ব্লকবাস্টার ছবি ‘হিম্মতওয়ালা’ কেন দুর্ভাগ্যের কারণ ছিল শ্রীদেবী কাছে?
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮৷ সেই কালো দিন যেদিন টিনসেল হারালো এক কিংবদন্তী অভিনেত্রীকে৷ দুই বোন হারালো তাঁদের মাকে৷ এই তারিখেই রাতে আকস্মিক মৃত্যু হয় শ্রীদেবীর৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল বলিউড ইন্ডাস্ট্রি৷ বহুদিন ধরে অনেকে এই দুর্ঘটনাকে মন থেকে মেনেই নিতে পারেনি৷ শ্রীদেবীকে নিয়ে আর কোনও লেটেস্ট আপডেট পায় না তাঁর ফ্যানেরা৷ এক-দুই বছর অন্তর অন্তর আর তাঁর ছবির আশায় দিন গোনে না ভক্তরা৷

কিন্তু ‘হাওয়া হাওয়াই গার্ল’কে নিয়ে কী খবরের অভাব হয়৷ টিনসেলকে তিনি যা দিয়ে গিয়েছেন, তাঁর সেই অবদান অবিস্মরণীয়৷ ‘শ্রীদেবী : দ্য ক্যুইন অফ হার্টস’ বইতে শ্রীদেবীর এক সাক্ষাৎকারের কথা উল্লেখিত রয়েছে৷ যেখানে কিছু এমন তথ্যের কথা সামনে এসেছে যা হয়তো খুব মানুষেই জানে৷ শ্রীদেবীর সাউথ ইন্ডাস্ট্রি মাধ্যমে অভিনয়ের হাতেখড়ি হলেও, বলিউডে তাঁর প্রায় প্রতিটি ছবি সুপারহিট৷ বলিপাড়ার ক্যুইন হয়ে উঠেছিলেন খুব কম সময়ের মধ্যেই৷

১৯৮৩ সালের ব্লকবাস্টার ছবি ‘হিম্মতওয়ালা’ ছবির পর জনপ্রিয়তার শীর্ষে ওঠেন তিনি৷ তার আগে বহু ছবি করেছিলেন বটে কিন্তু তাঁর সমসাময়িক অভিনেত্রী জয়া প্রদার জনপ্রিয়তার জন্য শ্রীদেবীর ভূমিকা টিনেসেল অসম্পূর্ণই থেকে যাচ্ছিল৷ ‘হিম্মতওয়ালা’ পুরোপুরি বদলে দিয়েছিল শ্রীদেবীর ভাগ্য৷ রাতারাতি ফেমাস হয়ে গিয়েছিলেন তিনি৷ কিন্তু এই ছবিকেই সেই পুরনো সাক্ষাৎকারে দুর্ভাগ্য বলেছিলেন৷ নিজের জীবনের সেরা ছবিকে কেন ব্যাড লাক বলেছিলেন সেই কারণও ব্যক্ত করেছিলেন৷

তাঁর কথায়, তিনি গ্ল্যামারাস অভিনেত্রী কোনওদিনই হতে চাননি৷ তিনি তাঁর অভিনয় ক্ষমতায় মুগ্ধ করতে চেয়েছিলেন দর্শকদের৷ “তামিল ছবিতে দর্শকার আমায় সাধারণভাবে অভিনয় করতে দেখতে চায়৷ কিন্তু হিন্দি ছবিতে গ্ল্যামারটাই বেশি প্রাধান্য পেয়ে এসেছে৷ আমি যখন ‘সদমা’ করলাম ছবিটা ফ্লপ হয়ে গেল৷ আর ‘হিম্মতওয়ালা’ সেরা হিট ছবি৷ আমার মনে হয়, প্রথম হিন্দি কামর্শিয়াল ছবি হিট হওয়াটা ব্যাড লাক৷”

 

০৪ নভেম্বর, ২০১৮ ১০:৫০:৩৭