এই বলি তারকাদের উৎপাতে ঘুমাতে পারেন না প্রতিবেশীরা!
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট


লেট নাইট পার্টি হোক বা ফিল্ম স্ক্রিনিং- এ সবের জন্য নিজেদের বাড়িকেই অনেক সময়ে বেছে নেন বলি সেলেবরা। আর তার জেরে তাদের প্রতিবেশীদের সারারাত বারান্দায় হেঁটে বেড়াতে হয়! আরও বেশ কিছু কারণেই সেলেবদের প্রতিবেশীদের অভিজ্ঞতা একটু তিতকুটে। জেনে নেওয়া যাক সেই সেলেবদের তালিকায় কারা রয়েছেন।

‘কি অ্যান্ড কা’ ছবিটির প্রাইভেট স্ক্রিনিং নিজের বাড়িতেই করেছিলেন কারিনা কাপূর। আর সেই স্ক্রিনিং-এ ছিলেন বহু তারকা। বহু রাত পর্যন্ত কারিনার বাড়িতে চলেছিল পার্টি। শেষমেষ অতিষ্ঠ হয়ে পুলিশকে ডেকে পার্টি থামাতে হয় কারিনার প্রতিবেশীদের।

প্রতীক নিরাজ পাসরানি নামের এক ব্যক্তি বাস করেন অভিনেতা আদিত্য পাঞ্চোলির ঠিক বাড়ির পাশেই। আদিত্যের এক বন্ধু এসে প্রতীকের বাড়ির সামনে নিজের গাড়িটি পার্ক করেন। তা নিয়ে আদিত্য পাঞ্চোলির বাড়ির ওয়াচম্যানকে প্রতীক নিরাজ অভিযোগ জানালে তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠেন আদিত্য। এমনকি প্রতীক নিরাজ থানাতেও আদিত্য পাঞ্চোলির বিরুদ্ধে নাকে ঘুসি মারার অভিযোগ করেছিলেন।

২০১৫ সালে প্রীতি জিন্টার ফ্ল্যাটের লোকজন তার উপর খুবই রেগে গিয়েছিলেন। প্রীতির বিরুদ্ধে অভিযোগ, বাচ্চাদের সরিয়ে দিয়ে ফ্ল্যাটের বাগানে একা হাঁটতেন প্রীতি। একাই ফ্ল্যাটের সুইমিং পুল ব্যবহার করতেন বলেও অভিযোগ। আর বাচ্চাদের সরাতেন প্রীতির বাউন্সার।

ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে ব্রেক আপের পর রাতভর পার্টি করতেন রণবীর কাপূর। আর সেই পার্টি চলত প্রায় ভোর চারটা পর্যন্ত। মিউজিকের শব্দ কমাতে প্রতিবেশীরা হাজার অনুরোধ করলেও কমত না আওয়াজ। অনেক সময়েই পুলিশ ডেকে পার্টি বন্ধ করতে হত রণবীরের পাড়ার লোকজনকে।

নিজের সুবিধার্থে ফ্ল্যাটের লিফ্ট বন্ধ করে রাখতেন রানি মুখোপাধ্যায়। রানির নামে এমনই অভিযোগ করেছিলেন তার কমপ্লেক্সের বাসিন্দারা। তবে রানির বিয়ের পর বোধ হয় স্বস্তিতেই আছেন ওই সোসাইটির লোকজন।

পানভেলে একটি ফার্ম হাউস রয়েছে সালমান খানের। বন্ধুদের সঙ্গে প্রায়শই সেই ফার্ম হাউসে পার্টি করতে যান বলিউডের ভাইজান। সালমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি আস্তে আস্তে অন্যদের জায়গাও জবর দখল করে নিচ্ছেন। ১৯৯৬ সালে ‘কক্করস’ নামক একটি সংস্থা সালমানের ওই ফার্ম হাউসের পাশেই জায়গা কেনে। ওই কোম্পানির তরফে সালমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছিল।

লোখন্ডওয়ালায় একটি ফ্ল্যাট ছিল ঐশ্বর্যার। অভিযোগ, সালমান এবং ঐশ্বর্যা দু’জনের বিরুদ্ধেই। এক দিন ঐশ্বর্যার ওই ফ্ল্যাটের দরজায় বহু বার কড়া নেড়েছিলেন সালমান। বহু রাত পর্যন্ত ডাকা সত্ত্বেও ঐশ্বর্যা দরজা খোলেননি। এ নিয়েই পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন ঐশ্বর্যার ফ্ল্যাটের লোকজন।

সমুদ্রের ধারে শাহিদ কাপূরের স্বপ্নের বাড়ি তৈরি করতে সময়ে লেগেছিল বেশ কিছু মাস। আর এই বাড়ি তৈরির শব্দে শাহিদের প্রতিবেশীদের খুবই অসুবিধা হত বলে পুলিশে অভিযোগ করেছিলেন তারা। এমনকি, যারা কাজ করছিলেন তারা মূত্রত্যাগ করতেন প্রতিবেশীদের বাড়ির সামনে! শেষমেষ শাহিদ কাপূরের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ করেন তার কয়েকজন প্রতিবেশী।

শক্তি কাপূরের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, কমপ্লেক্সের লিফ্টের দরজায় দাঁড়িয়ে মূত্রত্যাগ করছিলেন। এমনকি এ-ও অভিযোগ উঠেছিল যে, নগ্ন অবস্থায় নিজের বারান্দায় ঘোরাফেরা করতেন ওই অভিনেতা। তবে এ সব কথা গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন শক্তি। বলেছিলেন, প্রতিবেশীরা সবাই আমার বন্ধু।

অমিতাভ বচ্চনের বিরুদ্ধে আবার অভিযোগ করেছিলেন এক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। অভিযোগ, রাত পর্যন্ত বিগ বি’র অফিস তৈরির কাজ হচ্ছিল। আর সে আওয়াজে ঘুমাতে না পেরে অমিতাভকে সে কথা জানিয়েছিলেন ওই রাজনীতিবিদ। যদিও অমিতাভের সঙ্গে কথা বলার পরেই মিটে গিয়েছিল সে সমস্যা। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা



 


১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:১০:৫৬