আপত্তিকর অবস্থায় আটক শিক্ষা কর্মকর্তা ও শিক্ষিকা কারাগারে
মাওলা বকস, খুলনা
অ+ অ-প্রিন্ট
খুলনায় আপত্তিকর অবস্থায় আটক শিক্ষা অফিসার ও সহকারী শিক্ষিকাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল শুক্রবার তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হলে মহানগর হাকিম মোঃ ফারুক ইকবাল এ আদেশ দিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার রাতে সদর থানা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অসীত কুমার বর্মণের সঙ্গে নিজ বাসায় আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ে পশ্চিম টুটপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলি। পলির স্বামী মিজানুর রহমান ঢাকার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়ে কিছু রেখে যাওয়ায় ফের বাসায় ফেরত এসে অসীত ও পলিকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পান। দক্ষিণ টুটপাড়াস্থ দিলখোলা রোড এলাকার বাসা থেকে এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ তাদের আটক করে। এ ঘটনায় পলির স্বামী মিজানুর রহমান বাদী হয়ে স্ত্রী ও শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মণকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলনা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুব্রত কুমার বাড়ই জানান, নুসরাত জাহান পলির স্বামী এস এম মিজানুর রহমান গত বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে রওনা দেন। কিন্তু, কিছু ফেলে আসায় তিনি সাত রাস্তার মোড় পর্যন্ত গিয়ে ফের বাসায় ফেরেন। এ সময় মিজানুর রহমান রাত সাড়ে নয়টার দিকে নিজ বাসায় স্ত্রী ও শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মণকে আপত্তিকর অবস্থায় হাতেনাতে ধরে ফেলেন।

গ্রেফতার সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মণ সাতক্ষীরা জেলা সদরের রাজনগর গ্রামের অমল কুমার বর্মণের ছেলে। আর শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলি তালা উপজেলার হরিনগর গ্রামের জাহাতাব উদ্দিন গোলদারের মেয়ে। জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই তারা অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন।

এ ব্যাপারে খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রমেন্দ্রনাথ পোদ্দার জানান, দু’জনের গ্রেফতারের খবর তিনি শুক্রবার সকালে শুনেছেন। কিন্তু অফিস ছুটি থাকায় তাদের বিরুদ্ধে আপাতত কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। অফিস খুললে রবিবার তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হবে। এরপর বিধি অনুযায়ী অন্যান্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ২৩:১৯:১৭