সিরিয়ায় বিধ্বস্ত রুশ সামরিক বিমান: রাশিয়া কেন ইসরায়েলকে দায়ী করছে
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
রুশ সামরিক গোয়েন্দা বিমান আইএল-টুয়েন্টি।
রাশিয়া বলছে, সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ভুলবশত তাদের সামরিক বিমানটিকে ভূপাতিত করেছে। কিন্তু এই ঘটনার জন্যে তারা পুরোপুরি দায়ী করছে ইসরায়েলকে। বিমানটি বিধ্বস্ত হলে ১৫ জন রুশ সৈন্য নিহত হন। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, তাদের বিমানটিকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে ইসরায়েলী বিমান থেকে সিরিয়ায় বিভিন্ন স্থাপনা লক্ষ্য করে হামলা চালানো হচ্ছিল। মস্কো বলছে, এই আচরণ শত্রুতামূলক এবং এর মাধ্যমে উস্কানি দেওয়া হয়েছে। এর পরপরই রাশিয়ার পক্ষ থেকে ইসরায়েলকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। রাশিয়ার এই অভিযোগের জবাবে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে এখনও কোন মন্তব্য করা হয়নি।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, ইসরায়েলী যুদ্ধ বিমানগুলো ইচ্ছে করেই রাশিয়ার ইলিউশিন-আইএল-টুয়েন্টি বিমানটিকে বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছে। ইসরায়েলী বিমানগুলো যে সিরিয়ার টার্গেটের ওপর হামলা চালাচ্ছিল, সেটির ব্যাপারে তারা রুশদের আগাম সতর্কতা দিয়েছিল মাত্র এক মিনিট আগে, যখন আর কিছু করার সময় ছিল না। সোমবার সিরিয়ার স্থানীয় সময় রাত এগারোটায় রুশ বিমানটি রাডার থেকে অদৃশ্য হয়ে যায়।

ঠিক কী ঘটেছিল

ঘটনার বিস্তারিত তথ্য এখনো জানা যাচ্ছে না। রাশিয়া এই ঘটনার যে বিবরণ দিচ্ছে, সেটি এখনো যাচাই করে দেখা সম্ভব হয়নি। সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর লাটাকিয়ায় রাশিয়অর যে বিমান ঘাঁটি আছে, এই ইলিউশিন-আইএল-টুয়েন্টি বিমানটি সেখানে ফিরে যাচ্ছিল। সিরিয়ার উপকুল থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে বিমানটি হামলার মুখ পড়ে। রাশিয়ার তাস বার্তা সংস্থা বলছে, ইসরায়েলের এফ-সিক্সটিন যুদ্ধবিমান গুলো যখন লাটাকিয়ার ওপর হামলা চালাচ্ছিল তখন রাশিয়ার আইএল-টুয়েন্টি বিমানটি অদৃশ্য হয়ে যায়।

সিরিয়ার সরকারী গণমাধ্যমেও একই ধরণের খবর দেয়া হচ্ছে। সানা বার্তা সংস্থার খবর অনুযায়ী, খোলা সাগরের দিক থেকে লাটাকিয়া লক্ষ্য করে শত্রুপক্ষ ক্ষেপনাস্ত্র ছুঁড়ছিল। সিরিয়া এর পাল্টা জবাব দেয় বলেও এতে উল্লেখ করা হয়। ইসরায়েলী সামরিক বাহিনী অবশ্য এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। রাশিয়া বলছে, তাদের বিমানটিকে ইসরায়েল 'দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজের' মাধ্যমে বিপদে ফেলেছে। তারা হামলার মাত্র এক মিনিট আগে সেই তথ্য রুশদের জানিয়েছিল। কিন্তু রুশ গোয়েন্দা বিমানটিকে ক্ষেপনাস্ত্র হামলার পথ থেকে সরিয়ে নেয়ার জন্য সেই সময় যথেষ্ট ছিল না।

"ইসরায়েলী বিমানগুলো ইচ্ছে করে ঐ অঞ্চলে থাকা বিমানগুলোর জন্য একটি বিপদজনক পরিস্থিতি তৈরি করেছিল" বলে মন্তব্য করেছেন রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র। তিনি অভিযোগ করেন যে ইসরায়েলী পাইলটরা রাশিয়ার বিমানটিকে 'ঢাল' হিসেবে ব্যবহার করছিল। তারা রুশ বিমানটিকে সিরিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার 'লাইন অব ফায়ারে' ঠেলে দিয়েছিল। সিরিয়ার ছোঁড়া ক্ষেপনাস্ত্রের আঘাতেই শেষ পর্যন্ত রুশ বিমানটি ভুপাতিত হয় বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, "ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজের কারণে ১৫ জন রুশ সেনাকে প্রাণ হারাতে হলো।"

রাশিয়ার বলেছে, এর একটা যথাযথ জবাব তারা দেবে। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে ইসরায়েলী রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে।

 

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৮:৩৯