নিজেকে ট্রাম্পের কন্যা বলে দাবি পাক তরুণীর
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর রাষ্ট্র আমেরিকা। বিশ্বের প্রায় সর্বত্রই ছেয়ে গিয়েছে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের বীজ। এরই মাঝে প্রকাশ্যে এল এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। পাকিস্তানে রয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বীর্য। পাক শহর লাহোরের বাসিন্দা আম্মারা মাজহার নামের এক তরুণীর দাবি তিনি নাকি ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে। কোনও পালিত বা অবৈধ মেয়ে নয়। একেবারে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিয়ে করা স্ত্রীর গর্ভজাত সন্তান হলেন ওই তরুণী। গত সপ্তাহে পাকিস্তানের একাধিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে এই খবর। কিন্তু আমেরিকার দম্পতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে পাকিস্তানে এল কীভাবে? ন্যাট বাহিনীর সঙ্গে ঘুরতে ঘুরতে চলে এসেছিলেন নাকি ডোনাল্ড ট্রাম্প ছেড়ে গিয়েছিলেন? মুসলিম বিদ্বেষী ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের মেয়েকে পাকিস্তানে পাঠাবেন! এখানেও রয়েছে বিষ্ময়।

এই সকল প্রশ্নের জবাবে ওই তরুণী বলেছেন যে সে আমেরিকাতেই জন্মেছিলেন। এবং ওই দেশেই কেটেছে তাঁর শৈশব। অপহরণ করে তাঁকে পাকিস্তানে নিয়ে আসা হয়। তারপর থেকে লাহোরে রয়েছেন তিনি। নিজের প্রতি সুবিচার পেতে এবং নিজের দেশ আমেরিকায় ফিরে যাওয়ার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন আম্মারা মাজহার। আবেদন করেছেন লাহোর হাই কোর্টে। প্রয়োজনে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টেও যাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিত্তশালী ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে অপহরণ হয়ে গেল! এতই সহজ? এই বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রথম পত্নী ইভানা ট্রাম্পের গর্ভজাত সন্তান বলে দাবি করা তরুণী বলেছেন, “আমার মা ইভানা আমার প্রতি খুব উদাসীন ছিলেন। এই নিয়ে বাবা আমার মা’কে বকাবকি করতেন। মায়ের উদাসীনতার কারণেই আমায় অপহরণ করতে সক্ষম হয় অপহরণকারীরা।”

আদালত আম্মারা মাজহারের দাবিকে গুরুত্ব দিয়েছে। মামলা গ্রহণ করেছে লাহোর হাই কোর্ট। তবে পাকিস্তানের এক চিকিৎসক ওই তরুণীর দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁর কথায়, “মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ার কারণেই ভুল বচকছেন ওই মহিলা। তাঁর মস্তিষ্ক পাকিস্তানের বাইরে নানা জায়গায় ঘুরছে। সেখানে অনেক ভাবনা-চিন্তা রয়েছে যেগুলির মধ্যে কোনও মিল নেই। তেমনই একটি মায়া হচ্ছে তাঁর বাবা ডোনাল্ড ট্রাম্প।”

এখনও পর্যন্ত তিনটি বিয়ে করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইভানা ট্রাম্প তাঁর প্রথম স্ত্রী। এই ইভানার সঙ্গেই সবথেকে বেশি সময় দাম্পত্য জীবন কাটিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ১৯৭৭ সালে বিয়ে হয় ডোনাল্ড এবং ইভানা ট্রাম্পের। ১৯৯২ সালে ভেঙে যায় দেড় দশকের দাম্পত্য। ১৯৯৩ সালে মারলা মাপেলস নামক এক মহিলাকে বিয়ে করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ১৯৯৯ সালে ভেঙে যায় ট্রাম্পের দ্বিতীয় বিয়ে। ২০০৫ সালে জনপ্রিয় মডেল মেলআনিয়া ট্রাম্পকে বিয়ে করেন ডোনাল্ড। এখনও পর্যন্ত অক্ষত রয়েছে দাম্পত্য।

 

১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:২০:৩৯