আমার বাবা জনগণের কাছের মানুষ: আগুন
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
সঙ্গীতশিল্পী আগুন
ক'দিন ধরেই নাট্যজন ও মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফের এক বক্তব্যকে কেন্দ্র করে বিতর্ক চলে আসছে। সম্প্রতি নিউইয়র্কে সংস্কৃতিকর্মীদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা, সঙ্গীত পরিচালক ও অভিনেতা খান আতাউর রহমানকে ‘রাজাকার’ বলে দাবি করেছিলেন এ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। এছাড়াও ‘আবার তোরা মানুষ হ’ ছবিটি নিয়েও মন্তব্য করেন তিনি। এরপরেই শুরু হয় বিতর্ক।

এই ঘটনায় খান আতাউর রহমানের পরিবারের মন্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হয় তার ছেলে সঙ্গীতশিল্পী আগুনের কাছে। তিনি বলেন, ‘বিশিষ্ট নাট্য ব্যক্তিত্ব এবং আমার অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু সাহেব আমার বাবা সম্বন্ধে কী যেন বলেছেন, নিউ ইয়র্কের কোনো একটি অনুষ্ঠানে। আমি মনে প্রাণে চাইব যে সেই ভিডিও ক্লিপটি যেন ভার্চুয়াল মিডিয়ার মাধ্যমে সারা পৃথিবীর বাংলা ভাষাভাষীর কাছে পৌঁছে যায়। যেহেতু আমার বাবা জনগণের কাছের মানুষ। তাই তাদের প্রতিক্রিয়া জানার পর প্রয়োজনে আমি প্রেস কনফারেন্স করব। অবশ্যই সাথে থাকবে ভার্চুয়াল মিডিয়া। আমার কাছে সদুত্তর আছে। সবশেষে বাচ্চু সাহেবের প্রতি রইল আমার প্রাণঢালা অভিনন্দন’।

উল্লেখ্য যুক্তরাষ্ট্রের ওই অনুষ্ঠানে প্রয়াত চিত্র পরিচালক ও অভিনেতা খান আতাউর রহমানকে ‘রাজাকার’ মন্তব্য করে মুক্তিযোদ্ধা ও নাট্যজন নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু বলেছেন ‘আবার তোরা মানুষ হ’– এটাতো নেগেটিভ ছবি। মুক্তিযোদ্ধাদের বলছে আবার তোরা মানুষ হ। আরে তুই মানুষ হ’।

খান আতাউর রহমান চলচ্চিত্র পাড়ায় খান আতা নামে বহুল পরিচিত,  তিনি ছিলেন একাধারে চলচ্চিত্র অভিনেতা, গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক, সঙ্গীত শিল্পী, চলচ্চিত্র নির্মাতা, চিত্রনাট্যকার, কাহিনীকার, এবং প্রযোজক।‘অনেক দিনের চেনা’ চলচ্চিত্র দিয়ে তিনি পরিচালনায় পা রাখেন। ‘নবাব সিরাজউদ্দৌল্লা’ (১৯৬৭) ‘এবং জীবন থেকে নেয়া’(১৯৭০) চলচ্চিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করে তিনি পরিচিতি লাভ করেন। ‘সুজন সখী’ (১৯৭৫) চলচ্চিত্রের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার হিসেবে ১ম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। পরে ‘এখনো অনেক রাত’ (১৯৯৭) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক ও শ্রেষ্ঠ গীতিকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন।

১৭ অক্টোবর, ২০১৭ ১২:৪৪:৫৬