বিসিএস দেয়ার ইচ্ছাই ‘কাল হলো’ চিকিৎসক শান্তার
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
অ+ অ-প্রিন্ট


সিলেটের পাঠানটুলার পনিটুলা এলাকা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা ডা. শান্তাকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে নিহতের পরিবার অভিযোগ করেছেন। যদিও শ্বশুরবাড়ির লোকজন লোকজন এটিকে আত্মহত্যা দাবি করেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শান্তার স্বামী দিবাকর দেব কল্লোল পেশায় স্থপতি। তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগে কর্মরত ছিলেন। শান্তা যখন মেডিকেলে পড়াকালে তার সাথে পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে প্রেম। পরিবারও মেনে নিয়েছিলেন তাদের সম্পর্ক। ধুমধাম করে বিয়ে দেন পরিবারের বড় মেয়ের। কিন্তু শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পর থেকেই শান্তার উপরে শুরু হয় নির্যাতন।

শান্তা সিলেটের বেসরকারি পার্ক ভিউ মেডিকেল কলেজের প্রভাষক ছিলেন। তিনি চেয়েছিলেন বিসিএস দিতে। প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন আগামী বিসিএস পরীক্ষার অংশগ্রহণের। কোচিং এ ভর্তি হয়েছিলেন ৬ মাস আগে। কিন্তু শ্বশুরবাড়ির লোকজন চাচ্ছিলেন না শান্তা বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিক। এতে পারিবারিক কলহ বেড়ে গেলে শান্তা কোচিং যাওয়া বন্ধ করে দেন।

শান্তার ছোট ভাই পলাশ তালুকদার বলেন, ছয় বছর আগে আমার বোনের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই নানা অজুহাতে শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমার বোনকে নির্যাতন করে আসছে। এ নিয়ে পারিবারিক বিচার সালিসও হয়।

তিনি আরও বলেন, আমার বোন চেয়েছিল বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিতে। সে জন্য সে কোচিং সেন্টারে ভর্তি হয়েছিল কিন্তু তার দেবর, শ্বশুর, শাশুড়ি তাকে কোচিং যেতে বাধা দেয়, অত্যাচার বাড়িয়ে দেয়।। পরে একপর্যায়ে ঘরের শান্তির জন্য কোচিং বন্ধ করে দেয় সে। কিন্তু তার পরও অত্যাচার থামেনি তাদের। আমাকে মাঝেমধ্যে ফোন করে এসব জানাতো সে। আমার বোন আত্মহত্যা করতে পারে না, সেময় এমন মেয়ে না। তাকে হত্যা করা হয়েছে। বিসিএস দেয়ার ইচ্ছা কাল হলো তার। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

শান্তার বাবা ঋষিকেশ তালুকদার বলেন, শ্বশুরবাড়ির লোকজন আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করছে, আমার মেয়ে আত্মহত্যা করার মতো মেয়ে না। তাকে হত্যা করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই শ্বশুরবাড়ির লোকজন আমার মেয়েকে নির্যাতন করত বলে অভিযোগ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, রোববার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে সিলেট নগরের পশ্চিম পাঠাটুলা এলাকার পল্লবী সি ব্লকের ২৫ নাম্বার বাসা থেকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় ডা. প্রিয়াঙ্কা তালুকদার শান্তার (২৯) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় দুপুরে তার স্বামী স্থপতি দিবাকর দেব কল্লোল, শ্বশুর সুভাষ চন্দ্র দেব ও শাশুড়ি রত্না রানী দেবকে আটক করে পুলিশ। রোববার রাতেই সুনামগঞ্জের ধোপাখালী শ্মশান ঘাটে ডা. শান্তার শেষকৃত্য করা হয়েছে।









 


১৩ মে, ২০১৯ ১৯:৪৬:৩৮