ক্রনিক ব্যথা দূর করতে আশার আলো
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
যারা ক্রনিক ব্যথায় ভোগেন, ডাক্তারদের পক্ষে তাদের সমস্যা বোঝা খুবই কঠিন৷ গবেষকরা এমন ব্যথা চিহ্নিত করে তার চিকিৎসা খোঁজার ক্ষেত্রে অগ্রসর হচ্ছেন৷ সরাসরি ব্যথার উৎস ও বিকাশ পর্যবেক্ষণ করে তাঁরা অনেক জ্ঞান অর্জন করছেন৷ শরীরে ব্যথা জীবন দুর্বিষহ করে দুলতে পারে৷ অথচ তার উৎস অনেক সময়ে অজানা থেকে যায়, বিশেষ করে ক্রনিক বা দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার ক্ষেত্রে৷ এমন অবস্থায় বেশিরভাগ মানুষ হন্যে হয়ে এক ডাক্তার ছেড়ে অন্য ডাক্তারের কাছে ছোটেন৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কেউই সাহায্য করতে পারে না৷

শরীরে চোট পেলে সতর্কবাণী হিসেবে ব্যথা অনুভব করা অত্যন্ত জরুরি৷ কিন্তু ক্রনিক ব্যথার ক্ষেত্রে সেই প্রয়োজন থাকে না৷ সেই ব্যথা শরীরকে সুরক্ষা দেয় না, বরং ক্ষতি করে৷ এ যেন ত্রুটিপূর্ণ অ্যালার্ম ব্যবস্থার ভুল সংকেত৷

হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়েররোহিণী কুনার এই ‘ভুল’ ব্যথার উৎস খোঁজার চেষ্টা করছেন৷ আমাদের মস্তিষ্কে কোন প্রক্রিয়া কোনো ব্যথাকে স্থায়ী করে তোলে, তা অনেককাল ধরে অজানা ছিল৷ প্রো. কুনার বলেন, ‘‘কাঠামোগত পরিবর্তন না ক্রিয়াগত পরিবর্তন ব্যথার সঙ্গে জড়িত, তখন সেই প্রশ্ন উঠলো৷ অর্থাৎ কোনো স্নায়ু বা মস্তিষ্কের কোনো কোষ সক্রিয় হয়ে উঠেছে, না ব্যথার নতুন কোনো যাত্রাপথ বা স্নায়ুতন্ত্রের মধ্যে নতুন কোনো স্পন্দন দেখা যাচ্ছে?’’

কোষে পরিবর্তন ও মস্তিষ্কে নতুন স্নায়ুর সংযোগ ক্রনিক ব্যথার কারণ হতে পারে৷ হাতেনাতে তার প্রমাণ পেতে রোহিণী কুনার ও তাঁর টিমকে সবার আগে ব্যথার আবির্ভাব পর্যবেক্ষণ করতে হয়েছে৷ প্রফেসর রোহিণী কুনার বলেন, ‘‘আমরা এমন পদ্ধতির খোঁজ চালিয়েছি, যার সাহায্যে আমরা কোনো অক্ষত জীবের ব্যথার গতিপথ দেখতে পারি৷ অর্থাৎ ঠিক যেন জানালা দিয়ে মস্তিষ্কে উঁকি মেরে দেখতে পারি, কীভাবে স্নায়ুকোষগুলির মধ্যে আদানপ্রদান ধীরে ধীরে বদলে যাচ্ছে৷’’

এক মাল্টি-ফোটন মাইক্রোস্কোপের সাহায্যে গবেষকরা সরাসরি কোষের কার্যকলাপ পর্যবেক্ষণ করতে পেরেছেন৷ রোহিণী কুনার ও তাঁর সহকর্মীরা বেশ কয়েক মাস ধরে ক্রনিক ব্যথায় ভোগা ইঁদুরের মস্তিষ্ক পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ করেছেন৷ দেখা গেল, কাঠামোর সত্যি পরিবর্তন ঘটছে৷ নতুন সিন্যাপ্স তৈরি হচ্ছে, যা দুর্বল স্পন্দন পেলেও মস্তিষ্কে ব্যথার সংকেত পাঠিয়ে দিচ্ছে৷ এই অতি সংবেদনশীল স্নায়ুতন্ত্র ব্যথার বোধ দীর্ঘ সময়ের জন্য জীইয়ে রাখে৷ প্রো. কুনার বলেন, ‘‘যে স্পন্দন ব্যথা সৃষ্টি করে এবং যে সেটা করে না, ক্রনিক ব্যথার রোগীরা তার মধ্যে তফাত করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন৷ ফলে ত্বকে সাধারণ স্পর্শ পেলেই ব্যথা লাগতে পারে৷ যে কোনো স্টিমুলাসেই ব্যথা সৃষ্টি হতে পারে৷’’

স্নায়ুর এই পরিবর্তিত ট্র্যাক কি ক্রনিক ব্যথার চিকিৎসার চাবিকাঠি হতে পারে?

‘অপ্টোজেনেটিক্স’ নামের এক নতুন বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির সাহায্যে গবেষকরা প্রথমবার ব্যথার প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করতে পারছেন৷ আলোর প্রতি সংবেদনশীল প্রোটিন, যাকে পরিবর্তিত স্নায়ুর তন্তুর মধ্যে ব্যথার জন্য দায়ী বলে মনে করা হতো, সেটিকে আলো জ্বালিয়ে বা নিভিয়ে চালু বা বন্ধ করা সম্ভব৷ বিষয়টি আলোর সুইচের মতো৷

প্রো. রোহিণী কুনার ত্রুটিপূর্ণ ব্যথার উত্থান প্রতিরোধ করতে চান৷ ওষুধ বিশেষজ্ঞরা ক্রনিক ব্যথার চিকিৎসার জন্য সুনির্দিষ্ট ওষুধ তৈরির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন৷ ফলে ভবিষ্যতে অনেক রোগীকে ফলহীন চিকিৎসা ও কড়া ব্যথার ওষুধের উপর নির্ভর করতে হবে না বলে আশা করা হচ্ছে৷

০১ অক্টোবর, ২০১৭ ১০:৪৭:২১