পল্লী বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে নোয়াখালীর কবিরহাটে বাপ-বেটার মৃত্যু
মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, নোয়াখালী
অ+ অ-প্রিন্ট
নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নে পল্লী বিদ্যুতের লাইনের খুঁটির টানা তারে জড়িয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে সালাউদ্দিন (৪৮) ও তার ছেলে ৭ম শ্রেণীর ছাত্র সৌরভ হোসেনের (১২) মৃত্যু হয়েছে। সামবার (১৪ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টার দিকে ফায়ার সার্ভিস(দমকল বাহিনীর) সদস্যরা লাশ দুটি উদ্ধার করে । এর আগে সন্ধ্যার দিকে ওই ইউনিয়নের ফলাহারী গ্রামের বজল মাস্টার বাড়ী সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত সালাউদ্দিন বাড়ির উপজেলার পদুয়া গ্রামের সে ওই গ্রামের হাজী আলী আহমদের ছেলে      ও তার ছেলে  সৌরভ স্থানীয় করমবক্স আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। 

স্থানীয়রা জানায়, সোমবার বিকেলে সালাউদ্দিন স্থানীয় একটি ইরি-বোরো ধান ক্ষেতে নিজেদের সেচপাম্প দিয়ে পানি সেচ দিচ্ছিলেন । এসময় তার স্কুল পড়ুয়া ছেলে সৌরভ তাকে সহযোগিতা করতে সেখানে যায়। সন্ধ্যায় সেচ দেওয়া শেষে বাড়ি ফেরার আগে সৌরভ পায়ের কাঁদা ধোঁয়ার জন্য পাশের একটি পুকুর পাড়ে যায় এসময় সে পুকুরের পাড়ে পুঁতে রাখা বৈদ্যুতিক খুঁটির টানা তার ধরে নিচের দিকে ঝুলে পা ধোঁয়ার সময় তারটি বিদ্যুৎ লাইনের উপরে থাকা মূল তারের সঙ্গে লেগে বিদ্যুতায়িত হয়। এতে ঘটনাস্থলে সৌরভ ঝঁপট শুরু করলে পিতা সালাউদ্দিন ছেলেকে উদ্ধার করতে গিয়ে নিজেও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পুকুরের পানিতে পড়ে মারা যান।

স্থানীয় একাধিক বাসিন্দার অভিযোগ, বাবা-ছেলেকে পানির মধ্যে পড়ে থাকতে দেখে বিদ্যুৎ লাইনটি বন্ধ করতে পল্লী বিদ্যুতের কবিরহাট ও নোয়াখালী অফিস একাধিকবার ফোন করে ঘটনাস্থলে আসার জন্য জানানো হলেও তারা আসেনি। এসময় আশপাশের লোকজন, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এলেও ভয়ে মরদেহ উদ্ধারে পুকুরে নামতে পারেনি। ফলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দু’টি লণাশ পুকুরেই পড়েছিল। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে জেলা সদও থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা বিদ্যুৎ অফিসে কথা বলে নিশ্চিত হয়ে মরদেহ উদ্ধার করেন। এরপর রাত পৌনে ৯টার দিকে পল্লী বিদ্যুতের কবিরহাট আঞ্চলিক কার্যালয়ের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে আসেন।

গাফিলতির বিষয়ে জানতে চাইলে কবির হাট পল্লী বিদ্যুতের সহকারি ব্যবস্থাপক( ডি জি এম) গোপাল চন্দ্র শিব বলেন, পল্লী বিদ্যুতের নতুন সংযোগ দেয়া তারের সাথে টানা তারের সংযোগ থাকার কারনে এ দূর্ঘটনা ঘটে। ঠিকাদার কাজটি করেছে । মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিদর্শন করে বিস্তারিত জানাতে পারবো।

১৫ জানুয়ারি, ২০১৯ ০৯:৩৭:৫০