কেশবপুরে বাওড় মর্শিণার জলাশয় : ইকো পার্ক করা হলে বদলে যাবে এলাকা
জাহিদ আবেদীন বাবু, কেশবপুর (যশোর)
অ+ অ-প্রিন্ট
যশোরের কেশবপুর উপজেলার সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের প্রায় ২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে ৫২ একর বাওড় মর্শিণার নয়নাভিরাম জলাশয়টি সরকারি পৃষ্টপোষকায় ইকো পার্ক হিসেবে গড়ে তুললে বিনোদনের অন্যতম কেন্দ্র হয়ে উঠবে। দীর্ঘ বছর ধরে ওই বাওড়ে দেশি প্রজাতির মাছ উৎপাদন করা হয়। ভঙ্গুর অবকাঠামোর পরও শীত মৌসুমে নয়নাভিরাম সৌন্দর্যময় জলাশয়টি দেখতে দুর দূরান্তের পর্যটকরা এখানে ভিড় করে। স্থানীয় প্রশাসন ও বন বিভাগ প্রকৃতির নান্দনিক সৌন্দয্য উপভোগের স্থান হিসেবে বাওড় মর্শিণাকে ইকো পার্ক করার জন্য বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাবনা প্রেরণ করেছেন বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী জানায়, শীত মৌসুমে বিনোদন প্রিয় এবং ভ্রমণ পিপাষু মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে এখানে বেড়াতে আসেন। ইকো পার্ক তৈরি হলে বিদেশি পর্যকটরাও এখানে আসবেন। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আগমনে এলাকার পরিবেশ আরও উন্নত হবে। বিশেষ করে এ মুক্ত জলাশয় হবে শিক্ষার্থীদের আনন্দ কোলাহলের আকর্ষণীয় স্থান। জলাশয় সংলগ্ন সাতবাড়িয়া গ্রামের শফিকুল ইসলাম (৪৫) বলেন, তিনি ছোট কালে বাওড়টি অনেক প্রস্থ দেখেছেন। এখন বাওড়ের পাশ দিয়ে বেঁড়ি তৈরি হওয়ায় জলাশয়টি ছোট মনে হয়। এখানে ইকো পার্ক তৈরি হলে এলাকার মানুষেরও উন্নয়ন হবে। জলাশয় সংলগ্ন জাহানপুর গ্রামের যুবক খলিলুর রহমান বলেন, ইকো পার্ক হলে এলাকার পরিবেশ উন্নত হবে। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আগমনে এলাকার মানুষের সুস্থ্য সাংস্কৃতিক মননশীলও বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি এলাকার আর্থ সামাজিক অবস্থার আমুল পরিবর্তন ঘটবে বলে এলাকাবাসির অভিমত।  

উপজেলা বন বিভাগ কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, উপজেলা সদর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে খাস খতিয়ান ভূক্ত প্রায় ২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ও ২৫০ মিটার প্রস্থের প্রায় ৫২ একর ওই জলাশয়কে প্রকৃতির নান্দনিক সৌন্দয্য উপভোগের স্থান হিসেবে বাওড় মর্শিণায় ইকো পার্ক করার জন্য ৪টি গোলাকার ঘর, রেস্ট হাউজ, পার্কিং জোনের সঙ্গে ওয়াশ রুম, টয়লেট অত্যাধনিক কনফারেন্স রুম, গেট, টিকিট ঘর, বাইডার বোর্ড, প্যাটেল বোর্ড, মাছ ধরার মাচাং, চিলড্রেন কর্ণার, মুক্ত মঞ্চ, ওয়াচ টাওয়ার, পিকনিক সেড ও লিংক রোড সহ ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নানা ধরণের প্রস্তাবনা উপজেলা থেকে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে। সহকারি বিভাগীয় বন কর্মকর্তা অমিতা মন্ডল জানান, প্রস্তাবনাটি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। 

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মিজানূর রহমান বলেন, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় থেকে বাওড় মর্শিণায় ইকো পার্ক করার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড়ের পরেই ইকো পার্কের কার্যক্রম শুরু হবে।

 

০৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৩:৩২