শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যা ঠেকাতে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আক্তার মালিহা ও তার সুইসাইড নোট
স্কুলের শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে মঙ্গলবার ঢাকার শাহজাহানপুর এলাকায় এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে৷ আরেক শিক্ষার্থী স্কুল ভবন থেকে পড়ে প্রাণ হারায়৷ কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি দুর্ঘটনা৷ তবে বন্ধুদের দাবি, এটি আত্মহত্যা৷

২৪ জুলাই, মঙ্গলবার রাতে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আক্তার মালিহা (১৪) ঢাকার শাহজাহানপুরের নিজ বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে৷ সে শহীদ ফারুক ইকবাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল৷ তার একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ তাতে লেখা আছে, ‘‘আমার সুইসাইড করার কারণ একমাত্র রিমি ম্যাডাম৷ সে অযথা পরীক্ষায় আমার খাতা নিয়েছে৷ আর পরীক্ষায় কম নম্বর দিয়েছে৷ তোমরা যদি পার তাহলে সেই ম্যাডামকে মানসিক চিকিৎসা দাও, মেন্টাল হসপিটালে পাঠাও৷ ম্যাডাম আমারে অভিশাপ দিয়েছে, তাই আমার ভালো রেজাল্ট খারাপ হয়েছে৷'' পুলিশ এই সুইসাইড নোট এবং প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে শিক্ষক রিমি আক্তারকে গ্রেপ্তার করে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়েছে৷

মালিহার চাচাতো ভাই আলমগীর মিয়া জানান, ঘটনার ১০/১২ দিন আগে তার পরীক্ষা শেষ হয়৷ মালিহার কাছ থেকেই তারা জানতে পেরেছেন, পরীক্ষার সময় স্কুলের ব্যবসায় শিক্ষার শিক্ষিকা রিমি আক্তার মালিহার পরীক্ষার খাতা কেড়ে নেন এবং নম্বর কম দেন৷ বিষয়টি নিয়ে মালিহা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং পরীক্ষায় তার ফল খারাপ হবে বলে ধারণা করতে থাকে৷ গত মঙ্গলবার রাতে মালিহার মা মুনমুন বেগম ছোট মেয়ে সামিহাকে নিয়ে পাশের ঘরে ছিলেন৷ মালিহা তার ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে ফ্যানের সাথে ওড়না পেচিয়ে গলায় ফাঁস দেয়৷

দুর্ঘটনা, না আত্মহত্যা?

একই দিনে উত্তরা রাজউক মডেল কলেজের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী নাফিসা নেওয়াজ ইথিকা ভবনের ৪র্থ তলা থেকে পড়ে নিহত হন৷ স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবি করছে সে পা ফসকে পড়ে যায়৷ থানা পুলিশ বলছে, তারা কোনো অভিযোগ পাননি৷ অভিযোগ পেলে মামলা নেয়া হবে৷ কিন্তু ঐ কলেজের শিক্ষার্থীরা দাবি করছেন, ইথিকা আত্মহত্যা করেছে৷ পরীক্ষার নম্বর নিয়ে সে মানসিক চাপে ছিল৷

কলেজ ভবনের ৪র্থ তলায় যাওয়ার সময় হঠাৎ সে সিঁড়ি থেকে পড়ে যায়৷ এ সময় ক্লাসের শিক্ষার্থীরা তার চিৎকার শুনতে পায় এবং ইথিকাকে ভবনের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখে৷ আহত অবস্থায় তাকে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নেয়া হয়৷ পরে তাকে সেখান থেকে সিএমএইচে নেয়ার কিছু সময় পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন৷

জানা গেছে, প্রিটেস্ট পরীক্ষায় গণিতে ইথিকা ১০০ নম্বরের মধ্যে ৩৯ পান৷ এক নম্বরের জন্য তিনি ঐ বিষয়ে ফেল করেন৷ কিন্তু ইথিকা নম্বরপত্রে সেটাকে ৬৯ করেন৷ এটা শিক্ষকের কাছে ধরা পড়ে এবং তাকে টিসি দেয়ার হুমকি দেয়া হয়৷ যখন তাকে জোর করে প্রিন্সিপালের কাছে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তখন সে সিঁড়ি থেকে লাফ দেয়৷

জরিপ

বাংলাদেশে শিশুদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বাড়িতে শারীরিক শাস্তি নিয়ে ইউএনডিপি একটি জরিপ পরিচালনা করে ২০১৩ সালে৷ সাক্ষাৎকারভিত্তিক সেই জরিপে দেখা যায়, প্রতি ১০ জন শিশুর মধ্যে ৯ জন জানিয়েছে যে, তারা তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শারীরিক শাস্তির শিকার হয়েছে৷

আর ইউনিসেফের জরিপ বলছে, ২০১০ সাল পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতকরা ৯১ ভাগ শিশু শারীরিক শাস্তির শিকার হয়েছে৷ জরিপে বলা হয়, বাংলাদেশের স্কুলগুলোতে বেত বা লাঠির ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে এবং ৮৭ দশমিক ৬ শতাংশ ছাত্র এই বেত বা লাঠির শিকার হয়৷

