কেশবপুর সাগরদাঁড়ি সড়কের ব্রিজ ধসে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, চরম দুর্ভোগ
জাহিদ আবেদীন বাবু, কেশবপুর (যশোর)
অ+ অ-প্রিন্ট
যশোরের কেশবপুর শহরের সাগরদাঁড়ি সড়কের প্রবেশ মুখের মাইকেল গেটের সামনের মিনি ব্রিজটি গত সোমবার রাতে বালুভতি ট্রাক পারাপারেরর সময় ধসে ট্রাকটি খাদে পড়ে যাওয়ায় বর্তমান সড়কটি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে দূর-দূরান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীসহ হাজারও যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহনের সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।  

কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি সড়ক দিয়ে প্রতিদিন পৌরসভার একাংশ, মজিদপুর, হাসানপুর, বিদ্যানন্দকাটি ও সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের মানুষ চলাচল করেন। সাতক্ষীরা যেতে হাইওয়ের চেয়ে প্রায় ১৫ কিলোমিটার পথ কম হওয়ায় যশোর থেকে আসা পণ্যবাহী ট্রাক ও অন্যান্য বাহন এ সড়ক দিয়েই যাতায়াত করে থাকে। এছাড়া মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমি সাগরদাঁড়িতে দেশী-বিদেশী পর্যটকসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কবি ভক্তরা বনভোজনে আসায় সড়কটি সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ। এ সড়কের প্রবেশ মুখের ব্রিজ দিয়ে কেশবপুর শহরের একাংশের পানি সিএমবি খাল দিয়ে নিষ্কাশন হয়ে থাকে। প্রায় ৩০ বছর আগে নির্মিত এ ব্রিজটি গত ৩ বছর আগেই পরিত্যক্ত হয়ে যায়। কিন্তু কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে আজও ব্রিজটি পুণ:নির্মাণ করা হয়নি। এরপরও ওই ব্রিজের ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই চলতে থাকে পথচারীসহ ছোট বড় যানবাহন। এদিকে, গত সোমবার রাতে যশোর থেকে সাতক্ষীরাগামী একটি বালুভর্তি ট্রাক ওই ব্রিজ দিয়ে পারাপারেরর সময় ব্রিজটি ধসে ট্রাকটি খাদে পড়ে আটকে যায়। এ সময় ট্রাকটির ড্রাইভার সলেমান আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় বিপাকে পড়েছে স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, চাকরীজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার হাজার হাজার মানুষ। এরপর থেকে সড়কটি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ফলে দূরের যাত্রী, পথচারীসহ ভারী পণ্যবাহী যানবাহনকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। 

এ বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রকৌশলী মুনছুর আলী জানান, নির্বাহী প্রকৌশলী মনজুরুল আলম সিদ্দিকী ও  যশোর অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সৈয়দ শফিউল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এই সড়কের বন্যা প্লাবিত অংশ সংস্কারের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তার মধ্যেই এই দূর্ঘটনাটি ঘটেছে। আপাতত বালি খোয়া দিয়ে ভরাট করে চলাচলের ব্যবস্থা করা হবে। 

১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ০৯:৪৭:৫৩