স্বাস্থ্যের জন্য ভালো হলেও ক্ষতিকর!
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
শরীর সুস্থ রাখতে আমরা কত কিছুই না করি। প্রচুর পরিমাণে পান থেকে শুরু করে নিয়মিত ব্যায়াম। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি বাদ দেই না ভিটামিন সেবনেও। এগুলো সবই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কিন্তু আপনি জানেন কী, কখনও কখনও এই ভালো জিনিসগুলোই স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। এক্ষেত্রে গবেষকরা বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষায় যে কোন কাজ পরিমিত পরিমাণে করাই ভালো। নতুবা বিপদের আশঙ্কা।

এবার জেনে নিন কোন কাজগুলো ভালো হলেও কখনও কখনও তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর-

প্রচুর পরিমাণে পানি পান

পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করলে কিডনির নানা রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। একইসঙ্গে হজমশক্তি, মেজাজ এবং ত্বক ভালো রাখতেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিন্তু আপনি জানেন কী, অতিরিক্ত পানি পানে ক্ষতিও হয়। অতিরিক্ত পানি পানে অধিক জলয়োজন হতে পারে। এতে মস্তিষ্কের কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটে। এর ফলে শরীরের স্বাভাবিক ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্যেও প্রভাব পড়ে এবং জলয়োজনের মাত্রাটা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।   

শোয়ার ঘর

প্রতি সপ্তাহে বালিশের কাভার ধোয়া ভালো। কিন্তু আপনি কি মনে করতে পারবেন নতুন বালিশ কবে কিনেছেন কিংবা সেগুলো পরিস্কার করেছেন কিনা? যদি আপনি মনে করতে না পারেন তাহলে সমস্যাই বটে। কেননা শোয়ার ঘরে ধুলো ময়লাসহ অনেক ক্ষুদ্র পরজীবী কীট বসবাস করে। আর এই ঘরের বালিশগুলো হলো তাদের প্রজনন স্থল।

প্যাকেটজাত বোতলের পানি

বোতলের পানি কখনই স্বাস্থ্যকর হতে পারে না। এটি যদি প্যাকেটজাতও হয়ে থাকে তাহলেও কিন্তু আপনি জানেন না, এই পানি আসলে কোন জায়গা থেকে আসছে। আবার এই পানিগুলোতে কোন কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়েছে কিনা? পরে এই পানি পানে নানা স্বাস্থ্য সমস্যা বিশেষ করে ক্যান্সার, স্থূলতা প্রভৃতি সমস্যা হতে পারে। কাজেই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্যাকেটজাত হলেও প্লাটিকের বোতলের পানি এড়িয়ে চলুন।

অতিরিক্ত ব্যায়াম

স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ব্যায়াম করা ভালো। কিন্তু অতিরিক্ত ব্যায়াম শরীরের মারাত্মক ক্ষতি করে। নিজেকে নিয়ে চ্যালেঞ্জ নেওয়া ভালো। এজন্য প্রতিদিন রুটিন করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ব্যায়াম করুন। তা না হলে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

খাবার সোডা

খাবার সোডা দেখতে খারাপ নয়, আবার এতে কোন ক্যালরি, চর্বি কিংবা চিনিও নেই। তবে এই সোডা খেলে দাঁত নষ্ট হতে পারে। আবার চিনি না থাকলেও এতে মিষ্টি জাতীয় কিছু উপাদান বিশেষ করে অ্যাসপারটেম, সাইক্লামেট, স্যাকারিন, সুক্রালোজ প্রভৃতি থাকায় তা ওজন বাড়াতে ভূমিকা রাখে।

পরিচ্ছন্ন বিছানা

সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা বিছানা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করার কাজে লেগে যাই। কিন্তু বিছানার উপর নানা জিনিস গুছিয়ে রাখার ফলে দুভার্গ্যবশত এতে তাপ ও আর্দ্রতা আটকা পড়ে যায়। এই পরিবেশে ক্ষুদ্র রোগ জীবাণুগুলো বিস্তার লাভ করে। এতে হাঁপানি এবং অ্যালার্জির সমস্যা বেড়ে যেতে পারে।

ভিটামিন

ভিটামিন শরীরের জন্য ভালো। কিন্তু উচ্চ মাত্রার ভিটামিন বিশেষ করে আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, বিটামিন বি৬ সেবন বৃদ্ধ নারীদের মৃত্যুর কারণ হতে পারে।  গবেষণায় দেখা গেছে, ভিটামিন ই পুরুষদের প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ভিটামিন সাপ্লিমেন্টের উপর সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করা খারাপ। সবচেয়ে ভালো হয়, আপনি যদি ভিটামিন সাপ্লিমেন্টের পরিবর্তে প্রচুর পরিমাণে ফলমূল ও শাকসবজি খান।

কম চর্বিযুক্ত খাবার

সাধারণত ওজন কমাতে আমরা সবার আগে কম চর্বিযুক্ত খাবার বেছে নেই। এতে অনেক সময় আমরা ডায়েট থেকে ভালো চর্বি বিশেষ করে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড বাদ দেই, যা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড শুধু ত্বক নমণীয় এবং বলিরেখা মুক্ত রাখতেই সাহায্য করে না, একইসঙ্গে মস্তিষ্ক, হৃদপিণ্ড ভালো রাখতে এবং বাতের ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়।

সোজা হয়ে বসা

আমরা সবসময় বলি সোজা হয়ে বসা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে, অফিসে দীর্ঘ সময় ধরে ৯০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে বসে থাকলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সবচেয়ে ভালো হয়, যদি আপনি আপনার ডেস্ক থেকে ১৩৫ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে বসেন।

খাবার পরপরই দাঁত ব্রাশ

প্রতিবার খাবার পরপরই দাঁত ব্রাশ করা কখনই উচিত নয়। কারণ সাইট্রাস খাবার কিংবা ড্রিংস পানের পর এর অ্যাসিড আমাদের দাঁতের উপর প্রভাব ফেলে যার ফলে মাড়ি নরম হয়ে যায়। কতাই খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে তা ওই অ্যাসিডের উপর প্রভাব ফেলে। এতে দাঁতের মাড়ির নিচের স্তরে ক্ষয় হতে পারে। তাই খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ না করার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:০৬:২৯