‘পাকিস্তান জুড়ে সাংবাদিকতার মৃত্যুর ঘণ্টাধ্বনি শোনা যাচ্ছে’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
পাকিস্তানে আক্রান্ত গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ। তবে এই প্রথম নয় বারে বারে এই আক্রমণের জেরে পাকিস্তানে এই পেশা আজ গভীর অস্তিত্ব সংকটে। হুমকি,মারধরের জেরে কার্যত বিপন্ন সেদেশের সাংবাদিকদের জীবন। ‘কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট’ একটি স্বশাসিত, স্বাধীন সংস্থা তাদের এই করুণ অবস্থার কথা তুলে ধরেছেন। ‘কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট’ গণমাধ্যমের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠায় আইনগত সাহায্যের জন্য গঠিত একটি প্রতিষ্ঠান। সেদেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষার স্বার্থে তারা একটি ‘অ্যাক্ট অফ ইন্টিমিডেশন’ প্রকাশ করবে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর।

বেড়ে চলেছে নিষেধজ্ঞা, না মানলে হুমকি, মারধর আর এর সর্বশেষ পরিণাম মৃত্যু। চলতি বছরেই মারা গিয়েছেন দুই সাংবাদিক অঞ্জুম মুন্নার রাজা(৪০) ও মুহাম্মদ আবিদ(২৫)। ২০১৬ সালে ‘ইন্টারন্যাশানাল ফেডারেশন অফ জার্নালিস্টস’ এর প্রকাশিত একটি তালিকা থেকে জানা যায়, শুধুমাত্র পাকিস্তানেই সাংবাদিকহত্যার সংখ্যা ১১৫। সাংবাদিকদের জন্য বিশ্বের চতুর্থ ভয়াবহতম দেশ পাকিস্তান।

পাকিস্তানের মানবাধিকার কমিশনের এক সদস্য জোহরা ইউসুফ জানিয়েছেন,’পাকিস্তানি সাংবাদিকেরা একটি অত্যন্ত কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন’। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সাংবাদিক, যিনি নিজেও অত্যন্ত খারাপ ভাবে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি জানিয়েছেন,’এটা শুধুমাত্র আমাকে আক্রমণের বিষয় নয়,সমগ্র সাংবাদিক সম্প্রদায়ের প্রতি এটি একটি বার্তা ছিল’। আরও এক সাংবাদিক জানান,’সাংবাদিকরা নিসচুপ,পাকিস্তানে সাংবাদিকতা মরতে চলেছে’।

২৫ জুলাই নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে সিপিজে প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে একটি চিঠি পাঠায়। ঐ সময় সাংবাদিকদের জন্য একটি সুস্থ পরিবেশ তৈরি করতে,যা তাদের প্রাপ্য।কিন্তু আদতে কিছুই কাজের কাজ হয়নি। যে কোনো সমালোচনার বিনিময়েই তেড়ে এসেছে আক্রমণ। সিপিজে আরও জানিয়েছে, রাজনৈতিক নেতা বা দলগুলির মন্তব্য দেখালে কখনোই তাদের দণ্ডিত করা উচিত নয়।

পাকিস্তানের গুল বুখারি,আসাদ খারাল,তাহা সিদ্দিকীর মতো দুঁদে সাংবাদিকরা পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের পাশে দাঁড়িয়ে হুমকির শিকার হয়েছেন আরও অনেকে। মারভি সিম্রাদের ইসলামাবাদের বাড়িতে পর্যন্ত হামলা করা হয়। তাঁর বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস নষ্ট করে দেওয়া হয়।

ব্রিটেনের গণমাধ্যম স্বাধীনতার একেবারে তলানিতে স্থান পাকিস্থানের। প্রসঙ্গত, পাকিস্তানে ক্ষমতায় এসেছে ইমরান সরকার। শপথ গ্রহণের আগেই ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশ্যে তিনি বলেছিলেন ভারতীয় সংবাদমাধ্যম তাঁকে ‘ভিলেন’এ পরিণত করে তুলেছে। এখন পাকিস্তানি সাংবাদিকদের কাছে তিনি নিজেকে ‘হিরো’ হিসেবে প্রমাণ করতে পারেন কিনা সেটাই দেখার। নাহলে শেষের সেদিন যে কতটা ভয়ঙ্কর তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

 

০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১৭:১৫