আমি সব মন্ত্রীর ‘বাপ’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
কিছুদিন আগেই মন্ত্রী হওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন মধ্যপ্রদেশের বিএসপি বিধায়ক। কিন্তু এবার তিনি বললেন, আমার মন্ত্রী না হলেও চলবে। আমি তো সব মন্ত্রীর বাপ। মধ্যপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচনের পরে বিএসপি হয় কিং মেকার। তাদের সমর্থনেই কংগ্রেস সরকার গঠন করে। ‘আমি সব মন্ত্রীর বাপ’ বলে রমাবাই বোঝাতে চেয়েছেন, তাঁদের সমর্থনেই মন্ত্রিসভা টিকে আছে।

মধ্যপ্রদেশে ভোটের পরেই বার বার খবরের শিরোনামে এসেছেন রমাবাই। তিনি পাথারিয়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। ৭ জানুয়ারি তিনি মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের কাছে দাবি করেন, তাঁদের দলের বিধায়ক সঞ্জীব সিং কুশওয়াহাকে মন্ত্রী করতে হবে। তাঁকে করতে হবে প্রতিমন্ত্রী। ২৩ জানুয়ারি তিনি ফের বলেন, কমলনাথ কথা দিয়েছিলেন, বিএসপির বিধায়কদের মন্ত্রী করা হবে। তিনি যদি কথা না রাখেন, মধ্যপ্রদেশেও কর্ণাটকের মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে।

কর্ণাটকে কয়েক মাস আগে কংগ্রেসের সমর্থনে সরকার গঠন করে জেডি এস। কিন্তু সম্প্রতি কংগ্রেসের পাঁচ বিধায়ক ‘নিখোঁজ’ হয়ে যান। শোনা যায়, তাঁরা আছেন মুম্বইয়ের এক হোটেলে। বিজেপি নেতারা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। তাঁরা কয়েকজন বিধায়ককে ভাঙিয়ে সরকার ফেলে দিতে চান।

অন্যদিকে বিজেপিও ভয় পাচ্ছিল, তাদের দু’-একজন বিধায়ককে লোভ দেখিয়ে দলে টানতে পারে কংগ্রেস। রাজ্যের সব বিজেপি বিধায়ককে রাখা হয়েছিল হরিয়ানার এক রিসর্টে। রমাবাই কমল নাথকে বলতে চেয়েছিলেন, বিএসপির কয়েকজনকে মন্ত্রী না করলে মধ্যপ্রদেশেও কর্ণাটকের মতো অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হবে।

তিনি এদিন বলেন, তাঁকে মন্ত্রী না করলেও জনস্বার্থে কাজ করে যাবেন। তাঁর কথায়, আমাকে যদি মন্ত্রী করা হয়, তাহলে ভালো কাজ করব। যদি মন্ত্রী না করা হয়, তাহলেও কাজ করে যাব। আমি তো সব মন্ত্রীর বাপ। আমিই তো সরকার তৈরি করেছি।

গত বিধানসভা ভোটে মধ্যপ্রদেশে কোনও দল একক গরিষ্ঠতা পায়নি। ২৩০ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস পেয়েছিল ১১৪ টি আসন। বিজেপি পেয়েছিল ১০৯ টি। বিএসপি-র দু’জন, সমাজবাদী পার্টির একজন ও চার নির্দন বিধায়ককে নিয়ে কংগ্রেস সরকার গঠন করে। কিন্তু বিএসপি বা এসপি-র কাউকে মন্ত্রী করা হয়নি।

কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশে জোট গড়েছে বিএসপি ও এসপি। সেই জোটে তারা নেয়নি কংগ্রেসকে। বিএসপি প্রধান মায়াবতী একসময় কংগ্রেস ও বিজেপিকে তাঁদের শত্রু বলেছিলেন। কিন্তু মধ্যপ্রদেশে ভোটের পর বিজেপিকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে কংগ্রেসকে সমর্থন করেন।

 

২৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০৮:৩২:২৯