চীনের রুপালি ড্র্যাগন
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
দক্ষিণ চীনের হাংজৌ প্রদেশে প্রতিবছর সে এক অদ্ভুত প্রাকৃতিক দৃশ্য: কিয়ানতাং নদীতে আসে রুপালি ড্র্যাগন নামধারী বান, যা দেখতে জড়ো হন হাজার হাজার কৌতূহলী৷
ড্র্যাগন আসছে!
হেমন্তের প্রথম পূর্ণিমায় আসে রুপালি ড্র্যাগন৷ প্রথমে দেখা যায় দিগন্তে একটা রেখা, পরে সেটা বাড়তে থাকে৷ তারপর শোনা যায় মেঘগর্জনের মতো আওয়াজ! ঘণ্টায় ৪০ কিলোমিটার গতি নিয়ে মেলট্রেনের মতো আসতে থাকে কিয়ানতাং নদীর বান৷
বান দেখতে ভিড়
বান কত বড় বা উঁচু হবে, তা নির্ভর করে চাঁদের অবস্থিতি, বাতাস ও জলের তাপমাত্রার ওপর৷ বান ৯ মিটার অবধি উঁচু হতে পারে৷ বান দেখতে প্রতিবছর আসেন হাজার হাজার মানুষ৷
ভিজে একসা!
যারা বান দেখতে এসেছেন, তাঁদের ভিজতে হবে, কেননা বান আসে কুল ছাপিয়ে৷ শুধু পা ভেজালেই চলবে না, কাপড়চোপড় ভিজে একসা!
বান ডাকলে...
কোথায় নদী আর কোথায় কূল! মোটরসাইকেল, স্কুটার উল্টেপাল্টে, মানুষজনকে ভিজিয়ে আসে রুপালি ড্র্যাগন৷
ড্র্যাগনের কামড়
প্রতিবছর রুপালি ড্র্যাগনের ল্যাজ ঝাপটানোয় বেশ কিছু মানুষ আহত হন৷ ঢেউ-এর ঝাপটা যে কোথায়, কখন, কার উপর এসে পড়বে, বলা শক্ত৷ ২০১৩ সালের ছবি৷
ঢেউ যখন আছড়ে পড়ে
এমনকি পুলিশও রেলিং আঁকড়ে প্রাণ বাঁচাতে আকুল! এ বছর দুজুয়ান ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে বান খুব উঁচু ছিল৷
বান কিংবা বোর
ইংরেজিতে নদীর বানকে বলে বোর৷ জোয়ার-ভাঁটায় পানির উচ্চতা যত বেশি হয়, ত-তই জোরালো হয় নদীর বান৷ তবে কিয়ানতাং নদীর রুপলি ড্র্যাগনের মতো আর কিছু নেই, কেননা এখানে নদীবক্ষও অপেক্ষাকৃত সমতল৷ সব মিলিয়ে বান ডাকার সেরা জায়গা৷
০১ অক্টোবর, ২০১৫ ২৩:২১:২৩