পরমাণু যুদ্ধের আবহে ‘চিরশত্রু’র দেশে পা রাখছেন উত্তর কোরিয়ার রাজকন্যা
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
চলতি সপ্তাহেই দক্ষিণ কোরিয়া সফরে আসবেন কিম ইয়ো জং। পিয়ংচ্যাংয়ে শীতকালীন ওলিম্পিক উপলক্ষে তাঁর এই সফর। আর তা নিয়েই গোটা দেশে তীব্র আলোড়ন তৈরি হয়েছে। কারণ, কিম কোনও সাধারণ মহিলা নন। উত্তর কোরিয়ার একনায়ক, শাসক কিম জং উনের বোন। উত্তর কোরিয়ার রাজকন্যা। ৩০ বছরের কিম শাসক দলের সর্বশক্তিমান পলিটবুরোর অতিরিক্ত সদস্যও বটে। কিম ইয়ো জং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের সঙ্গে দেখাও করতে পারেন। উল্লেখ্য, দুই কোরিয়া বিভাজনের পর এই প্রথম উত্তরের শাসক পরিবারের কোনও সদস্য দক্ষিণে যাচ্ছেন। সব মিলিয়ে তাঁর এই সফর নিয়ে কৌতূহল তুঙ্গে।

আগামী শুক্রবার উত্তর কোরিয়ার সুপ্রিম পিপলস অ্যাসেম্বলির প্রেসিডিয়ামের প্রধান কিম ইয়ং নামের নেতৃত্বে উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল দক্ষিণ কোরিয়ায় যাচ্ছেন। মন্ত্রক জানিয়েছে, সেই দলের অন্যতম সদস্য হিসাবে থাকছেন শাসক দলের উচ্চস্তরের নেত্রী কিম ইয়ো জং। ১৯৫৩ সালের কোরীয় যুদ্ধের পর ‘অসামরিক’ এলাকা দিয়ে দু’দেশের সীমান্ত নির্দিষ্ট করা রয়েছে। তার পর থেকেই দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা প্রবল। তার উপর পিয়ংইয়ংয়ের ক্রমাগত পরমাণু পরীক্ষানিরীক্ষা উত্তেজনা আরও তুঙ্গে নিয়ে গিয়েছে। একই সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার উপর একগুচ্ছ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে রাষ্ট্রসংঘ। আপাতত সেই উত্তেজনার আবহে কিছুটা হলেও শান্তির প্রলেপ দিয়েছে পিয়ংচ্যাং শীতকালীন ওলিম্পিক। সিওল ইউনিভার্সিটি অফ নর্থ কোরিয়ান স্টাডিজের অধ্যাপক ইয়াং মু জিনের মত, “এই প্রথম কিম পরিবারের কোনও সদস্য দক্ষিণে আসছেন। অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। ঐতিহাসিকও বটে।” এখনও পর্যন্ত যা খবর, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করে ভাইয়ের লেখা একটি চিঠি তাঁর হাতে তুলে দেবেন কিম ইয়ো জং। এখন প্রশ্ন উঠছে, ওলিম্পিককে কেন্দ্র করে কি ফের কাছাকাছি আসছে যুযুধান দুই দেশ? উত্তর দেবে সময়ই। -সংবাদ প্রতিদিন

 

০৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১২:০৫:০৭