কুষ্টিয়ায় দিশা সংস্থার কর্মী সম্মেলন
মো. রাকিবুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
অ+ অ-প্রিন্ট
কুষ্টিয়া  আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও মানবিক কল্যাণ সংস্থা দিশার কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।  আজ  সকালে উপজেলা মোড়ের দিশা টার্কের অডিটোরিয়ামে এই কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন-পিকেএসএফের চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জামান আহমদ।

এসময় তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে গৃহিত দেশ ও জনগণের জন্য কল্যাণমুলক পদক্ষেপেওে পাশাপাশি যেসকল বেসরকারী প্রতিষ্ঠান নিরলসভাবে কাজ করছে তার মধ্যে অন্যতম এই দিশা সংস্থা। দিশা প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে শুরু করে দরিদ্র ও অধিকারবঞ্চিত মানুষের জীবনমান উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। অবিষ্যতেও এ ধারা অব্যহত রাখবে বলে আমি বিশ্বাস  করি।

দিশা সংস্থার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত সচিব ও কুষ্টিয়া জেলা সমিতির সভাপতি মোঃ আকতার উজ জামান, পিকেএসএফের উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক (প্রশাসন)ড, মোঃ জসীম উদ্দিন, সিডিএফের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল আউয়াল,পদ¶েপ মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল আহম্মেদ।

সভাপতির বক্তব্যে দিশা সংস্থার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ২০১২সালে আমরা কর্মী সমাবেশ করেছিলাম। সেসময় বলেছিলাম নিজ ভবনে আমরা কর্মী সমাবেশ করবো। দেরীতে হলেও আমরা নিজ ভবনে আজকের এই দিশা টাওয়ারে কর্মী সমাবেশ করতে পেরে আমরা গর্বিত। তিনি বলেন, আজকের এই দিশা টাওয়ার প্রতিষ্ঠালগ্নের মাধ্যমে সামজিক মর্যাদাও বেড়ে গেলো এই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের। ২০২০ সালের মধ্যে সারাদেশে একশো টি ব্র্যাঞ্চ এবং ৫শ কোটি টাকার ঋণদান ব্যবস্থা চালু করবে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে  বক্তব্যে দিশার নির্বাহী পরিচালক মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, ১৯৯৬ সালে সীমিত সম্পদ নিয়ে দারিদ্র বিমোচন ও মানবকল্যানের জন্য প্রতিষ্ঠা হয় কুষ্টিয়ায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও মানবিক কল্যাণ সংস্থা দিশা। দীর্গ ২১ বছরে নানা চড়াই উৎরাই পার করে দিশার শক্ত ও সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভিত্তি গড়তে সক্ষম হয়েছি। সেই ভিত্তির উপর আজ মাথা উচু করে সংস্থার স্থায়ী ঠিকানা দাঁড়িয়ে আছি।

দিশা সংস্থায় কর্মরত সকলের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ভকনটি ইটপাথরে নির্মিত শুধু একটি বহুতল বিশিষ্ট সুদৃশ্য স্থাপনা নয়। আপনাদের  আবেগ, ভালোবাসা, ও আস্থার বিমুর্ত রুপ এই দিশা। আজকের এই আনন্দঘন প্রতিটি মুহুর্ত্বের সমান অংশীদার আপনারা। আপনারা মনোযোগ দিয়ে এবং ধৈর্য্যসহকারে কাজ করবেন। আপনাদের ইনক্রিমেন্ট আমরা বৃদ্ধি করবো শীঘ্রই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এসময় কুষ্টিয়ার দিশার সকল ব্র্যাঞ্চের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে বুলবুল ললিতকলা একাডেমী ও কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমীর শিল্পীরা সঙ্গীত পরিবেশন করেন।

১৬ জুলাই, ২০১৭ ১২:২৬:২৯