আগৈলঝাড়ায় ধর্ষণের শিকার নারীর স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে মামলা দায়ের
আঞ্চলিক প্রতিনিধি, বরিশাল
অ+ অ-প্রিন্ট
আগৈলঝাড়ায় ধর্ষণের ফলে অন্তসত্তা রাইচ মিলের নারী শ্রমিক স্ত্রী’র মর্যাদা পেতে ধর্ষক শরীফ বক্তিয়ারের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছেন। বৃহস্পতিবার ধর্ষিতা ওই নারী শ্রমিক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে আদালতের বিচারক মো. আবু আজাদ শামীম মামলাটি আমলে নিয়ে আগৈলঝাড়া উপজেলার ৩নং বাগধা বাগধা ইউপি চেয়ারম্যানকে তদন্ত প্রতিবেদন ও ধর্ষিতার ডিএনএ পরীক্ষার প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ প্রদান করেন। 

আদালতে দায়ের করা এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী জেলা থেকে কাজের সন্ধানে গত ৪বছর আগে স্বামী সন্তান নিয়ে বরিশালের আগৈলঝাড়ায় বাগধা এলাকা আসেন ওই নারী শ্রমিক। সেখানে বাগধা গ্রামের কালাম হাওলাদারের অটোমেটিক রাইচ মিলে শ্রমিকের কাজ শুরু করেন তিনি। কাজের সুবাদে বাগদা ইউনিয়নের চাঁদত্রিশিরা গ্রামের সাহেব বখতিয়ারের ছেলে শরীফ বখতিয়ারের সাথে পরিচয় হয় তার। শরীফের সাথে পরিচয়ের পর বিভিন্ন সময় শরীফ ওই নারী শ্রমিককে কু-প্রস্তাবসহ বিয়ের প্রলোভন দিয়ে আসছিল। শরীফের প্রস্তাবে নারী শ্রমিক রাজি না হওয়ায় তার স্বামীকে হত্যার হুমকি দেয় শরীফ। শরীফের হত্যার হুমকীতে নারী শ্রমিকের স্বামী রাজশাহী ফিরে যায়। তার স্বামী ফিরে না আসার সুযোগে চলতি বছরের ১০ এপ্রিল রাতে ওই নারী শ্রমিককে ধর্ষণ করে শরীফ। ধর্ষণ শেষে শরীফ নারী শ্রমিকের সাদা কাগজে স্বাক্ষর আদায় করে তাকে বিয়ের আশ্বাস দেয়।

ঘটনার কয়েকদিন পরে ওই নারী শ্রমিকের সাথে তার স্বামীর তালাক হয়েছে বলে এলাকায় প্রচার করে শরীফ তাকে বিয়ে কথা বলে শারিরীকে সম্পর্ক শুরু করে। শারিরীক সম্পর্কের কারণে ওই নারী শ্রমিক ৩ মাসের অন্তসত্ত্বা হয়ে পরে। ১ আগষ্ট রাতে শরীফ পুণরায় ওই শ্রমিকের সাথে শারিরীক সম্পর্ক করার সময় ওই নারী শ্রমিক শরীফের দ্বারা তিন মাসের অন্তসত্ত্বার কথা জানিয়ে তার স্ত্রী’র মর্যাদার দাবী করেন। এ সময় নারী শ্রমিককে পুণরায় ধর্ষণ শেষে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হুমকী ধামকী দেয় ধর্ষক শরীফ। 

উল্লেখিত ঘটনার বর্ননা দিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ধর্ষক শরীফকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন ধর্ষিতা ওই নারী শ্রমিক। বিজ্ঞ বিচারক অভিযোগ আমলে নিয়ে উপরোক্ত আদেশ প্রদান করেন।

 

১০ আগস্ট, ২০১৮ ১৪:১৬:৫৫