খুলনায় ১,২ও ৩ আসনে পুলিশ ও ডিবি আতঙ্কে নির্বাচনি অফিসগুলো ফাঁকা : মঞ্জু
মাওলা বকস, খুলনা
অ+ অ-প্রিন্ট
নির্বাচনের একদিন বাকি।জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট খুলনা মহানগর শাখার সমন্বয়ক ও মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, ‘পুলিশ ও ডিবি আতঙ্কে নির্বাচনী অফিসগুলো ফাঁকা হয়ে গেছে। সন্ধ্যার পর সেখানে অন্ধকার থাকে। নেতাকর্মীদের তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে পুলিশ। পুলিশি নির্বাচন হচ্ছে। মহিলাকর্মীদের ডেকে এলাকা ছেড়ে যেতে বলা হচ্ছে। সরকারি দলের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন অফিসের সামনে বসে থেকে সব নিয়ন্ত্রণ করছে।’

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় মহানগর বিএনপি অফিসে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, প্রচারণার সময় শেষ হলেও আজ সকালে আওয়ামী লীগের কর্মীরা মোটরসাইকেলে মহড়া দিচ্ছে, এলাকায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়াচ্ছে।

১১ দফা দাবি উপস্থাপন করে মঞ্জু বলেন, ‘সেনাবাহিনীর কাজ অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করা। এলাকায় এলাকায় সেনাবাহিনীকে মাইকিং করে ভোটারদের আশ্বস্ত করতে হবে। জনভীতি দূর করতে হবে। ভোটারদের কেন্দ্র এসে ভোট দেওয়ার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। প্রতিটি ভোট সেন্টারে সেনাবাহিনীর তদারকি নিশ্চিত করতে হবে।’

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ‘আমরা নিরাপত্তাহীন। খুলনা কারাগারে ঠাঁই নাই। জামিনে থাকা মামলার জামিন বাতিল করে গ্রেফতার চালানো হচ্ছে। আমরা অসহায়। আপনারা অতন্ত্র প্রহরীর দায়িত্ব পালন করে জনভোটাধিকার নিশ্চিত করুন।’

একই স্থানে একই ধরনের অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলেন করেন খুলনা-৩ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী রাকিবুল ইসলাম বকুল ও খুলনা-১ আসনের বিএনপিদলীয় প্রার্থী আমীর এজাজ খান।

এদিকে সংবাদ সম্মেলন শেষে খুলনা জেলা প্রশাসক ও রির্টানিং অফিসারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করতে যাওয়ার সময় খুলনা-৩ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী রাকিবুল ইসলাম বকুলের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট শেখ মোশারফ হোসেন ও মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান সাগরে আটক করে পুলিশ।

২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২১:৪২:৪৩