বই মেলায় শামীম ফেরদৌসের ‘তবুও কাটে না আঁধার’
কামাল সিদ্দিকী
অ+ অ-প্রিন্ট
দেখা শক্ত না লেখা কঠিন- এই প্রশ্নটি আবারো নতুন করে আমাদের সামনে চলে এলো শামীম ফেরদৌসের লেখা ‘তবুও কাটেনা আঁধার’ বইটি পড়ে। বিভিন্ন সময়ে পত্রিকায় লেখা কলামগুলির সন্নিবেশন যা তিনি এবারে বই আকারে ছেপে সেই প্রশ্নকে উসকে দিলেন। বস্তুত আমাদের সমাজে নারীর অবস্থান আর তার থেকে মুক্তির দিক নির্দেশনাকে অবলম্বন করে লেখক তার ক্যারিশম্যাটিক উপস্থাপনারে মাধ্যমে সেই প্রশ্নটিকে আবারো সামনে নিয়ে এসেছেন। যুগে যুগে নারীর ওপর পুরুষের নিগৃহ এই বইয়ের সারা পৃষ্ঠা জুড়ে বর্ণিত হয়েছে। লেখক তার মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে তার সমাধানের প্রয়াস চেয়েছেন যা লক্ষণীয়।

আমরা সমাজে এখনো নারীকে পণ্য হিসাবে দেখতে অভ্যস্ত। বলা যেতে পারে এই আফিমে বুদ হয়েই আমরা নারীর বিভিন্ন কর্মকান্ড বিবেচনা করে থাকি। যে কোন অপরাধের দায় নারীর, এই বিশ্বাস থেকেই আমরা এখনো তাদেরকে বিচার করি। বিচারটি যে যথার্থ নয় লেখক বেশ সাবলীল ভাষায় সে কথা বলেছেন। আর যা বলতে চেয়েছেন তাতে কোন রাখঢাক নেই।  ‘তবুও কাটে আঁধার’ বইটিতে ১৬ টি প্রতিবেদন সংযোজন রয়েছে। যার প্রথমটি হচ্ছে ‘আত্মহত্যায় সমাধান নেই’, আর শেষটি হচ্ছে ‘সালিশের কালো থাবায় বিপর্যস্ত নারী জীবন’।

সমাজে যৌন  নির্যাতনের শিকার নারী। আর তার দায়ও নারীর। প্রেক্ষাপট বিবেচনা না করেই নারীর ওপর সব দোষ ঢেলে দেবার মানসিকতায় সমৃদ্ধ এই পুরুষ সমাজ। তাই দেখা যায় যে নারী নিগৃহিত হলেন, তিনি আবার দন্ডও পেলেন। যদিও মাঝে মধ্যে পুরুষকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়, তবে দন্ডের ক্ষেত্রে তাদের প্রতি এক ধরনের শিথিলতা দেখতে পাওয়া যায়। পুরুষের দোষকে  লঘু করে দেখার মানসিকতা থাকলেও নারীর প্রতি করুণা দেখানোর কোন সুযোগ নেই।

যুগ যুগ ধরে চলে আসা নারীর প্রতি এই আক্রোশের সুন্দর ক্যানভাস শামীম ফেরদৌসের ‘তবুও কাটেনা আঁধার।’ তার লেখনি শক্তি থেকে এটা বেশ স্পষ্ট হয়ে বেরিয়ে এসে সমাজকে চাবুক মেরেছে। কিন্তু সমাধান সূত্র যাদের হাতে তারা কি পারবে সেই দায় কাঁধে তুলে আমাদের পৃথিবীকে নারীর বাসযোগ্য করে দিতে? আর কথায় নয় কাজে  সমমর্যদা দিতে।

লেখক সেই প্রত্যাশিত প্রত্যাশার কথা তার শক্তিশালী লেখনি দিয়ে তুলে ধরার চেষ্টা চালিয়েছেন। এক নিশ্বাসে পড়ে যাওয়ার মত সুপঠিত এই বইটি নিয়ে অনেক কিছুই আশা করা যেতে পারে। সমাজে নারীদের মানুষ হিসাবে বিবেচনা করার যথেষ্ট উপাত্ত বইটিতে রয়েছে। প্রকাশনার ক্ষেত্রে এই বইটি হতে পারে অনেক তথ্যের আধার। ভরসা এতটুকু একঘর আঁধার তাড়াতে একটি মোমবাতিই যথেষ্ট। শামীম ফেরদৌস সেই আঁধার তাড়াতে মোমবাতি নিয়েই হাজির হয়েছেন।

কারুবাক প্রকাশনীর সুপাঠ্য বইটি উন্নত কাগজ এবং সুন্দর মলাটে ছাপা। যার দাম রাখা হয়েছে ২২০টাকা। বইটি যে পাঠক প্রিয়তা পাবে সেই ভরসা রাখার সৎ সাহস যোগাচ্ছে লেখকের ক্যারিশম্যাটিক  উপস্থাপনা। বইটি সকলকে পড়ে দেখার অনুরোধ।


 

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৪২:৫১