খুলনায় বাঁশের সাঁকোতে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত
মাওলা বকস, খুলনা
অ+ অ-প্রিন্ট
খুলনার  ডুমুরিয়া সদর থেকে শিক্ষার্থীসহ নানা পেশার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হয়ে থাকেন প্রতিদিন। 

ডুমুরিয়ার বাগআঁচড়া গ্রামের বাসিন্দা গাজী আলী বাদশা বললেন, বাঁশের সাঁকো পার হয়ে যাতায়াত করতে হয় বলে এলাকায় কেউ ছেলে-মেয়ে বিয়ে দেয় না। নতুন আত্মীয়তা সৃষ্টি তো দূরের কথা, সম্পর্ক ছিন্ন হবার অনেক ক্ষেত্রেই দায়ী আটলিয়া ও শোভনা ইউনিয়নের এ সংযোগ সাঁকোটি। ভোট আসলে ইউপি চেয়ারম্যান থেকে শুরুকরে মন্ত্রী পর্যন্ত প্রতিশ্রুতি দেন; কিন্তু পাঁচ গ্রামের দশ সহস্রাধিক অধিবাসীর সাঁকো অভিশাপ মোচন হয় না।” এ মনোকষ্ট শুধু আলী বাদশার একার নয়; কুলবাড়িয়া, বাগআঁচড়া, বাদুরগাছা, মনোহরপুর, বয়ারশিং ও মাদারতলা গ্রামবাসীরও।

বাঁশের সাঁকোতে কুলবাড়িয়া বিকেএমএস নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাগআঁচড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পল্লীশ্রী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও পল্লীশ্রী মহাবিদ্যালয়, কাঁঠালতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বয়ারশিং প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করে। ফলে প্রতিনিয়তই ঘটে দুর্ঘটনা। সাঁকো থেকে পড়ে গেলে সেদিন আর স্কুলে যাওয়া হয় না। গ্রামের ছেলে-মেয়ে সাঁতার জানে বলেই জীবনে রক্ষা বললেন বাগআঁচড়া গ্রামের বাসিন্দা ফুলতলা কলেজের প্রভাষক নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল। তিনি আরও বলেন, “দেশে যে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে তা আমাদের এলাকার মানুষ বিশ্বাস-ই করতে চায় না! পদ্মানদী মাঝি’র উপ্যানাসের মতো তাদের বক্তব্য, ‘ঈশ্বর থাকেন ওই ভদ্রপল্লীতে, এখানে তাহাকে খুঁজিয়া পাওয়া যাইবে না।”

একই এলাকার বাসিন্দা কাঁঠালতলা বরাতিয়া কওমী মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি মাহমুদুল হাসান বলেন, “যাতায়াতের কষ্টের কথা বলতে চাই না, আমরা সামাজিকভাবে যে কতটা অবহেলিত তা বোঝাতে পারবো না। ভৌগলিক অভিশাপে আমরা যেন অচ্ছুত প্রাণি!”

জানা গেছে, প্রতিনিয়ত ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটে সাঁকো পারাপারে। গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারের কোন উদ্যোগের ছোঁয়া লাগেনি ওই এলাকায়। বছর খানেক আগে বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়েছে এলাকা। তবে ভারী-মাঝারী যানবাহন তো দূরের কথা মোটরসাইকেল চলাচল করেনি ওইসব এলাকাতে। যাতায়াতের সমস্যার কারণে কুলবাড়িয়া মৎস্য আড়তে অল্প দামে পাওয়া যায় নদীর মাছ; তাতে অবশ্যই জেলে পল্লীর দুঃখ-দুর্দশা বাড়ে বৈকি কমে না!

খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনসুর, শোভনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত বৈদ্য ও আটলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এড. প্রতাপ কুমার রায় বললেন একই কথা। “চেষ্টা চলছে, দ্রুত ব্রীজ হবে ওখানে।”

 

 

 

 

 

 

 

৩০ আগস্ট, ২০১৮ ১১:২৪:২২