মানহানির মামলায় হার পর্নোস্টার স্টর্মির, স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন ট্রাম্প
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট


স্বস্তিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর বিরুদ্ধে করা মানহানির মামলায় হেরে গেলেন পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস। মামলা ও আইনজীবীর খরচ বাবদ তাঁকে ২ লাখ ৯৩ হাজার ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২ কোটি ১১ লক্ষ টাকা) দিতে হবে ট্রাম্পকে। আমেরিকার জেলা বিচারক জেমস ওটেরো স্টর্মি ও তাঁর আইনজীবীকে এই নির্দেশ দিয়েছেন। চলতি বছরের শুরুতে স্টর্মি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তিনি আরও একটি মামলা করেছেন। স্টর্মি প্রথম মামলায় অভিযোগ করেন, ২০০৬ সালে স্টর্মির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন ট্রাম্প।

প্রসঙ্গত, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের অভিযোগ এনে শোরগোল ফেলে দিয়েছিলেন পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস৷ দীর্ঘ অভিযোগ পালটা অভিযোগের পর ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মানহানির মামলাও দায়ের করেন তিনি৷ ২০০৬ সালে এক গল্ফ ইভেন্টে স্টর্মি ওরফে স্টেফানি ক্লিফোর্ডের সঙ্গে ট্রাম্পের প্রথম সাক্ষাৎ হয়। অভিযোগ, এরপরই তাঁর সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন ট্রাম্প। সেই সময় একটি ফিল্মে স্টর্মি ড্যানিয়েলস নামের চরিত্রে অভিনয় করছিলেন ক্লিফোর্ড। এর ঠিক একবছর পরেই মেলানিয়াকে বিয়ে করেন ট্রাম্প। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের তথ্যানুসারে, ট্রাম্পের সঙ্গে অবৈধ যৌন সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে ক্লিফোর্ড প্রথম মুখ খোলেন ২০১৬-তে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে ক্লিফোর্ডের সঙ্গে চুক্তিতে যায় ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী মিখায়েল কোহেন। মুখ বন্ধ রাখতে ১ লক্ষ ৩০ হাজার ডলার দেওয়া হয় ওই পর্নস্টারকে।

কয়েকদিন আগেই ট্রাম্পের সঙ্গে সম্পর্কের কথা তুলে ধরে ‘ফুল ডিসক্লোজার’ নামের একটি আত্মজীবনী প্রকাশ করেন স্টর্মি ড্যানিয়েলস৷ বইটির পাতায় ট্রাম্পের সঙ্গে তাঁর অভিসার ও মার্কিন রাষ্ট্রপতির মিথ্যাচারের কথা তুলে ধরেন ওই পর্ন তারকা৷ ‘দ্য গার্ডিয়ান’-এর মতে, বইটিতে স্টর্মি দাবি করেছেন, তিনি স্বপ্নেও ভাবেননি ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট পদে আগ্রহী৷ ২০০৬ সাল থেকেই একাধিকবার ট্রাম্পের সঙ্গে সঙ্গমে লিপ্ত হয়েছিলেন তিনি৷ কখনও বিলাসবহুল হোটেলে, কখনও ট্রাম্পের পেন্ট হাউসে৷ রাতের পর রাত কাটিয়েছেন তাঁরা৷ তবে প্রেসিডেন্ট পদের লড়াইয়ের কথা জানতেন না ড্যানিয়েলস৷ ট্রাম্প রিপাবলিকান দলের প্রার্থী হওয়ার আগেই বইটি লেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি৷ কিন্তু প্রেসিডেন্ট পদের দৌড়ে এগিয়ে যেতেই তাঁর মনে হয়েছিল এবার বিপদ আসছে৷ তাঁর আশঙ্কা সত্যি করেই যৌন সম্পর্ক নিয়ে মুখ বন্ধ রাখার জন্য তাঁকে টাকার টোপ দেওয়া হয়৷


১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২০:২৭:০০