এত্ত অভিমান করে সব ছেড়ে চলেই গেলি?.. চয়নিকা চৌধুরী
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সত্যি সত্যি তুই চলেই গেলি বোন..তমকু..

এত্ত অভিমান করে সব ছেড়ে চলেই গেলি??

কিছু ভাষা নেই।কী লিখব!!

আসলেই আমি লোক দেখনো কিছু করতে পারিনা।

তাই দাঁতে দাঁত চেপে কষ্ট নিয়ে বসেছিলাম।এয়ারপোর্ট এ যাইনি।অনেক ইচ্ছা করছিল বোনকে বুকে জড়িয়ে ধরতে।জীবন খুব ছোট।যদি মরে যাই তবে তো এই ছোট্ট আশা আর পূরণ হবেনা। সত্যি তোর জন্য কোনদিন কিছু করতে পারিনি।ইচ্ছা করতো অনেক কিছু করতে। পারিনি। নিজের উপর ধিক্কার হচ্ছে আমার। মাফ করে দিস তমকু।

‌“সহজ কথা যায়না বলা সহজে”

আসলেই তাই।

সত্যি অনেক সময় খুব সহজ কথা সহজ করে বলা সবচেয়ে কঠিন হয়ে পড়ে।

যাকে নিয়ে লিখতে চাই,আজ তাকে নিয়ে কিছুই লেখার ক্ষমতা আমার নেই।

এই মানুষ টি দারুণ অভিমানী একজন মানুষ।

যে শুধু একটু ভালোবাসা চায়, চায় একটু যত্ন পেতে আর চায় অনেক ভালো ভালো কাজ করতে।

অভিনয় পাগল এই মানুষটির কথা অনেক অনেক পরিচালক জোর গলায় বলেন,“অনেক ভালো অভিনয় করেন আপনি।”

সবার মত আমিও তাদের দলে।

আমি আরেকটু বলতে চাই যে,“অনেক সেলিব্রেটিদের চেয়ে অনেকের চেয়ে তিনিই সবচেয়ে বেশি ভালো অভিনয় করেন।”

আমার দেখা চোখের ভিতর জল নিয়ে, তা টপটপ করে না ফেলে অভিনয় করতে দেখেছি মাত্র সাতজনকে। তারা হলেন, সুবর্ণা আপা, ডলি জহুর, জয়া আহসান, তমালিকা, অপি করিম, রিচি সোলায়মান এবং তিশা।

সত্যিই তাই। তিনি শক্তিমান অভিনয় শিল্পী।

কাজ পাগল এক মানুষ।

অনেক সিনসিয়ার।

দোষে গুণেই মানুষ।এই মানুষ টির বুক ভরা ভালোবাসা।পাশা পাশি অনেক জেদ এবং খারাপ রাগ।

এটা তার ছোটবেলা থেকেই। মঞ্চকে পাগলের মত ভালোবাসে। মঞ্চে অভিনয় করবে বলে ঘর ছাড়তে দ্বীধা করেনি।অনেক অভিনয় শিল্পীরা যখন ঈদের নাটকের পিছে ছোটে! তখনো এই অভিনয় শিল্পী সন্ধ্যার সময় মঞ্চের রিহার্সাল এর জন্য সব নাটক ছেড়ে দেয়।

সেই মানুষ টা আমার এক মাত্র ছোটবোন, তমালিকা।

তোর যখন জন্ম হয়েছিল। প্রিম্যাচুউরড বাচ্চা ছিল সে। মাত্র সাত মাসে ও জন্মেছিল। ২১ দিন বয়সে ওকে আমি কোলে নিতে গিয়ে হাত থেকে ফেলে দিয়েছিলাম। তখন আমিও ছোট। আমার বয়স তখন দেড় বছর।

আজ কত দূরে তুই।কী বলবো! চোখ ভেসে যায় জলে।

অনেক আদর আর ভালোবাসা।

অনেক সুস্থ থাক,ভালো থাক, এই প্রার্থনা।

আজ আমি বলতে চাই, হতে পারে আমাকে প্রথম প্লাটফরম দিয়েছেন মুজিবর রহমান। কিন্ত যে নাটক দিয়ে আমি পরিচালক হয়ে জন্ম নিয়েছি বিটিভিতে তা একদম তোর জন্য। নাটকটির নাম “এক জীবনে”। আমার বাসার বুয়ার গল্প নিয়ে আমার লেখা। যা অন এয়ার হয়েছিল জায়েদান রাব্বি ভাইর জন্য।তাই তোর কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ।

সব সময় মন ভালো রাখ,ভালো চিন্তা কর, ঠিক মত খাবি। ঘুমাবি। পজিটিভ ভাবনায় থাকিস.. দেখবি সব ঠিক হয়ে যাবে।

গভীর রাতের পরই আসে সুন্দর সকাল..

সূত্র: ফেসবুক স্ট্যাটাস

 

২৫ জুলাই, ২০১৮ ১১:৩৭:২১