ভাইকে অপহরণ করল বোনের ‘কথিত প্রেমিক’
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
অ+ অ-প্রিন্ট
টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলা থেকে অপহৃত শিশু ওয়াসিকে নেত্রাকোনার বাহাট্টা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দুই অপহরণকারীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইলের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আহাদুজ্জামান মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অপহৃত শিশু আল ওয়াসির চাচাতো বোনের কথিত প্রেমিক নাহিদ (২০) গত ৩ ফেব্রুয়ারি রোববার দুপুর ১টার দিকে তাকে অপহরণ করে। ওইদিনই আল ওয়াসিকে না পেয়ে তার মা গোপালপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। অপহরণের দিন সন্ধ্যায় অপহরণকারীরা শিশুর মাকে ফোন করে ৪০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। পরবর্তীতে অনেক মিনতির পর অপহরণকারীরা ৫ লাখ টাকায় শিশু ওয়াসিকে মুক্তি দিতে রাজি হয়।

অপহৃত শিশুর চাচার মাধ্যমে টাকা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করলে অপহরণকারীরা পুলিশের গতিবিধি লক্ষ্য করে স্থান পরিবর্তন করে। পুলিশের তৎপরতা টের পেয়ে অপহরণকারীরা ধনবাড়ি, মধুপুর ও ঘাটাইলের ভিন্ন ভিন্ন স্থানে টাকা নিয়ে আসতে বলে। পরবর্তীতে অপহরণকারী নাহিদের কথা মতো মধুপুরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। গোপালপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমির খসরু ও পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শফিউল আলমের নেতৃত্বে গোপালপুর থানা পুলিশ এবং মধুপুর সার্কেলের সিনিয়র এএসপি কামরান হোসেনের সহযোগিতায় অভিযান চালানো হয়। পরে অপহরণকারীর সংঘবদ্ধ চক্রের সক্রিয় সদস্য লিখন ও সুমনকে মধুপুরের বেলকুচি গ্রামের বংশাই নদীর পাড় থেকে মুক্তিপণের টাকাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের দেয়া তথ্যানুযায়ী অপহরণকারী অন্য সদস্য সজীব (২০) অপহৃত শিশু ওয়াসিকে নিয়ে তার বোনের বাড়ি নেত্রকোনায় অবস্থান করছে। অপহরণকারী সজীবের বড় ভাই কামালকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় তার বোন জামাই রুবেলের বাসায় অপহৃত শিশুকে রেখে সজিব পালিয়ে গেছে।

পরবর্তীতে নেত্রকোনা বাহাট্টা থানা পুলিশের সহযোগিতায় শিশু আল ওয়াসিকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে গোপালপুর মামলা হয়েছে। অপর অপহরণকারী সদস্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আহাদুজ্জামান মিয়া।

 

 

 

 

০৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:৩৯:০২