষা করতে পারতাম৷ কিন্তু কেন যথাসময়ে খবর দিলো না সেটা আমারও প্রশ্ন৷''

স্থানীয় সাংবাদিক আতাউর রহমান জুয়েল ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘শিশুটি মারা যায় আটটার দিকে৷ ঘটনা শুরু হয় সকাল ৬ টার দিকে৷ প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে গাছের সঙ্গে বেঁধে তাকে নির্মমভাবে পিটানো হয়৷ স্থানীয় কয়েকজন আমাকে জানিয়েছেন, তারা গাছের সঙ্গে বাঁধার পরপরই থানায় খবর দিয়েছেন৷ কিন্ত পুলিশ আসে সকাল ১০টার দিকে৷ শিশুটিকে হত্যার দুই ঘণ্টা পরে৷ কিন্তু গফরগাঁও থানা ঘটনাস্থল থেকে মাত্র ৬ কিলোমিটার দূরে৷ ঘটনাস্থল সদর ইউনিয়নে৷ পুলিশ সময়মতো এলে হয়তো শিশুটিকে প্রাণ দিতে হতো না৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘শিশুটিকে পিটিয়ে হত্যার সময় সেখানে আরো ২০-২৫ জন লোক ছিল৷ তারা এগিয়ে গেলে তাদের হুমকি দেয়া হয়৷ যারা শিশুটিকে হত্যা করেছে, তারা এলাকায় প্রভাবশালী৷''

এই ঘটনায় আশরাফুল, কামরুল,  রশিদসহ ৯ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা হয়েছে৷ কিন্তু পুলিশ এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করেনি৷

গফরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল আহাদ খান ঘটনার দিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সকাল ৮টার দিকে খবর পাই, এক কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে৷ পরে তার লাশ উদ্ধার করি৷ ঘটনাস্থলে যেতে একটু দেরি হয়েছে, কারণ, ফোর্স অন্য ডিউটিতে ছিল৷ তাদের প্রস্তুত  করতে এই দেরি হয়েছে৷ ঘটনার পর হত্যাকারীরা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে৷ তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে৷'' থানা সূত্র জানায়, চুরির অপবাদ দিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হলেও এর পেছনে অন্য কোনো কারণ থাকতে পারে৷

এদিকে বাংলাদেশে শিশু হত্যার এই প্রবণতা সম্পর্কে মানবাধিকার কর্মী এবং বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোকেট এলিনা খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দু-একটি ঘটনার বিচার হলেও অধিকাংশ ঘটনায় বিচার হয় না৷ তাই অপরাধীরা বেপরোয়া হয়ে উঠছে৷ যারা এই সব ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তারা সমাজের প্রভাবশালী৷ ফলে তাদের বিরুদ্ধে কেউ সাক্ষী দিতেও সাহস পায় না৷'' 

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমাদের সাক্ষী সুরক্ষা আইন নেই৷ ফলে কেউ সাক্ষী দিলে তাকে ক্ষতির মুখে পড়তে হয়৷ কেউ কোনো অপরাধ প্রতিরোধ করতে গেলে তাকেই অনেক সময় আসামি হতে হয়৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘মানুষের মধ্যে মূল্যবোধ বা মানবিকতা নেই, তা নয়৷ মানুষ বর্তমান সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় তার প্রকাশ ঘটাতে পারে না৷ কারণ, বিচারহীনতায় সে ভীত এবং নিজেকে গুটিয়ে নিচ্ছে৷ কোনো ভালো কাজ বা  অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গেলে এখানে বিপদে পড়তে হয়৷''

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও অপরাধ বিজ্ঞানের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন এমন হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশে প্রতি বছর দুই থেকে আড়াইশ' মানুষকে এভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়৷ এরমধ্যে একটি অংশ শিশু৷'' তাঁর মতে, ‘‘এর দু'টি দিক আছে৷ প্রথমত, মানুষ বিচার না পেয়ে আইন নিজের হাতে তুলে নিচ্ছে৷ আর এই বিচারহীনতার সুযোগ নিয়ে আরেকটি গ্রুপ তাদের স্বার্থে শিশুদের হত্যা করছে, নানা ধরনের অপরাধ করছে৷''

তিনি বলেনন, ‘‘আমাদের সমাজ শিশুবান্ধব নয়৷ যতই বলি না কেন গফরগাঁওয়ে যথন শিশুটিকে হত্যা করা হয়, দীর্ঘ সময় গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটানো হয়, তখন সেখানে আরো অনেকে ছিলেন৷ তারা কোনো-না-কোনোভাবে শিশুটিকে রক্ষায় উদ্যোগ নিতে পারতেন৷  তাদের সে উদ্যোগ না নেয়া আমাদের সমাজের নির্মম নিষ্ঠুরতারই প্রকাশ৷''  -ডয়েচেভেলে

০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১০:৫৯:৩৯