বাজেট বাস্তবায়নে ঝুঁকি নেই : অর্থমন্ত্রী
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত
আগামী অর্থ বছরের বাজেট বাস্তবায়নের কোন ঝুঁকি আছে বলে মনে করেন না অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। আজ বৃহস্পতিবার সকালে দশম জাতীয় সংসদের একাদশতম অধিবেশনে মো. গোলাম রাব্বানীর টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমান অর্থবছরে বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা। যা এযাবৎ কালের মধ্যে সর্ববৃহৎ। বাজেটের আকার, রাজস্ব আয়, ঘাটতি ও অর্থায়ন এমনভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে যাতে সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা আরো সুদৃঢ় হয়। আমাদের সরকার রাজস্ব ও  মুদ্রানীতির সমন্বয়ের মাধ্যমে মুল্যস্ফীতি, বিনিময় ও সুদের হার অনুকূলে রাখতে সক্ষম হয়েছে। মধ্যমেয়াদেও এ ধারা অব্যাহত রাখার আশা রাখি। একারণে, আগামী অর্থ বছরের বাজেট বাস্তবায়নের কোন ঝুঁকি আছে বলে আমি মনে করি না বলে দাবি করেন তিনি। উপরন্ত, বাজেট বাস্তবায়নকে নির্বিঘ্ন ও আরো গতিশীল করতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেবে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী।

তিনি জানান, আর্থিক ব্যবস্থাপনা আর্ন্তজাতিক মানদণ্ডে উন্নীত করার লক্ষ্যে সরকার একটি পথ নকশা তৈরী করছে। ভবিষ্যতে সংস্কার কার্যক্রম সুপরিকল্পিতভাবে বাস্তবায়নে শীঘ্রই ‘সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা সংস্কার কৌশল ২০১৬-২০২১’ চূড়ান্ত করা হবে।

অর্থমন্ত্রী ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা তুলে ধরে আরও জানান, আগামী অর্থ বছরে মোট রাজস্ব প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪২ হাজার ৭৫২কোটি টাকা যা জিডিপি’র ১২ দশমিক ৪ শতাংশ। তার মধ্যে করসমূহ হতে প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২,১০,৪০২ কোটি টাকা, যার মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিয়ন্ত্রিত করসমূহ হলো ২,০৩,১৫২ কোটি টাকা এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বহির্ভূত করসমূহ হলো ৭,২৫০ কোটি টাকা। কর ব্যতীত প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩২,৩৫০ কোটি টাকা।

সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট প্রকল্পসমূহ যথাসময়ে বাস্তবায়নের জন্য ইআরডি’র মনিটরিং ব্যবস্থাপনা চালু আছে। বাস্তবায়নকারী মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি কার্যবিধিমালা (রুলস অফ বিজনেস-১৯৯৬ এর তফসিল-১ এ বর্ণিত কার্যবন্টন অনুযায়ী অর্থনৈতিক বিভাগ বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট প্রকল্পসমূহ মনিটরিং করে থাকে।

২৩ জুন, ২০১৬ ১৪:৫৯:৩২