খানসামায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের পুরাতন ভবনে আগুন
মো. নুরনবী ইসলাম, খানসামা (দিনাজপুর)
অ+ অ-প্রিন্ট
দিনাজপুরের খানসামায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স (পাকেরহাট) এর পুরাতন ভবনে আগুন লাগার  ঘটনা ঘটে। শনিবার সকাল ১০ টার দিকে হাসপাতালের পুরাতন ভবনের ৩য় তলায় এই ঘটনা ঘটে বলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আব্দুল আউয়াল জানান। তবে আগুন লাগার ঘটনায় বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতি ও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে মেডিকেল অফিসার ডাঃ শামসুদ্দোহা মুকুল জানান, হাসপাতালের পুরাতন ভবনের ৩য় তলার ঐ কক্ষে গত ১২ বছরের পুরাতন কাগজপত্র, পরিত্যক্ত যন্ত্রাংশ এবং পুরাতন বেড রাখা ছিল। তবে আগুনের প্রভাব ব্যাপক থাকলেও হাসপাতালের কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, রোগীর লোকজন, হাসপাতাল সম্মুখের দোকানদার ও এলাকাবাসী আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন। তিনি আরো জানান, আগুনে অল্প পুরাতন কাগজপত্র, পরিত্যক্ত যন্ত্রাংশ ও বেড পুড়ে যাওয়ায় তেমন কোন ক্ষয়ক্ষতি হয় নি।

এই ঘটনায় নীলফামারীর ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট আগুন নেভাতে আসার আগেই আগুন নিভে গিয়েছিল। 

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত মেডিকেল অফিসার ডা: আব্দুল আউয়াল জানান, সকাল সাড়ে ১০টায় হাসপাতালে ভর্তিরত রোগীদের দেখার সময় আগুনে পোড়ার গন্ধের পাওয়ার পরই জানালা দিয়ে ধোঁয়া দেখা যায়। এরপরই রোগীসহ হাসপাতালের কমরত কর্মচারীদের চিৎকারে আশেপাশের দোকানদার সহ এলাকাবাসী দৌড়ে এসে নতুন ভবনের ছোট দরজা দিয়ে ঢুকে পানির ট্যাংক ও লাইন দিয়ে দ্রুত গতিতে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। প্রায় ১ ঘন্টার মধ্যে সবার সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়েছে ।

তিনি আরো জানান, যে কক্ষে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে সেখানে কোন ধরনের বৈদ্যুতিক সংযোগ নেই। সিড়ি বেয়ে উপরে উঠে হয়তো কেউ সিগারেট টেনে তার পরিত্যক্ত অংশ ঐ রুমের দিকে নিক্ষেপ করে।

হাসপাতালে ভর্তিরত কয়েকজন রোগীর সঙ্গের লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে দু'জন বৃদ্ধ মহিলা সিড়িতে উঠে বিড়ি টেনেছিল। তাদের বিড়ির আগুন সেখানে ফেলে আসলে পরবর্তীতে সেখান থেকেই আগুনের সূত্রপাত ঘটতে পারে। 

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ নজমুল ইসলাম জানান, কিভাবে আগুন লেগেছে তা সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে বিড়ি কিংবা সিগারেটের আগুনে তা হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। সঠিক বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ শামসুদ্দোহা মুকুলের নেতৃত্বে ৩ সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ঘটনার পরপরই পরিদর্শনে আসেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, আঙ্গারপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান মোস্তফা আহম্মেদ শাহ্, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সফিউল আযম চৌধুরী লায়ন সহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। 

 

১৮ মার্চ, ২০১৮ ২৩:০৮:৫৮