‘ধর্ষণ করেছি’, স্বীকার করে আত্মসমর্পণ হার্ভির
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
অভিনেত্রী অথবা ফিল্মের সঙ্গে যুক্ত থাকা সাধারণ মহিলা কর্মী— হলিউডি প্রযোজক হার্ভি ওয়াইনস্টেইনের বিরুদ্ধে এতদিন যৌন অত্যাচারের অভিযোগ তুলছিলেন এমন অনেকেই। তা শুনে কখনও মুখপাত্রের মাধ্যমে সমস্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন, কখনও বা নিশ্চুপ থেকেছিলেন হার্ভি। এ বার সেই আড়ালেরও বাঁধ ভাঙল। নিজেই পুলিশের কাছে গিয়ে ধরা দিলেন হার্ভি।

সিএনএন-এর খবর অনুযায়ী, শুক্রবার সকালে নিজেই নিউ ইয়র্ক পুলিশের কাছে গিয়ে ধরা দেন হার্ভি। পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন, এক মহিলাকে ধর্ষণ করেছেন এবং অন্য এক মহিলাকে ওরাল সেক্সে বাধ্য করেছেন। আত্মসমর্পণ করার পর পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করেছে। সম্ভবত এ দিনই তাঁকে আদালতে তোলা হবে।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের খবর অনুযায়ী, লস অ্যাঞ্জেলস এবং লন্ডনে বিভিন্ন অভিযোগের ভিত্তিতে হার্ভের বিরুদ্ধে যৌন অপরাধের তদন্ত চলছে। গত বছর অক্টোবর নাগাদ হার্ভির বিরুদ্ধে প্রথম প্রকাশ্যে অভিযোগ করেন হলি অভিনেত্রী অ্যাঞ্জোলিনা জোলি এবং গেনিথ পাল্টরো। বিবিসিকে পাঠানো ইমেলে জোলি বলেছিলেন, ‘কেরিয়ারের শুরুতে হার্ভির সঙ্গে একটা খারাপ অভিজ্ঞতা রয়েছে আমার। তার ফলে ওঁর সঙ্গে আর কখনও কাজ করিনি। এমনকী এ ধরনের আচরণ অন্য কেউ করলেও তাঁদের সঙ্গে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যে কোনও ক্ষেত্রেই মহিলাদের সঙ্গে এ ধরনের আচরণ মেনে নেওয়া যায় না।’

অন্য দিকে গেনিথ জানিয়েছিলেন, ‘এমা’ ছবির লিড রোলে তাঁকে কাস্ট করেছিলেন হার্ভি। কিন্তু সই করার পর তাঁকে আলাদা করে হোটেলে ডেকেছিলেন। সেখানেই হার্ভি তাঁকে যৌন হেনস্থা করেছিলেন বলে অভিযোগ করেন গেনিথ।

দিন কয়েক আগেও কানের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে ইতালীয় অভিনেত্রী-পরিচালক, ৪৩ বছর বয়সি আসিয়া আর্জেন্তো বলেন, ‘‘১৯৯৭ সালে এই কান উৎসব চলাকালীনই আমাকে ধর্ষণ করেছিল ওয়াইনস্টেইন। আমার তখন একুশ বছর বয়স।’’ কান কর্তৃপক্ষের দিকেও আঙুল তুলে তিনি দাবি করেছিলেন, এত বছর ধরে অনেকেই ওয়াইনস্টেইনের স্বরূপ জানতেন। কিন্তু কেউ কিছুই বলতেন না।

‘দ্য নিউ ইয়র্কার’-এর এক নিবন্ধে ওয়াইনস্টেইনের বিরুদ্ধে যখন প্রথম ধর্ষণের অভিযোগ তোলেন এক গুচ্ছ নায়িকা, তখন সেই তালিকায় ছিলেন আসিয়া-ও। সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন ওয়াইনস্টেইনের আইনজীবী। তবে ঘটনার কথা অস্বীকার করা হয়নি। একটি বিবৃতিতে ওয়াইনস্টেইনের তরফে জানানো হয়েছিল, সে বারের সেই যৌন সম্পর্ক দু’পক্ষের সম্মতিতেই হয়েছিল। ধর্ষণ ছিল না। যা মানেননি আসিয়া। তিনি আরও দাবি করেছিলেন, ২০০০ সালে তাঁর পরিচালিত ‘স্কারলেট ডিভা’ ছবিটিতে যে ধর্ষণের দৃশ্য রয়েছে, তা তাঁর নিজের অভিজ্ঞতার কথা মাথায় রেখেই। এ ধরনের অভিযোগ সামনে আসার পর অস্কার বোর্ড থেকেও ছেঁটে ফেলা হয়েছে হার্ভিকে।

হলিউডে এতদিন প্রশ্নাতীত আধিপত্য ছিল হার্ভের। ৬৫ বছরের এই প্রযোজক বহু বাণিজ্য সফল ছবির নির্মাতা। গেনিথ, অ্যাঞ্জোলিনা, আসিয়া— হার্ভির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা মহিলার সংখ্যা অগুণতি। যদিও হার্ভি নিজে মাত্র দু’টি ঘটনার কথা উল্লেখ করেছেন। গোটা ঘটনায় তুমুল আলোড়ন শুরু হয়েছে মার্কিন মুলুকে। যদিও বিষয়টির সহজ নিষ্পত্তি হবে না বলেই মনে করছে সিনে মহলের একটা বড় অংশ।

 

২৫ মে, ২০১৮ ২৩:৪৯:৫২