অবসাদের গ্রাসে কিশোরী জায়রা, ভেবেছিলেন আত্মহত্যার কথাও
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
অভিনেত্রী জায়রা ওয়াসিম
মহামারির নাম ডিপ্রেশন। অবসাদের মড়ক থেকে কি অল্পবয়সিদেরও রেহাই নেই? এ প্রশ্ন জাগিয়ে দিলেন কিশোরী অভিনেত্রী জায়রা ওয়াসিম। সম্প্রতি দীর্ঘ এক পোস্টে নিজের অবসাদগ্রস্ততার কথা জানিয়েছেন তিনি।

জায়রার বয়স মোটে ১৭। এর মধ্যেই বিস্তর খ্যাতি পেয়েছেন। ‘দঙ্গল’ ছবিতেই প্রথম পরিচিতি পান। তারপর সিক্রেট সুপারস্টার ছবিতেও দুর্দান্ত কাজ করেছেন। এর মধ্যে পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কারও। জড়িয়েছেন বিতর্কেও। তাঁকে কাশ্মীরের মুখ হিসেবে তুলে ধরেছিল মুফতি সরকার। তা নিয়ে বিস্তর অপমান সহ্য করতে হয়েছিল। এদিকে বিমানে শ্লীলতাহানিরও শিকার হতে হয়েছিল কিশোরী অভিনেত্রীকে। তবে এর থেকেও ভয়াবহ বোধহয় ছিল তাঁর অবসাদের জীবন। জায়রা জানাচ্ছেন, এক আধদিন নয়, দীর্ঘ চার বছর ধরে অবসাদের থাবায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। অবাক হয়েছিলেন ডাক্তারাও। এই বয়সে এত অবসাদ কেন, ভেবে তাজ্জব হয়েছিলেন তাঁরাও। অনেকেই তাঁকে বলেছেন, এটা জীবনের একটা পর্ব মাত্র। কিন্তু জায়রা বলছেন, এ এমন একটা পর্ব যে জীবনে আর তিনি ফিরে যেতে চান না। কী না হয়েছে তখন তাঁর সঙ্গে? ফাঁকা ফাঁকা লাগা থেকে হ্যালুসিনেশন, আতঙ্ক, সারা শরীরে যন্ত্রণা, অস্থিরতা, উদ্বেগ ছিঁড়েখুঁড়ে খেত তাঁকে। একটা সময় অবসাদ কাটাতে দিনে পাঁচটা করে অবসাদ কাটানোর ট্যাবলেট খেতে হত তাঁকে। এমনকী একটা সময় দীর্ঘদিন ধরে আত্মহননের কথাও ভেবেছিলেন তিনি।

এর আগে অবসাদের কথা খোলাখুলি স্বীকার করেছিলেন অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন। পরে একে একে আরও অনেকে মুখ খুলেছেন। এই সময়ের এ যে গোপন অসুখ, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। জীবন যত জটিল হচ্ছে, তত অবসাদ এসে গ্রাস করছে। তবে জায়রার পোস্টটি যেন অশনিসংকেত। বারো-তেরো বছরের কিশোরীও কীভাবে এমন চরম অবসাদে ডুবে যাচ্ছে, সে প্রশ্ন ভাবাচ্ছে অনেককেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় এ নিয়ে আলোচনাও চলছে। জায়রা প্রতিনিধি স্বরূপ। দেশের অল্পবয়সিরাও তাই যে এ রোগ থেকে মুক্ত নয়, তা একরকম স্পষ্টই হল। সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

 

১১ মে, ২০১৮ ২৩:০৮:২২