খাশগজি ইস্যুতে বিভক্ত আরব গণমাধ্যম
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট


আরব গণমাধ্যমে খাসগজির ঘটনাটি একটি বিতর্কিত ইস্যুতে পরিণত হয়েছে৷ শত্রুভাবাপন্ন দুই শিবির এই ইস্যুতে পরস্পরবিরোধী অবস্থানে দাঁড়িয়েছে৷ আদর্শ নয়, বরং অর্থদাতা ও মালিকানার ওপরই নির্ভর করছে মিডিয়ার অবস্থান৷ বুধবার সৌদি সংবাদপত্র আল ওয়াতান দেশটির পাঠকদের জন্য কিছুটা হলেও ভালো খবর প্রকাশ করেছে৷ আর তা হলো, সৌদি আরবের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

বিবৃতিতে ঠিক এমন বক্তব্যই দিয়েছেন ট্রাম্প৷ তিনি বলেছেন, সৌদি আরব এখনো যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ মিত্র৷ খাশগজি ইস্যুতে তিনি বলেন, ‘‘এ ব্যাপারে সব তথ্য জানা কষ্টসাধ্য হবে৷''

তবে ট্রাম্পের অবস্থান সম্পর্কে খণ্ডিত তথ্য প্রকাশ করেছে সংবাদপত্রটি৷ কারণ, একই বিবৃতিতে ট্রাম্প এ-ও বলেছেন যে, খাশগজি হত্যার ঘটনা সম্পর্কে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান (সংক্ষেপে এমবিএস) অবগত ছিলেন কিনা, সে বিষয়ে তিনি নিশ্চিত নন৷ তবে বক্তব্যের এই অংশটুকু একেবারেই এড়িয়ে গেছে আল ওয়াতান৷

অন্য কোনো সংবাদপত্র না পড়লে আল ওয়াতান পাঠকদের মনে হতেই পারে, খাশগজি হত্যার ঘটনায় সৌদি-মার্কিন সম্পর্কে কোনো প্রভাবই পড়েনি৷

একই ঘটনার সংবাদ প্রকাশ করেছে সৌদি নিউজ চ্যানেল আল আরাবিয়া৷ ‘‘পুরো সত্য হয়তো কখনোই জানা যাবে না'', ট্রাম্পের এমন বক্তব্য ঠিকই প্রচার করেছে চ্যানেলটি৷ কিন্তু আল ওয়াতান পত্রিকার মতোই, সৌদি যুবরাজের সাথে ট্রাম্পের যে কিছুটা দূরত্ব তৈরি হয়েছে, তা সুচতুরভাবে এড়িয়ে গেছে আল আরাবিয়া৷ সংবাদের এই অংশটুকু ভালোভাবে নেয়নি সৌদি রাজপরিবার৷ ফলে প্রচারিত সংবাদ থেকে বাদ পড়েছে ট্রাম্পের বক্তব্যের এই অংশটুকুও৷

মালিকানায় বিপত্তি

ট্রাম্পের বক্তব্যের ঠিক অন্য একরকম ব্যাখ্যা মিলছে কাতারের টিভি চ্যানেল আল-জাজিরার দর্শকদের৷ ট্রাম্পের বিবৃতি উদ্ধৃত করে চ্যানেলটির সংবাদে বলা হয়েছে, ‘‘রিয়াদ বা ওয়াশিংটনে অবস্থান করা কোনো বিশেষ ব্যক্তির রাজনৈতিক আদর্শ টিকিয়ে রাখার ওপর সৌদি-মার্কিন সম্পর্ক নির্ভর করে না, এই স্পষ্ট বার্তা দেয়া হয়েছে৷'' এমন অবস্থানের মাধ্যমে স্পষ্টতই আক্রমণ করা হয়েছে বিন সালমানকে৷ মাত্র দেড় বছর আগে এই সৌদি যুবরাজই নানা ধরনের বয়কটের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে কাতারকে একঘরে করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন৷

আল-জাজিরার বিশ্লেষণে বলা হয়, সৌদি যুবরাজ রাজনৈতিকভাবে পরাক্রমশালী হতে পারেন, কিন্তু সৌদি-মার্কিন সম্পর্কে তাঁর অবস্থান খুবই নগণ্য৷ রাষ্ট্রের কোনো প্রতিনিধির তুলনায় রাষ্ট্রের অস্তিত্ব বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলেও মন্তব্য করা হয়েছে চ্যানেলটিতে৷ সংবাদ বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, বিন সালমানও শেষ পর্যন্ত অন্য অনেক রাজনীতিবিদের মতোই একজন এবং শেষ বিচারে তিনিও প্রতিস্থাপনযোগ্য৷

ক্ষমতার লড়াই

রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাধরদের অর্থনীতি-রাজনীতি প্রভাব ফেলছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর গণমাধ্যমেও৷ রাষ্ট্রের রাজনৈতিক অবস্থান তো বটেই, অর্থদাতাদের মতামতের ওপর ভিত্তি করেও সংবাদ প্রকাশের অবস্থান নির্ধারণ করতে হচ্ছে সংবাদমাধ্যমগুলোকে৷ অন্যান্য ইস্যুতে অপেক্ষাকৃত স্বাধীনতা থাকলেও খাশগজি ইস্যুতে তৈরি হয়েছে একে অপরকে ‘এক হাত দেখে নেয়ার' মানসিকতা৷

জার্মানির মাইনজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর আরব ওয়ার্ল্ড-এর প্রধান এবং মধ্যপ্রাচ্য বিশেষজ্ঞ গ্যুন্টার মেয়ার বলছেন, ‘‘আরব বিশ্বে গণমাধ্যমের কোনো স্বাধীনতা নেই৷'' তিনি বলেন, ‘‘অঞ্চলটির কম-বেশি সব দেশেই স্বৈরাচারী শাসন চলছে৷ শাসকদের সমালোচনা করতে পারে, এমন কোনো সংবাদমাধ্যমের অস্ত্বিত্বই নেই সেখানে৷''

আল-জাজিরার সাথে সম্পর্কিত কাতারি সংবাদপত্র আল-আরাবি আল-জাদিদ সৌদি আরবের সমালোচনা করে বলছে, ‘‘সৌদি আরবের নিজের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠায় যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য পশ্চিমা দেশের সমর্থন আদায়ে ব্যর্থ হয়েছেন বিন সালমান৷'' পত্রিকাটি বলছে, ‘‘খাশগজির হত্যাকাণ্ড সৌদি রাজনীতির সামরিকীকরণ, অসহিষ্ণু আচরণ, সমালোচকদের চুপ করিয়ে দেয়ার মানসিকতার প্রমাণ৷'' অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে রিয়াদকে সামলানো ক্রমশই কষ্টসাধ্য হয়ে উঠছে বলেও মনে করে পত্রিকাটি৷

অন্যদিকে, আল-জাজিরা নামের এক সৌদি সংবাদপত্র খাশগজি ইস্যুকে সৌদি রাজপরিবারের বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র হিসেবে দেখছে৷ কাতার ও তুরস্তের বিরুদ্ধে খাশগজি ইস্যুতে ‘কাল্পনিক গল্প বানানোর' অভিযোগ তুলেছে পত্রিকাটি৷ -ডয়েচেভেলে

 


২২ নভেম্বর, ২০১৮ ২০:৪০:২৬