'উরু-দেখানো' ছবির দায়ে সবরিমালা মন্দিরে ঢুকতে চাওয়া নারী গ্রেফতার
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সবরিমালা মন্দির
ভারতে এক হিন্দু মন্দিরে নারীদের প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা ভাঙার চেষ্টা করেছিলেন যে নারী - তাকে তার 'উরু প্রদর্শন' সহ একাধিক অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। রেহানা ফাতিমা নামে ৩২ বছর বয়স্ক এই নারী একজন টেলিকম কর্মী, মডেল এবং নারী অধিকার কর্মী। তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ : ফেসবুকে তিনি তার যে ছবি পোস্ট করেছেন তাতে তার উরু দেখা যাচ্ছে, এবং ছবিটি 'খোলামেলা এবং আদিরসাত্মক'।

তিনি দক্ষিণ ভারতের কেরালার সবরিমালা মন্দিরে ঢোকার চেষ্টা করতে গেলে হিন্দু বিক্ষোভকারীরা তাকে থামিয়ে দেয়। কারণ, ঐতিহাসিকভাবেই সবরিমালা মন্দিরে ঋতুমতী মেয়েদের প্রবেশ নিষেধ, কারণ হিসেবে বলা হয় 'ওই সময়টায় তারা নোংরা থাকেন' এবং মন্দিরের বিগ্রহ যে প্রভু আয়াপ্পা - 'তিনি একজন অবিবাহিত পুরুষ।'

মিজ ফাতিমা একজন মুসলিম হলেও তিনি নিজেকে প্রভু আয়াপ্পার একজন উপাসক বলে দাবি করেন। অক্টোবর মাসে তিনি ফেসবুকে তার নিজের একটি ছবি পোস্ট করেন - যাতে তাকে কালো পোশাক পরিহিত এবং কপালে চন্দনের তিলক পরা অবস্থায় দেখা যাচ্ছে। তিনি পা এমনভাবে ভাঁজ করে বসেছেন - যা প্রভু আয়াপ্পার ভঙ্গীর অনুকরণ বলে মনে করা হয়। তার পরনের কালো পোশাকও অর্থপূর্ণ - কারণ প্রভু আয়াপ্পার পূজারীরা কালো পোশাক পরেন। এ ছবি পোস্ট করার পর ফেসবুকে মিজ ফাতিমার ব্যাপক নিন্দা শুরু হয়, অনেকে তাকে ধর্ষণের হুমকি দেয়। তিনি যে একজন মুসলিম - এ ব্যাপারটিও হিন্দু গোষ্ঠীগুলোকে ক্ষিপ্ত করে তোলে। পুলিশ তার অভিযোগে বলেছে, ফাতিমার ছবিটি প্রভু আয়াপ্পার উপাসকদের ধর্মীয় অনুভূতি আহত করেছে। ইতিমধ্যে টেলিকম কোম্পানির চাকরি থেকে ফাতিমাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। তার পরিবারের সদস্যরা জামিন চেয়ে আবেদন করেছেন।

ফাতিমার একজন বান্ধবী আরতি বিবিসির কাছে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছেন, ফাতিমা কারো ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করতে চাননি।'উরু-দেখানো' ছবির দায়ে সবরিমালা মন্দিরে ঢুকতে চাওয়া নারী গ্রেফতার
রেহানা ফাতিমার সেই ছবি

"বরং যে পুরুষরা খালি গায়ে তাদের উরু দেখিয়ে সবরিমালা মন্দিরে যাচ্ছে তাদের বেলা কি বলা হবে? সেটা দেখে কেন লোকে ক্ষুব্ধ হচ্ছে না?" - বলেন আরতি।

সবরিমালা মন্দিরে নারীদের প্রবেশ নিষেধ করে যে প্রথা আছে তার বিপক্ষে আদালত রায় দিলেও এখনো কোন ঋতুমতী নারী ওই মন্দিরে ঢুকতে পারেন নি। এর বিপক্ষে যেমন, পক্ষেও তেমনি অবস্থান নিয়েছেন কেরালার বহু লোক। পুরুষদের পাশাপাশি বহু নারীও এর পক্ষে বিক্ষোভ করেছেন। -বিবিসি বাংলা

 

০২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৪:২৬