বাণিজ্য মেলা : দ্বিতীয় দিনেও শেষ হয়নি স্টল-প্যাভিলিয়ন নির্মাণ
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট


মাসব্যাপি ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা দ্বিতীয় দিনে পা দিলেও, অনেক স্টল ও প্যাভিলিয়নের নির্মাণকাজ এখনো শেষ হয়নি। দর্শনার্থীদের ভিড় জমে ওঠতেও আরো কিছুদিন সময় লাগবে বলে জানালেন বিক্রেতারা। মেলায় স্টল ও প্যাভিলিয়ন ছাড়াও রয়েছে বাগান, ইকোপার্ক, শিশুপার্ক ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রসহ নানা আয়োজন।  ২৪ তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার উদ্বোধন হলো বুধবার। মেলার দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার সকালে মেলায় গিয়ে দেখা যায়,  এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি মেলার প্রস্তুতি। একদিকে চলছে মেলা, অন্যদিকে এগিয়ে চলেছে স্টল-প্যাভিলিয়ন নির্মাণের কাজ।

দেশের বিভিন্ন কারাগারে বিভিন্ন সময় কারাবন্দিদের তৈরি পণ্যের পসরা নিয়ে বাণিজ্য মেলায় বসেছে বাংলাদেশ কারাপণ্য স্টল। বিভিন্ন কারাগার থেকে স্টলে ইতোমধ্যে পণ্য আসতে শুরু করেছে। তবে মেলা ঘুরে দেখা যায়, স্টল নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় সেগুলো দর্শনার্থীদের জন্য প্রর্দশন করা হচ্ছে না। সেখানে কর্মরতরা জানান, পুরোপুরি নির্মাণ কাজ শেষ হতে আরও দুই-একদিন লাগবে।

মেলার দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার সকালে মেলায় গিয়ে দেখা যায়, কারাপণ্য স্টলের মতো মেলার অনেক স্টল, প্যাভিলিয়ন ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি। সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের স্টল, প্যাভিলিয়নও এক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে।

কারাপণ্যের পাশেই বাংলাদেশ পর্যটন বোর্ডের স্টল নির্মাণের কাজ চলছিল। সেখানে কর্মরতরা জানান, স্টলের কাঠামোই এখন পর্যন্ত তৈরি হয়নি। তারপর স্টলে পুকুর তৈরি, সাজসজ্জাসহ অনেক কাজ রয়ে গেছে। পুরো কাজ শেষ করতে এখনও ৫ থেকে ৬ দিন লেগে যেতে পারে। তবে সরকারের আরেক প্রতিষ্ঠান বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টারের কাজ শেষ হয়েছে। সেখানে দর্শনার্থীদের ঘুরতে ও পণ্য কিনতে দেখা যায়।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, ছোট আকারের স্টলগুলোর বড় একটা অংশেরই নির্মাণকাজ পুরোপুরি শেষ হয়নি। তবে বড় স্টল ও প্যাভিলিয়নগুলোর বড় অংশেরই নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে, দর্শনার্থীরা ঘুরে দেখছে ও পছন্দের পণ্য কিনছে।

এ বছর মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীদের জন্য বিশ্রামের ব্যবস্থা রাখছে মেলা কর্তৃপক্ষ। তবে বিশ্রাম নেয়ার জন্য বেঞ্চ তৈরির কাজও শেষ হয়নি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর আয়োজনে মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা ৯ জানুয়ারি শুরু হয়। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ মেলার উদ্বোধন করবেন। শেষ হবে ৮ ফেব্রয়ারি। প্রতিদিন সকাল ১০টায় শুরু হয়ে মেলা চলবে রাত ১০টা পর্যন্ত। প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ৩০ টাকা ও অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রথমবারের মতো এবার অনলাইনে মেলার টিকিট পাওয়া যাবে।

প্রতি বছরের মতো এবারও নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরতে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন ও ডিজিটাল লে-আউট বসানো হয়েছে। এছাড়া, ডিজিটাল টাচ স্ক্রিনের মাধ্যমে স্টল ও প্যাভিলিয়ন চেনার ব্যবস্থাও রয়েছে। মেলায় প্যাভিলিয়ন, মিনি-প্যাভিলিয়ন, রেস্তোরাঁ ও স্টলের মোট সংখ্যা ৬০৫টি। এর মধ্যে রয়েছে প্যাভিলিয়নের ১১০টি, মিনি-প্যাভিলিয়ন ৮৩টি ও রেস্তোরাঁসহ স্টলের সংখ্যা ৪১২টি।









 


১০ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৯:৫৩:০৬