‘ধর্ষণ বলে কিছু হয় না, পুরোটাই মহিলাদের উপর নির্ভর করে’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
 #MeToo মুভমেন্ট নিয়ে মন্তব্য করলেন শিল্পা শিন্ডে৷ বছর খানেক আগে তিনি দাবি করেছিলেন, ‘ভাবিজী ঘর পর হ্যঁয়’ ধারাবাহিকের প্রযোজক তাঁকে যৌন হেনস্থা করেছিলেন৷ সেই নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রি৷ তাঁর মতে তিনি যৌন হেনস্থার ভিক্টিম ছিলেন৷ তার সত্ত্বেও #MeToo মুভমেন্ট নিয়ে শিল্পার এই মন্তব্য ঝড় তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ তাঁর মতে ধর্ষণ বলে কিছু হয় না৷ এই ইন্ডাস্ট্রিতে ধর্ষণের কোনও সংজ্ঞা নেই৷ যা হয় সবটাই মিউচ্যুয়াল আন্ডারস্ট্যান্ডিংয়েই হয়৷

সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, “এসব বাজে কথা৷ সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার একমাত্র তোমারই রয়েছে৷ ব্যাপারটা একদমই সাধারণ৷ তোমার সঙ্গে যদি কিছু ঘটে তাহলে তখনই বলো৷ সেই মুহূর্তেই দোষীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও৷ পরে এই হেনস্থার কথা বলে কোনও লাভ নেই৷ হেনস্থার অনেক পরে তুমি যদি নিজের আওয়াজ তোলো তাহলে সেটা অকার্যকর৷ শুধু শুধু কন্ট্রোভার্সির সৃষ্টি হয়, সবাই গসিপ করে, সোশ্যাল মিডিয়ায় এক দুদিনের জন্য হাহাকার হয় তারপর সবাই ভুলে যায়৷”

তিনি বলতে থাকেন, “মানছি আমাদের ইন্ডাস্ট্রি খুব ভালো নয়, কিন্তু এতটাও খারাপ নয়৷ আর আমি বুঝতে পারছি এত মহিলারা নিজেদের বদনাম কেন করছে? সবাই খারাপ হয় নাকি? এটা হতে পারে? এরম হয় না কখনও৷ পুরোটাই তোমার উপর নির্ভর করছে৷ সামনের জন কীভাবে রিঅ্যাক্ট করছে আর তুমি সেটার উত্তর কীভাবে দিচ্ছ৷ এটা আসলে দেওয়া-নেওয়ার মতো৷ আর এই ধর্ষণ বলে কিছুই হয় না৷ তুমি যা চাইবে তোমার সঙ্গে সেটাই হবে৷ তুমি যদি হেনস্থা হতে না চাও তাহলে সেই জায়গা থেকে সরে দাঁড়াও৷”

শিল্পার এই মন্তব্যে ক্ষুব্ধ নেটিজেন৷ তাদের কথায়, শিল্পা যখন এক-দেড় বছর আগে নিজের যৌন হেনস্থা নিয়ে কথা বলেছিল, তখন তো তিনি একবারও বলেননি যে ধর্ষণ কিংবা জোরজবরদস্তি বলে কিছু হয় না৷ উনি নিজের এমন মন্তব্যে প্রত্যেকটি মহিলাকে অপমান করেছেন৷ নিজে একজন মহিলা হয়ে এটা বললেন কীকরে৷ শিল্পার ভক্তদের একাংশও একই প্রশ্ন করেছে শিল্পাকে৷ সূত্র: কলকাতা২৪

 

 

১৩ অক্টোবর, ২০১৮ ১৩:৪৪:৪৩