হাইকোর্টের নির্দেশনা

২০১১ সালে হাইকোর্ট শিশুদের শারীরিক শাস্তি দেয়ার বিষয়টি বেআইনি এবং অসাংবিধানিক ঘোষণা করে৷ আর হাইকোর্ট-এর নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষা মন্ত্রণালয় এব্যাপারে একটি পরিপত্রও জারি করে৷ এই পরিপত্রই আইন৷ বলা হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেউ শিশুদের শারীরিক শাস্তি দিলে ১৯৭৯ সালের সরকারি কর্মচারী আচরণ বিধিমালার পরিপন্থি হবে এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে৷ অভিযোগের জন্য অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ১৯৮৫-এর আওতায় অসদাচরণের অভিযোগে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে৷ প্রয়োজনে ফৌজদারি আইনেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে৷ কিন্তু মানসিক শাস্তির বিষয়ে কোনো কিছু স্পষ্ট করে বলা হয়নি৷

টিসি আতঙ্কে অভিভাবকরা!

বাংলাদেশ অভিভাবক ঐক্য ফোরামের সভাপতি জিয়াউল কবির দুলু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘স্কুল শিশুরা শারীরিক শাস্তির পাশাপাশি মানসিক পীড়ণের শিকার হচ্ছে৷ ফলে দুঃখজনক অনেক ঘটনা ঘটছে৷ অভিভাবকরা প্রতিবাদ করলে তাদের সন্তানরা শাস্তির মুখে পড়ে৷ অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে রীতিমত টিসি আতঙ্কে আছেন৷ কথায় কথায় সন্তানকে টিসি দিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়৷'' তিনি বলেন, ‘‘এনিয়ে আমরা মন্ত্রণালয়েও কয়েকবার অভিযোগ করেছি৷ কোনো কাজ হয়নি৷ উল্টো অভিভাবকদের রাজনৈতিক এবং প্রশাসনিকভাবে হয়রানি করা হয়৷''

জিয়াউল কবির দুলু আরো বলেন, ‘‘স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রধানত শিক্ষকের কাছে কোচিং করতে বা প্রাইভেট পড়তে রাজি না হওয়ায় তাদের শারীরিক ও মানসিকভাবে হেনস্তা করা হয়৷ আর এর প্রতিবাদ করলে টিসি দিয়ে দেয়া হয়৷''

হয়রানির অভিযোগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. মুজিবুর রহমান লাভলু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শিক্ষা হবে আনন্দের মধ্য দিয়ে৷ শিশুরা পড়াশুনা বা পরীক্ষাকে ভয় পাবেনা৷ এটাই শিক্ষার আধুনিক কৌশল৷ কিন্তু আমাদের এখানে এর উল্টো ব্যবস্থা চলছে৷ শিক্ষার্থীদের নানাভাবে শারীরিক ও মানসিক চাপে রাখা হয়৷ আর এর ফলে অনেক দুঃখজনক ঘটনা ঘটে৷''

তিনি বলেন, ‘‘আমাদের কাছে এরকম অভিযোগও আছে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের কাছে বা কোচিং-এ না পড়লে তাদের নানাভাবে হয়রানি করা হয়৷''

ড. লাভলু বলেন, ‘‘পরীক্ষা ভীতি এবং পরীক্ষার রেজাল্ট নিয়ে শিক্ষার্থীরা অনেক মানসিক চাপে থাকে৷ এটা দূর করতে হবে৷ উন্নত বিশ্বে এই পরিস্থিতি এড়াতে পরীক্ষার ফল শিক্ষার্থীকে এককভাবে জানানো হয়৷ যাতে সে তার ক্লাসমেট বা বন্ধুদের কাছে খারাপ ফলের জন্য হেয় বা অপমানিত না হয়৷''

শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন

হয়রানি, চাপ বা হেনস্তার শিকার হয়ে শিক্ষার্থীদের এই আত্মহত্যাকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নেয়ার কথা বলেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট এবং হাসপাতালের শিশু কিশোর ও পারিবারিক সম্পর্ক বিভাগের চিকিৎসক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘একই চাপ বা হেনস্তার মুখে সবাই আত্মহত্যা করে না৷ কেউ কেউ করে৷ তাহলে শিক্ষার্থীদের মানসিক অবস্থা এবং গঠন বোঝা জরুরি৷ প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মানসিক অবস্থা আলাদাভাবে জানা জরুরি৷''

তিনি বলেন, ‘‘শিক্ষার্থীদের ওপর মানসিক বা শারীরিক চাপ হয় এমন কোনো আচরণ কোনো শিক্ষক করতে পারবেন না৷'' আরেক প্রশ্নের জবাবে ডা. আহমেদ বলেন, ‘‘স্কুলগুলোতে নিয়োগ দেয়ার মতো বাংলাদেশে অত চাইল্ড সাইকোলজিস্ট নেই৷ তাই প্রয়োজন স্কুলের শিক্ষকদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া৷ তারা যাতে বিষয়টি বুঝতে পারেন৷ তারা যেন জানেন, শিক্ষার্থীদের প্রতি কেমন আচরণ করতে হবে, কোন শিক্ষার্থী কোন ধরণের আচরণ নিতে পারবে৷ এছাড়া শিক্ষার্থীদের মানসিকভাবে কোনো নেতিবাচক প্রবণতা থাকলে তাদের সেই অনুযায়ী চিকিৎসকের কাছে পাঠাতে হবে৷'' ডয়েচেভেলে

 

 

 

 

২৭ জুলাই, ২০১৮ ১১:৪৯:৩০