সম্পর্ক বিষয়ক যত সমস্যা নিরসনে 'টক থেরাপি'
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সম্পর্ক বিষয়ক জটিলতা নিয়ে যারা বিশেষজ্ঞের কাছে যান, তাদের নানা থেরাপি দেওয়া হয়। এসব থেরাপির মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর থেরাপিটা হলো 'টক থেরাপি'।

গবেষণায় বলা হয়, এই থেরাপি সব মানুষের মধ্য বেশ কাজ করে।

সম্পর্ক বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ভিনা চক্রবর্তী জানান, টক থেরাপির মাধ্যমে যেকোনো মানুষের চিন্তার ছবি ফুটে ওঠে। এর মাধ্যমে মানুষের অনুভূতি ও আবেগ স্পষ্ট তা পায়। থেরাপিস্ট এই থেরাপির মাধ্যমে সম্পর্কে জড়িয়ে থাকা মানুষের মনের আসল কথা বের করে আনতে পারেন। সম্পর্কের বিষয়ে তাদের মনের নেতিবাচক চিন্তা ও কথা পরিষ্কার হয়।

টক থেরাপি: যারা সম্পর্কে জড়িয়ে খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন বা আবেগগত সমস্যায় ভুগছেন, তাদের জন্য এই থেরাপি দারুণ কাজের। এই সেশনে বিশেষজ্ঞ আপনাকে কিছু সময় দেবেন কথা বলার জন্য। মনে খুলে কথা বলা বা চিৎকার করা বা কান্নার সুযোগও রয়েছে। কিংবা শুধু চিন্তাও করতে পারেন। নিজের সমস্যাগুলোকে কাছ থেকে দেখার সুযোগ মেলে এখানে। এই থেরাপির মাধ্যমে আপনাকে মতামত প্রদানে উৎসাহ দেওয়া হয় তার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ রেখে। সিদ্ধান্তের কথাও জানাতে পারেন আপনি।

ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট মিমরাহ আনসারির মতে, অনেক দম্পতি ও প্রেমিক-প্রেমিকা আছেন যারা দুজনের সামনে অনেক কিছু খুলে বলতে লজ্জা ও অস্বস্তিবোধ করেন। অনেক সময় মনের কথা বলতে চান না তারা। কারণ এতে হয়তো অপর জন মনে আঘাত পাবেন। অনেক ক্ষেত্রে এ সমস্যার কারণে বিবাহিত জীবনটা প্রায় কথাশূন্য হয়ে পড়ে। যাদের মাঝে এ অবস্থা চলছে তাদের সমস্যা দূর করতে পারে টক থেরাপি।

একাধিকের জন্য উপকারী: সাধারণত টক থেরাপির সেশন সম্পন্ন হয়ে থেরাপিস্টের সঙ্গে একজনের মধ্যে। কিন্তু এক দল মানুষের মধ্যেও এ ঘটনা ঘটানো সম্ভব। এখানে সবাই এক সঙ্গে যার যার সমস্যা নিয়ে কথা বলতে পারেন। সবাই একযোগে যন্ত্রণার বের করে দিতে পারেন। এটা কোনো জাদু নয়। কিন্তু সমস্যা অনেকটা মিটে যায়।

উপকারিতা: টক থেরাপির উপকারিতার শেষ নেই। যেকোনো মানসিক চাপপূর্ণ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে পারেন টক থেরাপির মাধ্যমে। এখানে দেখে নিন এর কিছু উপকারের কথা।

১. যারা আবেগগত দিক থেকে নানা সমস্যায় আছেন কেবল তাদের জন্যই এই থেরাপি নয়। ডায়াবেটিস, হৃদরোগের মতো সমস্যাতেও টক থেরাপি বেশ কাজের। এই থেরাপি আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নেয়।

২. বয়স্কদের জন্য এই থেরাপি অনেক উপকার বয়ে আনে। বয়স্ক মানুষরা অনেক সময়ই একাকী বোধ করেন। এ সময় তাদের নানা শারীরিক ও মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। অর্থনৈতিক সমস্যাতেও থাকেন তারা। এ অবস্থায় টক থেরাপি তাদের বাজে সময়টা বদলে দিতে পারে।

৩. অতীতে কেউ নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হয়ে থাকলে টক থেরাপির মাধ্যমে সেই দুঃস্বপ্নের অবসান ঘটতে পারে। এসব অভিজ্ঞতা জীবনের ওপর বোঝা হয়ে থাকে। কিছু সময় থেরাপিস্টের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলতে পারলে সেই মানুষটি অনেক সুস্থ বোধ করবেন।

৪. সম্পর্ক বিষয়ক নানা জটিলতা থেকে বেরিয়ে আসার কথা আগেই বলা হয়েছে। এই থেরাপির মাধ্যমে অনেক জটিল সমস্যার সমাধান ঘটতে পারে। যেকোনো ঝামেলায় করণীয় প্রসঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে উঠে আসতে পারে।

৫. বিপদগ্রস্ত পরিবারকেও পরিত্রাণের পথ দেখাতে পারে। পারিবারিক ঝামেলার কোনো শেষ নেই। গোটা পরিবারই ব্যাপক পেরেশানিতে থাকতে পারে। তাদের উদ্ধারে টক থেরাপি একমাত্র অস্ত্র হতে পারে।

৬. ক্ষোভ মানুষকে নিয়ন্ত্রণহীন করে দেয়। অনেকে আছেন যাদের রাগ অনেক বেশি। তারা কোনভাবেই ক্ষোণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না। এর জন্য হয়তো জীবনে অনেক কিছুই হারিয়েছেন। টক থেরাপির মাধ্যমে ক্ষোভের ওপর নিয়ন্ত্রণ আনতে পারেন আপনি। এর পেছনের যন্ত্রণার কথা বেরিয়ে আসতে পারে টক থেরাপিতে। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

২১ ডিসেম্বর, ২০১৬ ১৬:৩৫:১৮