সুন্দরগঞ্জ পৌর কাউন্সিলরকে হত্যার চেষ্টা : আ'লীগ নেতা গ্রেপ্তার
আবু বক্কর সিদ্দিক, গাইবান্ধা
অ+ অ-প্রিন্ট
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাজু সরদার (৩২)কে হত্যার চেষ্টা মামলায় আ'লীগ নেতা আহসানুল করিম চাঁদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। থানা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সুন্দরগঞ্জ পৌরশহর থেকে আহসানুল করিম চাঁদকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি পৌর আ'লীগের সভাপতি, উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান- হাফিজা বেগম কাকলীর স্বামী ও পৌর কাউন্সিলর সাজু সরদারকে হত্যার চেষ্টায় গুরুতর জখমের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার প্রধান আসামী। এরআগে রাত ৮টার দিকে উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের মীরগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে একদল দুর্বৃত্ত ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে কাউন্সিলর সাজু সরদারকে উপর্যুপরি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। জখমী কাউন্সিলর সাজু পৌর শহরের ৩ নং ওয়ার্ডের বীর-মুক্তিযোদ্ধা- কামাল উদ্দীন সরদারের পুত্র ও পৌর আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক। স্থানীয়রা জানান, ঘটনার সময় তারাপুর ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা সোহেল মিয়াসহ একটি মোটর-সাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন কাউন্সিলর। তাঁঁরা ঘটনাস্থলে ছুঁটে আসার আগেই দুর্বৃৃৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরে কাউন্সিলরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তারগণ অবস্থা বেগতিক দেখে কাউন্সিলর সাজুকে দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে পাঠান। কাউন্সিলরের সঙ্গে থাকা সোহেল মিঞা জানান, ১০-১২ জনের একদল দূর্বৃত্ত হঠাৎ করে তাদেরকে আক্রমণ করলেও তার (সোহেলের) কোন ক্ষতি করেনি। ধারণা করে একাধিক সূত্র জানায়, গত এপ্রিল মাসে বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে সাজু সরদারের সঙ্গে কয়েকজন আওয়ামীলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীর দাঙ্গা-হাঙ্গামা হয়েছিল। এরই জের ধরে এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটতে পারে। এঘটনায় কাউন্সিলর সাজু সরদারের চাচা জালাল উদ্দীন সরদার বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা ৬-৭ জনসহ ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেছেন। এ মামলার প্রধান আসামী হলেন, পৌর আ'লীগের সভাপতি- আহসানুল করিম চাঁদ।  

 বিষয়টি নিশ্চিত করে থানা অফিসার ইনচার্জ- এসএম আব্দুস সোবহান জানান, এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার প্রধান আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্যদেরকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।

 

০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১১:২২:০০