ইবলিস শব্দ উচ্চারণে কি সওয়াব পাওয়া যায়?
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
ডা. জাকির নায়েক
হযরত আদম আ. কে সৃষ্টির পর আল্লাহ তায়ালা ফেরেস্তাদেরকে তাকে সিজদাহ করতে বলেন। ফেরেস্তাদের সরদার ছিলেন ইবলিস। সব ফেরেস্তা আদম আ. কে সিজদাহ করলেও ইবলিস দাম্ভিকতা দেখায়। তার এই অহংকারের কারণে আল্লাহ তাকে বেহেস্ত থেকে বিতাড়িত করেন। মহাগ্রন্থ আল কোরানে আল্লাহ তায়ালা ইবলিসকে মানুষের প্রকাশ্য শত্রু বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

কোরান তিলাওয়াত করলে প্রতিটি বর্ণের জন্য সওয়াব পাওয়া যায়। ইবলিস একটি আরবি শব্দ। কিন্তু কেউ যদি ইবলিস শব্দটি উচ্চারণ করে তাহলে সে কোনো সওয়াব পাবে কি? ডা. জাকির নায়েকের ‘আল কোরান বুঝে পড়া উচিত’ শিরোনামে এক আলোচনায় প্রশ্নত্তোর পর্বে রিয়াজ নামে একজন এমন একটি প্রশ্ন করেন। তার প্রশ্ন ছিল এরকম- আমি রিয়াজ বলছি, আমার প্রশ্ন হচ্ছে কোরানের প্রতিটি সুরা তিলাওয়াতের জন্য আমরা সওয়াব পাই। এখন কোরানে তো ‘ইবলিস’ শব্দটি আছে। সারাদিন আমি যদি ‘ইবলিস ইবলিস’ করি তবে কি সওয়াব পাব?

ডা. জাকির নায়েক ওই প্রশ্নের যৌক্তিক উত্তর দেন। তিনি বলেন, তিরমিজি শরিফের ১০০৩ নম্বর হাদিসে এসেছে, কোরান তিলাওয়াত করলে প্রতিটি বর্ণের বিনিময়ে সওয়াব পাওয়া যায়। প্রশ্ন হচ্ছে- ‘ইবলিস ইবলিস’ জিকির করলে সওয়াব পাওয়া যাবে কি না? ভাই আমি আগেই বলেছি, কোরান বোধগম্যতার সঙ্গে তিলাওয়াত করতে হবে। আপনি যদি ‘ইবলিস’ শব্দটি বুঝে পড়েন যে, আমাদের শত্রু। সে আমাদের ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা করে। ইবলিসের ধোঁকা থেকে বাঁচতে আল্লাহর আদেশ মানতে হবে ইত্যাদি। তবে আপনি অবশ্যই সওয়াব পাবেন।

২২ আগস্ট, ২০১৫ ২৩:১১:০৬