আয়ুর সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে ফেলেছে মানুষ
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সবচে বেশি আয়ুর মানুষ নাম জ্যঁ কালমেঁ। ১৯৯৭ সালে মারা যান ১২২ বছর বয়সে।
এক জনমে মানুষ কতবার ফুঁ দিয়ে জন্মদিনের মোমবাতি নেভাতে পারে? সহজে বললে, মানুষ বড়জোর কত বছর বাঁচতে পারে? বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানবের জীবনকাল এরই মধ্যে তার সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে ফেলেছে।

সম্প্রতি নেচার সাময়িকীকে মার্কিন বিজ্ঞানীদের একটি গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে তারা মানুষের আয়ু সম্পর্কিত কয়েক দশকের তথ্য বিশ্লেষণ করে এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, মানুষ বড়জোর বাঁচতে পারে ১১৫ বছর। 

বিজ্ঞানীরা বলছেন, হ্যাঁ, গুটিকয়েক মানুষ হয়তো এ সীমার সামান্য কিছু বছর বেশি বেঁচে থাকতে পারেন। তবে এমন সৌভাগ্যবান মানুষদের খুঁজে পেতে হয়তো আমাদের পৃথিবীর মতো বেঁচে থাকার উপযোগী হাজারখানেক গ্রহ সন্ধান করতে হতে পারে। বিজ্ঞানীদের কেউ কেউ এ গবেষণা প্রবন্ধের প্রশংসা করেছেন, তবে অনেকে আবার একে হাস্যকর বলতেও ছাড়েননি।

ঊনবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকেই মানুষের আয়ু ক্রমাগত বেড়ে চলছে। ভ্যাকসিন, নিরাপদ সন্তান জন্মদান ও আরো অনেক রোগের চিকিৎসা ব্যবস্থায় উন্নতির কারণেই মানুষের আয়ু বেড়েছে। তবে আয়ু বেড়ে চলার এ ধারা কি অনন্তকাল ধরে চলবে? উত্তরে বিজ্ঞানীরা বলছেন, না।

বিজ্ঞানীদের এ দলটি মানব মৃত্যুহার ডাটাবেজ বিশ্লেষণের পাশাপাশি ফ্রান্স, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের সুপার-সেন্টেনেরিয়ানদের (১১০ বছরের বেশি বয়সী) তথ্য পর্যালোচনা করেছেন। সেখানে তারা দেখেছেন যে, সেন্টেনেরিয়ানদের আয়ু বাড়ার হার কমছে। সেখান থেকেই তারা সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, ১০৫ থেকে ১১০ বছরী ব্যক্তিদের আয়ু খুব বেশি আর বাড়ছে না। তার মানে দাঁড়াচ্ছে, মানুষের বেঁচে থাকার প্রাকৃতিক সীমা এরই মধ্যে ছুঁয়ে ফেলেছি আমরা। আর সেটা হতে পারে বড়জোর ১১৫ বছর।

গবেষকদের একজন আলবার্ট আইনস্টাইন কলেজ অব মেডিসিনের অধ্যাপক জ্যান ভিগ জানান, ‘ইতিহাসে প্রথমবারের মতো আমরা এটা দেখতে সমর্থ হয়েছি। আর তাতে মনে হচ্ছে, মানুষের আয়ু বা বেঁচে থাকার সীমা বড়জোর ১১৫ বছর। আর এটা অতিক্রম করা এককথায় প্রায় অসম্ভব। এর চেয়ে বেশি বয়সী কাউকে খুঁজে পেতে আমাদের হয়ত পৃথিবীর মতো আরো হাজারটা গ্রহ খুঁজতে হতে পারে!’

পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি বয়সী মানুষটির নাম জ্যঁ কালমেঁ। ১৯৯৭ সালে মারা যাওয়ার আগে কাগজে-কলমে তার বয়স ছিল ১২২ বছর। কালমেঁ আইফেল টাওয়ার নির্মাণের আগেই জন্মগ্রহণ করেছিলেন। ভিনসেন্ট ভ্যান গগের সঙ্গেও তার দেখা হয়েছিল।

সূত্র: বিবিসি, গার্ডিয়ান

০৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:৪৯:৪২