ভারতীয় সেনার থেকে তথ্য পেতে মধুচক্রের ফাঁদ চীনের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া সুন্দরী। ইংরেজিতে দারুণ। মুখে মুখে কবিতা বলতে পারেন। সামনের পুরুষটিকে ভরিয়ে দিতে পারেন ভালবাসায়। এমনকি দিতে পারেন যৌনতৃপ্তিও। আর এই ফাঁদ পেতেই ভারতীয় সেনার থেকে তথ্য আদায়ের কৌশল নিয়েছে চীনের এজেন্সিগুলো। সম্প্রতি এই মর্মেই সতর্কবার্তা জারি করল দেশের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলি। সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ভারতীয় সেনা অফিসারদের একটি গোপন বার্তা পাঠিয়েছে আইবি। যেখানে ওই মধুচক্রের ফাঁদ সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে। সেনা অফিসারদের এই ধরনের যে কোনও প্রলোভন থেকে দূরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শত্রুশিবিরের এই কৌশল অবশ্য নতুন নয়।

এর আগে পাকিস্তানের এজেন্সিগুলোও একই কাজ করার চেষ্টা করেছে। উর্দু শায়রি বলা সুন্দরী পাকিস্তানি নারীদের দিয়ে ফাঁদ পেতে ধরার চেষ্টা করেছে ভারতীয় সেনা অফিসারদের। এবার সেই একই পথে হাঁটেছে চীন।

ডোকলাম নিয়ে এই মুহূর্তে ভারত-চীন সম্পর্ক তলানিতে। তার উপর চীনের সঙ্গে বড় চুক্তি বাতিল করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই পরিস্থিতিতে যেনতেনভাবে ভারতকে বশীভূত করতে মরিয়া চীন। আর তাই ডাক পড়েছে আধুনিক মেনকা, ঊর্বশিদের।  

কীভাবে পাতা হয় এই ফাঁদ? আইবি জানাচ্ছে, মূলত যে অফিসাররা চীনা সংস্থার মোবাইল ব্যবহার করছেন তাঁরাই টার্গেটে আছেন। তবে যে কেউই হিটলিস্টে থাকতে পারেন। যাঁর থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে তিনিই প্রথম নিশানা। ফেসবুক বা হোয়্যাটসঅ্যাপে এই নারীরা প্রথমে সেনা অফিসারদের সঙ্গে মিতালী পাতান। কথাবার্তা চলে। প্রশিক্ষিত এই নারীরা ছলনায় পারদর্শী। ফলে সহজেই পুরুষের মন জয় করে নিতে পারেন। দিনকয়েক কথোপকথনের পরই কোনও কফিশপ বা রেস্তোরাঁতে দেখা করার প্রস্তাব আসে। প্রথম দর্শনেই সামনের পুরুষটিকে বোল্ড করে দেন এঁরা। এরপর দেওয়া হয় যৌনতায় লিপ্ত হওয়ার প্রস্তাব। কোনও অফিসার যদি সে ফাঁদে পা দেন, তাহলেই এই নারীদের সাফল্য। সরাসরি যৌনতা ছাড়াও শারীরিকভাবে ঘনিষ্ঠ হতে থাকেন এঁরা। এজেন্সির বাকি লোক পুরো ঘটনাটির ভিডিও করে।  

এই তথাকথিত প্রেমপর্ব মেটার পরই শুরু হয় আসল খেলা। ঘনিষ্ঠতার ভিডিও পাঠিয়ে শুরু হয় ব্ল্যাকমেল। সেনা অফিসারদের থেকে গোপন তথ্য বের করে নিতেই চলে এই প্রক্রিয়া। এ ব্যাপারেই সেনা অফিসারদের সতর্ক করেছে আইবির গোয়েন্দারা। 

 এর আগেও এ কাজ করেছে পাকিস্তান। সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে ভারতকে বেকায়দায় ফেলতে এবার ব্যাপক হারে ফাঁদ পেতেছে চীন। আর তাই অফিসাররা যাতে কোনওরকম ভুল না করে বসেন, তার জন্যই জারি হয়েছে এই আগাম সতর্কবার্তা। সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

 

০৪ আগস্ট, ২০১৭ ১২:০৩:৩৫